চিনির বদলে যা খেতে পারেন

প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় চিনি তো রাখছেন, কিন্তু জানেন কি এর ক্ষতিকর দিক? বেশি চিনি খেলে হৃদরোগ হওয়ার আশঙ্কা খুব প্রবল৷ শুধু যে খাবারে চিনি মেশালে বিপদ হয় এমন নয়, প্রক্রিয়াজাত খাবারও সমান বিপজ্জনক৷ কারণ তাতে অ্যাডেড সুগার থাকে, তা সে ব্রেকফাস্ট সিরিয়াল হোক কি পাউরুটি, প্যাকেটের ফলের রস হোক কি বিয়ার, সস, কেচাপ, কুকিস, ক্যান্ডি, মেয়োনিজ ও অন্যান্য স্যালাড ড্রেসিং, ঠান্ডা পানীয়৷

 

আরও পড়ুন: আপনার ডায়াবেটিস হয়েছে কিনা বুঝবেন যেভাবে

হিসেব বলছে, একটি ১২ আউন্সের ঠান্ডা পানীয়তে থাকে ৯ চামচের মতো চিনি৷ এক স্কুপ চকলেট আইসক্রিমে ৫ চামচ৷ এর সঙ্গে চা-কফিতে বা রান্নায় চিনি মেশালে তো হয়েই গেল৷ অতিরিক্ত চিনি খাওয়ার ফলে হৃদরোগের পাশাপাশি, ওবেসিটি, দাঁতের ক্ষয়, ডায়াবিটিস, এমনকি কিছু কিছু ক্যান্সারের প্রকোপও বাড়ে৷

 

চিনির বদলে যা খেতে পারেন:

 

চিনির বদলে খাবারে মেশান আখের গুড়, খেজুর গুড় বা ঝোলা গুড় কিংবা তাল পাটালি৷ ভিটামিন বি-৬, আয়রন, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম পাবে শরীর৷

 

গুড় ভালো না লাগলে আখের রস খেতে পারেন৷ ভিটামিন বি, সি, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাঙ্গানিজ ইত্যাদি খনিজের জোগান পাবেন৷

 

 

 

নারিকেলের দুধ ফুটিয়ে শুকিয়ে নিলে নিচে পড়ে থাকে নারিকেল চিনি৷ অ্যান্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে অসাধারণ৷ সঙ্গে ক্যালসিয়াম, জিঙ্ক, আয়রন, পটাশিয়াম ইত্যাদিও এতে আছে পর্যাপ্ত৷

 

 

 

দুপুরে বা রাত্রে খাওয়ার পর মিষ্টি খাওয়ার ইচ্ছে হলে, খান খেজুর৷ পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন বি-৬ পাবেন প্রচুর৷ কিসমিস বা অন্য শুকনো ফলও খেতে পারেন৷ খেতে পারেন বিভিন্ন টাটকা ফল৷

 

সাধারণ চিনির বদলে খেজুরের চিনি দিয়ে কেক বা পুডিং বানান৷ খেজুর বা তালের রস জ্বাল দিয়ে বানানো সিরাপও ব্যবহার করা যায়৷

 

 

 

পুডিং বা কাস্টার্ডে চিনির বদলে মেশান বিভিন্ন মিষ্টি ফল৷

 

 

 

আরও পড়ুন: পিরিয়ড অনিয়মিত হলে যা খাবেন

গ্রিন টিতে মেশান টাটকা মধু৷ চা-কফিতে ম্যাপ্ল সিরাপ৷ ক্যালোরি চিনির মতো অত বেশি নয়৷ উপরি পাওয়া অ্যান্টি অক্সিডেন্টের গুণাগুণ৷

 

কৃত্রিম চিনি বা অ্যাসপারটেম জাতীয় জিনিস ভুলেও খাবেন না৷ মিষ্টি না খেয়ে থাকতে না পারলে বরং মাঝেমধ্যে এক-আধ চামচ চিনিই খাবেন৷ না হলে বিপদ আরও বাড়বে৷

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *