কুষ্টিয়া স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ১’শ ২৫ কোটি টাকার প্রকল্প বাস্তবায়ন

প্রকাশিত:সোমবার, ১০ আগ ২০২০ ০৯:০৮

কুষ্টিয়া স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ১’শ ২৫ কোটি টাকার প্রকল্প বাস্তবায়ন

নাদিয়া ইসলাম মিম, কুষ্টিয়া :
বর্তমান সরকারের গ্রাম বাংলার অবকাঠামো উন্নয়ন আধুনিকরণের ফলে কুষ্টিয়ার গ্রাম বাংলার দৃশ্যপট বদলে গেছে। কৃষি, শিল্প, ব্যবসা বানিজ্যের গতি আসার পাশাপাশি এলাকার মানুষের আত্ম সামাজিক জীবন ব্যস্থারও পরিবর্তন ঘটেছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ( এলজিইডি) কুষ্টিয়া ২০১৯-২০ অর্থ বছরে ১’শ ২১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ব্যয়ে গ্রাম বাংলার সড়ক উন্নয়ন সংস্কার ও প্রশস্ত উন্নীত করন এবং ৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা ব্যয়ে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ৫টি ভুমি অফিস, ৫টি মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক স্থান সমুহ সংরক্ষন ও মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর নির্মানসহ বছর ব্যাপী ১০১জন দুস্থ মহিলাদের সড়কের পার্শ্ব রক্ষনাবেক্ষনের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন। সড়ক প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করায় পাল্টে গেছে কুষ্টিয়ার গ্রাম বাংলার সড়কের দৃশ্যপট।
কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার তারাগুনিয়া থেকে ডাংমড়কা পর্যন্ত সাড়ে ৭ কিঃ মিঃ রাস্তা জনসাধারণের চলাচলসহ যানবাহন চলাচলে একেবারই অযোগ্য হয়ে পড়ে। খানাখন্দে ভরা এই সড়কটি প্রশস্ত করে মেরামতের দাবী ছিল এলাকাবাসীর । এরই প্রেক্ষিতে এলজিইডি কুষ্টিয়া ৭ কোটি টাকা ব্যয়ে উক্ত সড়কটি মেরামত করায় এলাকার সড়ক ব্যবস্থার দৃশ্যপট বদলে গেছে। এ ছাড়া দৌলতপুর উপজেলা থেকে কাতলামারী সড়কের বাড়গাংদিয়া পর্যন্ত ৮ কিঃ মিঃ রাস্তা ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে মেরামত করায় এলাকার ব্যবসা বানিজ্যের প্রসার ঘটেছে। মিরপুর উপজেলা থেকে আলমডাঙ্গা ভায়া হালসা সড়কের হালসা অংশ সাড়ে ৫ কিঃ মিঃ রাস্তা ৩ কোটি ২২ লাখ টাকা ব্যয়ে মেরামত করায় যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতী হয়েছে। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আলিমুল বলেন, খানাখন্দে ভরা রাস্তা দিয়ে চলাচল ব্যবসার জন্য মালামাল আনা নেয়া কঠিন হয়ে পড়েছিল । আমরা রাস্তার অভাবে ব্যবসা করতে পারছিলাম না। রাস্তা সংস্কার করায় আমরা চলাচলে যেমন সুবিধা পেয়েছি তেমনি ব্যবসা বানিজ্যও করতে পারছি। যান বাহন চালক আক্কাস আলী বলেন, রাস্তা খারাপ থাকায় যানবাহন নিয়ে বেকায়দায় পড়েছিলম। রাস্তায় ভালো গাড়ী নিয়ে চলতে গেলে ওই গাড়ী আর ভালো ভাবে বাড়ীতে ফিরতে পারতো না। যে কারনেই গাড়ী চলাচল বন্ধ রেখেছিলাম। রাস্তা মেরামত ও প্রশস্ত করার কারনে বাধাহীন ভাবে গাড়ী চালাতে পাছি। সড়কের দূঘর্টনাও নেই বললেই চলে।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ( এলজিইডি) কুষ্টিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ জাহিদুর রহমান মন্ডল জানান, বর্তমান সরকার গ্রাম বাংলার অবকাঠামোর উন্নয়ন, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নসহ আত্ম সামাজিক ব্যবস্থার উন্নয়নে ব্যাপক কাজ করে যাচ্ছে। তারই ধারা বাহিকতায় কুষ্টিয়া জেলায় সরকার ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। আর এই উন্নয়নের ফলে সাধারণ মানুষসহ কৃষক শ্রমিক, ব্যবসায় বানিজ্যের, শিল্প প্রতিষ্ঠানের ব্যাপক উন্নয়ন ঘটেছে। ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে এলজিইডি কুষ্টিয়া ৭৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৪৮ কিঃ মিঃ পাকা সড়ক মেরামত ও প্রশস্তকরণ, ৪৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫৬ কিঃ মিঃ কাঁচা রাস্তা পাকাকরণ, ২ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ২৮টি সামাজিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে।
সরকারের এই প্রকল্প বাস্তবায়নে নির্বাহী প্রকৌশলী জাহিদুর রহমান মন্ডল এর সরাসরি তত্বাবধানে কুষ্টিয়া জেলার ৬টি উপজেলা প্রকৌশলী, উপ-সহকারী প্রকৌশলীগন মাঠ পর্যায়ে তদআরকী করে প্রকল্প গুলো বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়েছে।
এদিকে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে ১০০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩’শ কিঃ মিঃ পাকা রাস্তা মেরামত ও প্রশস্তকরন , ৮০ কোটি টাকা ব্যয়ে ১০০ কিঃ মিঃ কাঁচা রাস্তা পাকাকরণ, ৮৯ কোটি টাকা ব্যয়ে কুমারখালী গড়াই নদীর উপর ৬৫০ মিঃ দীর্ঘ সেতু নির্মানসহ বিভিন্ন নদি খালে ১২ টি সেতু নিমার্ণসহ ৬টি ইউনিয়ন ভুমি অফিস নির্মান, ৪টি মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক স্থান সমুহ সংরক্ষন ও মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর নির্মান, ৯টি এতিহ্যবাহী পুকুর খাল খননসহ বছর ব্যপী ৭৮৮জন দুস্থ মহিলাদের সড়কের পার্শ্ব রক্ষানবেক্ষনের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এই সংবাদটি 1,233 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •