‘গণজোয়ার’ দেখছেন কামরান, ‘আশাবাদী’ আরিফ

সিলেট সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে শেষ হাসি কে হাসবেন, তা ৩০ জুলাই ভোটের পরেই জানা যাবে। কিন্তু নির্বাচনী লড়াইয়ে থাকা আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই মেয়র প্রার্থী এখনই জয় দেখতে শুরু করেছেন। আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান নিজের পক্ষে ‘গণজোয়ার’ দেখতে পাচ্ছেন। বিপরীতে ভীষণ আশাবাদী আরিফ বলছেন, নির্বাচন সুষ্ঠু হলেই তার জয় ‘সুনিশ্চিত’।

 

মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের এটি টানা চতুর্থ নির্বাচন। সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) প্রথম ও দ্বিতীয় নির্বাচনে তিনি মেয়র পদে বিজয়ী হয়েছিলেন। সর্বশেষ তৃতীয় নির্বাচনে নগর ভবন থেকে ছিটকে পড়তে হয় কামরান। এবার তাই সিসিকের চতুর্থ নির্বাচনে জয় পেতে মরিয়া কামরান। এজন্য দলের মধ্যে থাকা কোন্দল নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার আগেই নিরসন করা হয়েছে। ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাও নির্দেশ দিয়েছেন। প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর থেকেই নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রচারণায় বিরামহীন সময় কাটাচ্ছেন কামরান।

 

কামরান বলছেন, প্রচারণার জন্য যেখানেই যাচ্ছেন, সেখানেই তার পক্ষে গণজোয়ার দেখতে পাচ্ছেন। এই গণজোয়ারই বিজয়ের মঞ্চে নিয়ে যাবে বলে মনে করছেন কামরান।

 

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য বদর উদ্দিন আহমদ কামরান সিলেটভিউকে বলেন, ‘প্রচার প্রচারণা শুরুর পর থেকে সারা সিলেটে নৌকা প্রতীকের পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। মানুষ নৌকা প্রতীকে ভোট দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। সবমিলিয়ে একটি অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সকল প্রার্থীরা প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। আমরা দৃঢ়ভাবে আশাবাদী, উৎসবমূখর পরিবেশে মধ্য দিয়ে একটি শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। যেখানে নৌকা বিজয়ী হবে।’

 

এদিকে, মেয়র পদে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য আরিফুল হক চৌধুরীর এটি টানা দ্বিতীয়বার নির্বাচন। গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতা কামরানকে বড় ব্যবধানে পরাজিত করে সিসিকের মেয়র হয়েছিলেন আরিফ। এবারও একই লক্ষ্যে নগর চষে বেড়াচ্ছেন তিনি। দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে প্রচারণায় পার করছেন ব্যস্ত সময়। টানা দ্বিতীয়বারের মতো জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী আরিফ সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়েও শঙ্কা প্রকাশ করছেন।

 

মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি আরিফুল হক চৌধুরী সিলেটভিউকে বলেন, ‘নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে আমরা দৃঢ়ভাবে আশাবাদী। কিন্তু নির্বাচন নিয়ে সবার মধ্যে শঙ্কা রয়েছে। মানুষ সংশয়ে আছেন, ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার পরিবেশ থাকবে কিনা, ভোট দিলে ভোটের সঠিক মূল্যায়ন হবে কিনা। গাজীপুর ও খুলনার মতো ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের শঙ্কা রয়েছে। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ধানের শীষের বিজয় অবশ্যম্ভাবী।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.