আটলান্টিক সিটিতে ‘গার্ডেন স্টেট সুপার মার্ট ‘ বাংলাদেশীদের আস্থা অর্জন করেছে

আটলান্টিক সিটিতে   ‘গার্ডেন  স্টেট সুপার মার্ট ‘  বাংলাদেশীদের আস্থা অর্জন করেছে

 

আটলান্টিক সিটি থেকে সুব্রত চৌধুরি- নিউজারসি অঙ্গরাজ্যের আটলান্টিক সিটির ২৯২৯ আটলান্টিক এভিনিউতে অবস্থিত ‘গার্ডেন স্টেট সুপার  মার্ট ‘  প্রবাসী বাংলাদেশী সহ অন্যান্য জাতি- গোষ্ঠীর আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।  সম্প্রতি  চালু হওয়া এই গ্রোসারি ইতোমধ্যে  ব্যবসায়িক সাফল্য অর্জন করেছে।আটলান্টিক সিটি ও এর আশেপাশের শহরে বসবাসরত সকল শ্র্রেনীর ক্রেতা সাধারনের  সমাবেশ ঘটে এই গ্রোসারিতে।এই গ্রোসারি সপ্তাহের সাত দিনই সকাল নয়টা থেকে রাত একটা পর্যন্ত খোলা থাকে। গ্রীষ্মে ও রমজানকালীন সময়ে এই সময়সীমা আরো বাড়ে ।                                                                                                                                                                                                                                        ‘গার্ডেন  স্টেট সুপার মার্ট ‘ এর  স্বত্বাধিকারীরা জানালেন,সুলভ মূল্য,পন্যের উন্নত গুনগত মান,উন্নত ক্রেতা সেবা, হোম ডেলভারি ইত্যাদি কারনেই তাঁরা এতো দ্রুত কমিউনিটির আস্থা অর্জন করেছেন।

‘গার্ডেন  স্টেট সুপার মার্ট ‘  এর  স্বত্বাধিকারীরা নিজেরাই নিউইয়র্ক, নর্থ জার্সি ,ফিলাডেলফিয়া থেকে পন্য- সামগ্রী সংগ্রহ করেন,যাতে করে পন্যের গুনগত মান ঠিকঠাক থাকে,দামটাও ক্রেতাদের নাগালের মধ্যে থাকে ।তাছাড়া কিছু কিছু সরবরাহকারী গ্রোসারিতে পন্য সরবরাহ করে,এক্ষেএেও পন্যের গুনগত মানের সাথে তাঁরা কোনও আপোষ করেন না বলে জানান।

‘গার্ডেন  স্টেট সুপার মার্ট ‘ এ  পণ্য বিক্রির পাশাপাশি ক্রেতারা আরো বিভিন্ন ধরনের সেবা গ্রহনের সুযোগ পান।যেমন-দেশে টাকা পাঠানো,টেলিফোন  রিচার্জ,বিমান টিকেট ক্রয়, ফ্যাক্স-ফটোকপির  ব্যবস্থা ইত্যাদি।

এই গ্রোসারিতে নিয়মিত কেনাকাটা করেন রতন ভট্টাচার্য। তিনি জানান, ভালো মানের পণ্য,উন্নত ক্রেতা সেবা ও সুলভ মূল্যের জন্য তিনি এই গ্রোসারিতে নিয়মিত কেনাকাটা করেন।

অন্য আরেকজন ক্রেতা জোসেফ জানালেন, সুলভ মূল্য ও ক্রেতা সেবার জন্য তিনি এই গ্রোসারির  নিয়মিত ক্রেতা।

‘গার্ডেন  স্টেট সুপার মার্ট ‘  এর  স্বত্বাধিকারীরা  আরো   জানান,  রমজান মাসে সুলভ ও সাশ্রয়ী মূল্যে তাঁরা পন্য সামগ্রী বিক্রি করছেন।

‘গার্ডেন  স্টেট সুপার মার্ট ‘  এর   স্বত্বাধিকারীরা হলেন আবুল হোসেন, মোঃ মাকসুদ উদদীন, মোঃ জাফর ইকবাল ও পুলক  বড়ুয়া। তাঁরা  জানান, শুধুমাএ  মুনাফা অর্জন তাঁদের লক্ষ্য নয়,কমিউনিটিকে সেবা প্রদানই তাঁদের মূল লক্ষ্য।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.