ইটভাটা মালিকের বিরুদ্ধে এলজিইডি’র পাকারাস্তা নষ্টের অভিযোগ

প্রকাশিত:সোমবার, ১৫ জুন ২০২০ ১০:০৬

ইটভাটা মালিকের বিরুদ্ধে এলজিইডি’র পাকারাস্তা নষ্টের অভিযোগ

বাগমারা (রাজশাহী) :
রাজশাহীর বাগমারায় সরকার দলীয় প্রভাবশালী নেতার আত্মীয় হওয়ায় কোটি টাকার এলজিইডি’র পাকা রাস্তাটি জনগনের চলাচলের অযোগ্য করে তুলেছেন অবৈধ ইট ভাটার মালিক মতিউর রহমান। রাস্তাটি ধ্বংশের করুন পরিস্থিতি দেখে হাই হোতাস করছে এলাকার লোকজন। সরকার দলীয় প্রভাবশালী নেতার আত্মীয় হওয়ায় বেকাদায় পড়েছেন উপজেলা এলজিইটির প্রকৌশলীসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা। মুখবুঝে এমন অন্যায়, অত্যাচার সহ্য করতে হয় তাদের। প্রতিবাদ, প্রতিহত করতে গেলেই নানা ভাবে র্নিযাতনের শিকার হতে হয় এলজিইটির প্রকৌশলীসহ দপ্তরের অধিকাংশ কর্মকর্তা, কর্মচারীদের।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলা সদর ভবানীগঞ্জ-কেশরহাট মূল রাস্তার মাথাভাঙ্গা থেকে হাটগাঙ্গোপাড়া এলজিইডি’র পাকা রাস্তাটির বাইগাছা এলাকায় একই গ্রামের ইটভাটার মালিক মতিউর রহমান তার ভাটায় মাটি সংগ্রহের নামে ট্রাক দিয়ে বাহিরে থেকে মাটি সংগ্রহ শুরু করে। ট্রাক থেকে রাস্তায় মাটি পড়ে জমা হয়ে যায়। বৃষ্টির পর থেকে ওই রাস্তা দিয়ে কোন ধরনের যানবাহন চলাচল করতে পারে না। যান বাহন চলাচল করতে গেলে অধিকাংশ সময় দুর্ঘটনার কবলে পড়তে হয়। এছাড়াও পাকা রাস্তাটিতে পানি পড়ে কাঁদায় রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে উঠে। কাঁদার কারনে যান-বাহন ও মানুষ কোন ভাবেই রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করতে পারছেনা। এলাকার লোকজনের অভিযোগ তারা ওই সকল ঘটনায় একাধিকবার উপজেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন দপ্তরে ধর্ণা দিয়েছি। সরকার দলীয় প্রভাবশালী নেতার আত্মীয় হওয়ার প্রশাসনের পক্ষ থেকে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে না। এলাকার লোকজনের অভিযোগ তদন্ত করে সরকারী রাস্তাটি রক্ষাসহ জনগনের চলাচলের পথ সুগম করার দাবী জানিয়েছেন। রাস্তায় চলাচলকারী জাবেদ আলী, আব্দুস সোবহান, জোনাব আলী, সোহরাব হোসেন, আব্দুল হামিদসহ একাধিক ব্যক্তির অভিযোগ প্রতি বছর ইট ভাটার মালিক মতিউর রহমান সরকারী রাস্তাটির এমন দশা করেন। এলাকার লোকজন অভিযোগ করেও সরকার দলীয় প্রভাবশালী আ’লীগ নেতার আত্মীয় হওয়ায় প্রশাসন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে না। অভিযুক্ত ইটভাটার মালিক মতিউর রহমানের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তার মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
এলজিইডি’র উপজেলা প্রকৌশলী সানোয়ার হোসেন বলেন, রাস্তা নষ্ট করার জন্য কয়েকবার পদক্ষেপ নিয়েছি। এর বেশী তিনি কিছুই বলতে রাজী হননি। বিষয়টি জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরিফ আহম্মেদ এই প্রতিবেদককে জানান, ঘটনাটি আমার জানা নেই। খোঁজখবর নিয়ে সরকারী রাস্তা নষ্টকারী ইটভাটা মালিক মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

এই সংবাদটি 1,231 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •