কোরবানীর ঈদ কে সামনে রেখে হবিগঞ্জে ব্যস্ত সময় পার করছেন কামাররা

প্রকাশিত:রবিবার, ২৬ জুলা ২০২০ ১২:০৭

কোরবানীর ঈদ কে সামনে রেখে হবিগঞ্জে ব্যস্ত সময় পার করছেন কামাররা
হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ কোরবানীর ঈদ কে সামনে রেখে হবিগঞ্জে ব্যস্ত সময় পার করছেন কামাররা। দরজায় কড়া নাড়ছে আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা। ৬দিন পরেই কোরবানি ঈদ। এই ঈদের অন্যতম কাজ হচ্ছে পশু কোরবানি করা। ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে পশু জবাইয়ের সরঞ্জাম প্রস্তুতে ব্যস্ত সময় পার করছেন হবিগঞ্জের কামার শিল্পের সব কারিগর।
কয়লার দগদগে আগুনে লোহাকে পুড়িয়ে পিটিয়ে তৈরি করছেন সব ধারালো সামগ্রী। মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসবের অন্যতম হচ্ছে ঈদুল আযহা। আর এই ঈদে মুসলিম ধর্মের অনুসারীরা আল্লাহকে খুশি করতে পশু জবাই করেন। পশু জবাইয়ের জন্য প্রয়োজন বিভিন্ন ধরনের সরঞ্জামাদি। মাংস কাটা এবং কুরবানির পশু জবাই করার বিভিন্ন ধাপে ছুরি, দা, চাপাতি এসব ব্যবহার করা হয়। ঈদের বাকি আর ৬দিন তাই পশু কুরবানিকে কেন্দ্র করে হবিগঞ্জের কামার পল্লী গুলো অনেকটাই ব্যস্ত সময় পার করছে। দগদগে আগুনে গরম লোহায় ওস্তাদ-সাগরেদদের পিটাপিটিতে মুখর হয়ে উঠেছে কামার পল্লী। আবার এসব ধাতব সরঞ্জামাদি শান দিতে শানের দোকানগুলোতেও ভীড় ক্রমেই বাড়ছে। পৌর এলাকার কামার পট্টি, কোর্ট ষ্টেশন এলাকায় ঘুরে এসব চিত্র দেখা যায়। হবিগঞ্জের অন্যতম বৃহৎ পাইকারি বাজারের কামার পল্লী গুলো এখন ব্যস্ত সময় পার করছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন দামে ছুরি, বটি, চাপাতি বিক্রি হচ্ছে দোকানগুলোতে। বড় ছুরির দাম ১২০০ থেকে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত। ছোট ছুরির দাম ২৫০ থেকে ৫৫০ টাকা পর্যন্ত। দেশি চাপাতিগুলো কেজি হিসেবে বিক্রি হয়ে থাকে। প্রতি কেজি ওজনের চাপাতির দাম ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। ব্যবসায়ীরা জানান, এখনো পুরো দমে বিক্রি শুরু। তবে ঈদের ৪-৫ দিন আগেই থেকে পুরোদমে বেচাকেনা শুরু হবে। এ ব্যাপারে কামার মিঠুন রায় বাংলা নিউজ ইউএস কে বলেন, এখন আমরা তৈরি করে রাখছি। বেচাকেনা শুরু হয়েছে।

এই সংবাদটি 1,227 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •