ছাত্রলীগের নেতৃত্ব নির্বাচনে গুরুত্ব পাচ্ছে ঐতিহ্য

ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ২৯তম কেন্দ্রীয় সম্মেলন আগামী ১১ ও ১২ মে অনুষ্ঠিত হবে। কারা হচ্ছেন ঐতিহ্যবাহী এই সংগঠনটির নতুন কান্ডারি তা নিয়ে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা।

 

গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সংগঠনের সাংগঠনিক নেত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপে মেধাবীরাই আসছেন ছাত্রলীগের নেতৃত্বে। নতুন নেতৃত্বের ক্ষেত্রে গুরুত্ব পাচ্ছে পারিবারিক ঐতিহ্য, আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে বিশ্বাসী ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অনুসারী পরিবারের সন্তানরা।

 

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠ নেতাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

 

নেতাদের দাবি, নিকট অতীতের অন্তত তিনটি কমিটিতে ছাত্রলীগের নেতৃত্ব নিয়ে আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ে অসন্তোষ রয়েছে। বিয়ের তথ্য গোপন করে একজনকে বিগত দিনে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছিল। সেই অভিযোগ গড়ায় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার কাছে। বর্তমান কমিটির শীর্ষ পদে থাকা এক নেতার শেষদিন পর্যন্ত লিখিত বক্তব্য দেয়া সংগঠনের নেতৃত্বের জন্য বিব্রতকর।

 

নেতাদের দাবি অনুযায়ী বর্তমান কমিটির শীর্ষ পদের এক নেতার পারিবারিক পরিচয় নিয়ে অসন্তোষ রয়েছে আওয়ামী লীগসহ সহযোগী সংগঠনগুলোতে। এমনকি ছাত্রলীগের নেতাদের মধ্যেও এই নিয়ে চাপা ক্ষোভ রয়েছে। ছাত্রলীগের সাবেক এক নেতার অনুসারী হিসেবে আদর্শের কোনো স্তরেই পরীক্ষা না দিয়ে সরাসরি শীর্ষ পদ বাগিয়ে নিয়েছে রহস্যজনকভাবে।

 

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠ নেতাদের দেয়া তথ্য মতে, নানান কারণে আলোচিত-সমালোচিত ছাত্রলীগকে আবার সঠিক পথে ফেরাতে উদ্যোগী হয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। বৃহৎ রাজনৈতিক দলের ছাত্র সংগঠনটিকে সময় উপযোগী করতে শেখ হাসিনার এই উদ্যোগের সঙ্গে আছেন আওয়ামী লীগের কিছু নেতা; যারা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা।

 

তারা বলছেন, শেখ হাসিনা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ ছাত্রলীগকে একটি প্রকৃত রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠন এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শের বাহক হিসেবে তৈরি করবেন। তাদের প্রত্যাশা, উন্নয়নশীল বাংলাদেশে শেখ হাসিনার হাতে গড়া ছাত্রলীগের নতুন নেতৃত্ব হবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের নতুন ফেরিওয়ালা।

 

নেতারা জানান, এবার ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের ধারা অনুসারে ২৭ বছর বয়সীমা এবং প্রকৃত মেধাবী ছাত্রদের দিয়েই ছাত্রলীগের নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন করা হবে। আজ্ঞাবহ ও অযোগ্য নেতাদের দিয়ে ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা হয় এবং একটি গ্রুপ ছাত্রলীগের নেতাদের ব্যবহার করে নিজেদের বিত্ত-বৈভব তৈরি করে বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অবহিত করা হয়েছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.