“গোয়ালন্দের ঘাটে এসে ইলিশ ধরা পড়ে শেষে”

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার, ০৮ অক্টো ২০২০ ০৯:১০

“গোয়ালন্দের ঘাটে এসে ইলিশ ধরা পড়ে শেষে”

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) :
কবির ভাষায় -“গোয়ালন্দের ঘাটে এসে, ইলিশ ধরা পড়ে শেষে “। তবে এবার ধরতে নয়,সংরক্ষণে কঠোর অবস্থান নিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।
গোয়ালন্দের ইউএনও মোঃ আমিনুল ইসলাম জেলেদের উদ্দেশ্যে বলেছেন,”মা ইলিশ রক্ষার জন্য আপনারা নিষিদ্ধকালীন ২২ দিন নদীতে যাবেন না। এই সময়ের জন্য সরকার আপনাদের প্রত্যেক পরিবারের জন্য ২০ কেজি করে চাল দেবে। এতেও যদি কোন পরিবারের না চলে তাহলে আমাকে জানাবেন। আমি ব্যক্তিগতভাবে আপনাদের জন্য সহায়তা করবো। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা অমান্য করলে আমরা কঠোর ব্যবস্থা নিতে দ্বিধা করবো না। মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার পদ্মানদী তীরবর্তী দৌলতদিয়া টার্মিনালে আয়োজিত এক জেলে সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।
স্থানীয় মৎস্য বিভাগ জানায়, গোয়ালন্দ উপজেলায় প্রায় সাড়ে ৪ হাজার জেলে রয়েছে। এদেরকে সচেতন করতে আগামী ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত প্রজননকালীন সময় নদীতে মা ইলিশ শিকার না করতে জেলেদের নিয়ে সভা-সমাবেশ করা হচ্ছে।
এর ধারাবাহিকতায় মা ইলিশ সংরক্ষণে মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার দৌলতদিয়া এলাকার সহ¯্রাধিক জেলের উপস্থিতিতে উপজেলা টাস্কফোর্স কমিটির সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়। দৌলতদিয়া ঘাট টার্মিনাল মাছ বাজার এলাকায় মৎস্যজীবিদের নিয়ে আয়োজিত সচেতনতামূলক সভার সভাপতিত্ব করেন উপজেলা টাস্কফোর্স কমিটির প্রধান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ আমিনুল ইসলাম। দৌলতদিয়া ঘাট সহ আশপাশ এলাকার জেলেদের নিয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চৌধুরী, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা রেজাউল শরীফ, দৌলতদিয়া নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মুন্নাফ আলী, দৌলতদিয়া বাজার ব্যবসায়ী পরিষদের সভাপতি মোহন মন্ডল, আওয়ামীলীগ নেতা তোফাজ্জল হোসেন তপু, ইউনিয়ন পরিষদের সকল সদস্য প্রমূখ।
উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা রেজাউল শরীফ বলেন, এবার উপযুক্ত সময়ে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। প্রতিটি মাছের পেটে ডিম এসে গেছে। দেশ ব্যাপী অভিযান সফল করা গেলে দেশবাসী সারা বছর ১ কেজি সাইজের ইলিশ সর্বোচ্চ ৪ শ টাকার মধ্যে খেতে পারবেন।
সভাপতির বক্তব্যে ইউএনও আমিনুল ইসলাম বলেন, মা ইলিশ রক্ষায় সবাইকে সর্তকতার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে। একই সাথে যে কোন মূল্যে ইলিশ রক্ষা অভিযান সফল করতে হবে। এ জন্য টাস্কফোর্স কমিটি সর্বদা তৎপর থাকবেন। এ সময়কালীন আমরা জেলেদেরকে সরকারের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদান করবো। প্রয়োজন হলে ব্যক্তিগতভাবেও সহায়তা করবো।

এই সংবাদটি 1,229 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •