আফগান সিরিজেও ওয়ালশেই ভরসা বিসিবির

আসবে, আসছে, আসলো; এভাবেই চলছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ নিয়োগ প্রক্রিয়া। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান কোচ বাছাইয়ের দীর্ঘ প্রক্রিয়া কবে শেষ হবে তা হয়তো জানা নেই খোদ বিসিবি কর্মকর্তাদেরই। তাই বাধ্য হয়েই প্রধান কোচ আসার আগ পর্যন্ত পেস বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশকে দিয়েই ঠেকার কাজ চালিয়ে দিচ্ছে বিসিবি।

 

আগেই জানা ছিলো, প্রধান কোচ না থাকায় আফগানিস্তান সিরিজেও কোর্টনি ওয়ালশের অধীনেই খেলবে বাংলাদেশ দল। রোববার আনুষ্ঠানিকভাবে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই খবর নিশ্চিত করেছে বিসিবি। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিসিবি জানিয়েছে, ‘ভারতের দেরাদুনে অনুষ্ঠিতব্য আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করবেন কোর্টনি ওয়ালশ। শ্রীলঙ্কার নিদাহাস ট্রফিতেও একইভাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন তিনি।’

 

 

 

এর আগে মার্চে শ্রীলংকার মাটিতে হওয়া নিদাহাস ট্রফিতেও বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করেছিলেন ওয়ালশ। তার অধীনে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের ওই টুর্নামেন্টে দুর্দান্ত খেলে বাংলাদেশ। অল্পের জন্য বঞ্চিত হয় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন থেকে।

 

এ কারণেই আফগানিস্তানের বিপক্ষে হতে যাওয়া একই ফরম্যাটের ক্রিকেটে ওয়ালশের হাতেই ছেড়ে দেয়া হল সাকিব-তামিমদের। গত অক্টোবরে তৎকালীন প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে পদত্যাগ করার পর হন্যে হয়ে প্রধান কোচ খোঁজার কাজ করলেও, এখনো পর্যন্ত ব্যর্থ বিসিবি। অগত্যা আবারো হাতের কাছে থাকা সম্ভাব্য সেরা মানুষের দুয়ারেই ধরনা দিতে বাধ্য হল বোর্ড।

 

বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচ নির্বাচন প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে সম্প্রতি গ্যারি কারস্টেনের কাছ থেকে বিশেষজ্ঞ মতামত নিয়েছে বিসিবি। কারস্টেনের পরামর্শ মোতাবেক নতুন করে ওয়ানডে এবং টেস্টের জন্য ভিন্ন ভিন্ন কোচ খোঁজার মিশনে নেমেছে দেশের ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। যার ফলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের আগে যে প্রধান কোচ পাওয়া সম্ভব হবে না, তা বলেই দিয়েছেন কারস্টেন। ক্যারিবীয় সফরে যাওয়ার আগেও সাকিব-তামিমরা নিজেদের পাকাপোক্ত কতে প্রধান কোচ পাবেন কি না তা নিয়েও রয়েছে সংশয়।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.