গ্যাস-বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন না করার দাবিতে রাস্তায় তারাপুরের জনতা

প্রকাশিত:সোমবার, ১৫ আগ ২০১৬ ১০:০৮

গ্যাস-বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন না করার দাবিতে রাস্তায় তারাপুরের জনতা

সিলেঠ প্রতিনিধি:
কথিত দানবীর রাগীব আলীর বিচার ও তারাপুর এলাকার বসতবাড়ির গ্যাস-বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন না করার দাবিতে রাস্তায় নেমে এসেছে জনতা। রবিবার সকাল থেকে নগরীর সুবিদবাজার, পাঠানটুলা ও মদিনামার্কেট পনিটুলা এলাকায় অবস্থান নিয়ে তারাপুরের লোকজন এ দাবি জানাচ্ছেন।

জেলা প্রশাসন তারাপুর মৌজায় বসবাসকারীদের ১৩ আগস্টের মধ্যে স্বেচ্ছায় বাসা-বাড়ি ছেড়ে যাওয়ার নোটিশ দিয়েছিল। বেধে দেয়া সময়ের মধ্যে চলে না গেলে গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্নের ঘোষণাও দেয় জেলা প্রশাসন। আজ থেকে জেলা প্রশাসন গ্যাস ও বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্নে নামতে পারে এমন আশঙ্কায় তারাপুর এলাকার লোকজন রাস্তায় নেমে আসে।

রাজপথে নেমে আসা লোকজনের দাবি- রাগীব আলী জালিয়াতির মাধ্যমে তারাপুর চা বাগান লিজ নিয়েছেন তা তাদের জানা ছিল না। রাষ্ট্রের সাথে রাগীব আলীর মামলা চলছে এ বিষয়েও সাধারণ মানুষ ওয়াকিবহাল ছিলেন না।

রাগীব আলী তার দালালদের মালিক সাজিয়ে তারাপুরের দেবোত্তর সম্পত্তি বিক্রি করেছেন এ বিষয়টিও তারা টের পাননি। তারা জালিয়াতির জন্য রাগীব আলীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। পাশাপাশি তারাপুর এলাকায় যারা দীর্ঘদিন থেকে বাসা-বাড়ি নির্মাণ করে আসেন তাদের বসতভিটার জায়গা দীর্ঘমেয়াদে বন্দোবস্ত দেয়ার দাবি জানান।

এদিকে, রবিবার সকাল থেকে নগরীর সুবিদবাজারে ৭নং ওয়ার্ডবাসীর ব্যানারে স্থানীয় কাউন্সিলর আফতাব হোসেন খানের নেতৃত্বে ওই এলাকার শত শত নারী-পুরুষ মাথায় সাদা কাপড় বেধে রাস্তার পাশে দাঁড়ান। তাদের হাতে থাকা প্লেকার্ডে লিখা ছিল ‘অসহায় পরিবারগুলো রক্ষায় সুপ্রিম কোর্টের সুদৃষ্টি চাই’। ‘রাগীব আলীর বিচার চাই, গ্যাস-বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্নকরণের সিদ্ধান্ত বন্ধ করুন’। ‘আমাদের শেষ সম্বল কেড়ে নেবেন না’।

৮নং ওয়ার্ডবাসীর ব্যানারে স্থানীয় কাউন্সিলর ইলিয়াছুর রহমান ইলিয়াছ ও সাবেক কাউন্সিলর জগদীশ চন্দ্র দাশের নেতৃত্বে পাঠানটুলা ও মদিনা মার্কেট পনিটুলায় তারাপুরের বাসিন্দারা রাস্তার পাশে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন। তারাও বসতভিটা রক্ষা এবং গ্যাস-বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন না করার দাবি জানাচ্ছেন।

এই সংবাদটি 1,227 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •