গুলশান ট্র্যাজেডি : আটকের ২০দিন পর ছাড়া পেল সন্দেহভাজন রুমা

নরসিংদী প্রতিনিধি : রাজধানীর গুলশানের হলি আর্টিসানে জঙ্গি হামলার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আটক রুমা আক্তার (৩৫) ছাড়া পেয়েছে। জঙ্গি সংশ্লিষ্টার কোন প্রমান না পাওয়ায় গ্রেফতারের ২০ দিন পর মুক্তি পায় সে। শুধুমাত্র ঘুড়াঘুড়ি ও কৌতুহলের বশেই রুমা ওই এলাকায় অবস্থান করছিল বলে জানা গেছে। সিসিটিভির ফুটেজে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার সময় কাছাকাছি ঘোরাঘুরি করতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। এ কারণে ওই হামলায় সন্দেহভাজন হিসেবে পরে নরসিংদীর শিবপুর থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। ২০ দিন হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করে কোনো তথ্য না পাওয়ায় গত সোমবার বিকেলে রুমাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।
ছাড়া পাওয়া রুমা আক্তার শিবপুরের চরখুপী গ্রামে তার বড় বোন ফরিদা বেগমের বাড়িতেই থাকছেন। রুমা জানান, ’১৯ জুলাই রাতে পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে। প্রথমে তাকে গোয়েন্দা পুলিশ কার্য়ালয়ে নিয়ে অনেক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তারপর তাকে র‌্যাব তাকে জিজ্ঞাসাবাদকরার জন্য নিয়ে যায়। ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদেতার ওই হামলঅর সাথে জড়িত থাকার মতো কোন ধরনরে তথ্য পায়নি তারা।
রুমা আক্তারের বড় বোন সাবিনা আক্তার বলেন, ‘ঢাকা থেকে ডিবির এক লেঅক আমাকে ফোন দিয়ে বলে রুমাকে নিয়ে অঅসার জন্য। তারপর তাকে ঢাকা ধেকে নিয়ে আসি। আমার বোন একটু মানসিক ভারসম্যহীন। সে যে এই হামলঅর সাথে জড়িত নয় তা আমাদের বিশ্বাস ছিল।
উল্লেখ্য, গত ১৯ জুলাই তাকে গ্রেফতারের পর তার বড় বোন সাংবাদিকদের জানিয়েছিল রুমা মানসিক ভারসাম্যহীন। নে এই ঘটনার সাথে জড়িত থাকতে পারেনা।
রুমা আক্তারের দুই বিয়ে হলেও বর্তমানে তিনি স্বামী পরিত্যক্তা। তাঁর শ্রাবণ খাঁন নামে ১৫ বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। তাকে বাবার নিকট দিয়ে সে ঢাকার বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে গৃহ পরিচারিকার কাজ করে। গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর সে দুবাইতে গৃহপরিচারিকার ভিসায় গেলেও ৩ মাস পরে ফিরে আসে। ঘটনার দিন পর্যন্ত সে ঢাকার বাড্ডা নতুন বাজার এলাকায় ভাড়া বাড়িতে থাকতেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.