জঙ্গী ছাড়া নিরাপরাধ মানুষ হয়রানি হচ্ছে না — তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার, ০৫ আগ ২০১৬ ০৩:০৮

Khulna pic 5-8-2016

শেখ হেদায়েতুল্লাহ ,বিভাগীয় প্রতিনিধি,খুলনা:
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, ’আগুন যুদ্ধে পরাজিতরাই সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালাচ্ছে। ১৯৭১ সালে যেমন পাকি¯তানিদের বিরুদ্ধে আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছিলাম তেমনিভাবে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সন্ত্রাসীদের মোকাবেলা করতে হবে। সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধে পক্ষ নিতে হবে, মাঝামাঝি থাকার কোন সুযোগ নেই।’
তিনি শুক্রবার নগরীর হোটেল সিটি ইন-এ জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস দমনে বাংলাদেশ বেতার আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, জঙ্গীদের আক্রমন কোন বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়, এটা পরিকল্পিত। সন্ত্রাসীরা কোন ধর্ম, সংবিধান, দেশ, সংস্কৃতি, আইন-কানুন মানে না। তারা আটশ বছরের বাংলার কৃষ্টি-কালচার, সংস্কৃতি, মানবতাবোধ, সম্প্রীতি, বন্ধন ইত্যাদি ধবংস করতে চায়। তারা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে একটি অন্যায় যুদ্ধ শুরু করেছে। তারা মুসলমানদের বিপদে ফেলছে, দেশকে বিপদে ফেলছে। জঙ্গীরা বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের মতো স্বঘোষিত খুনি। মন্ত্রী বলেন, জঙ্গীদের সাথে একাত্তুর ও পঁচাত্তুরের হত্যাকান্ড, ২১ আগস্ট, আগুন সন্ত্রাসীদের মিল রয়েছে। ৭৫-এর খুনিরা বাংলাদেশকে একটি সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র বানাতে চেয়েছিল, তেমনি জঙ্গীরা এদেশের স্বাধীনতা ও সংবিধান মানে না। এদেশে জঙ্গীদের বন্ধু আছে, মিত্র আছে। তিনি একটি দলের প্রধানের দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, ওনিই হচ্ছেন এ সিন্ডিকেটের প্রধান। শুধু জামায়াতই নয়, বিএনপিও এ দেশের গণতন্ত্র ও সংবিধানের জন্য হুমকি। তিনি বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে বলেন, অবস্থান পরিষ্কার না করলে আমরা তাদের সন্ত্রাসের তালিকায় রাখব।
সন্ত্রাস দমনের নামে বিরোধী দলকে দমন করা হচ্ছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, সরকার কোন রাজনৈতিক দলকে দমন করছে না। সন্ত্রাসী ঘটনায় যারা নিহত হয়েছে তারা বিএনপি বা এর অঙ্গসংগঠনের কোন লোক নয়। জঙ্গী ছাড়া কোন নিরাপরাধ মানুষকে হয়রানি করা হচ্ছে না। জাতীয় ঐক্য সংক্রাšত প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জঙ্গী ও তাদের দোসরদের বাদ দিয়ে ইতোমধ্যে সরকার, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, ছাত্র-শিক্ষক, সুশীল সমাজসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ সবাই আজ ঐক্যবদ্ধ। সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইন প্রণয়ন সম্পর্কিত অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, দেশে যে আইন আছে তাই যথেষ্ট। আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী চমৎকার কাজ করছেন। জঙ্গীদের রুখতে তিনি জনগণকে চোখ-কান খোলা রাখার পরামর্শ দেন। মন্ত্রী জনগণকে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর আস্থা রাখার আহবান জানিয়ে বলেন, সন্ত্রাস দমনে আমরা সফল হবো।
মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশ বেতার-এর মহাপরিচালক এ কে এম নেছার উদ্দিন ভূইয়া সভাপতিত্ব করেন। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য ও খুলনা মহানগর ও জেলা সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মুহাম্মদ মিজানুর রহমান, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মোঃ আবদুস সামাদ, কুয়েটের ভিসি প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর, কেএমপি কমিশনার নিবাস চন্দ্র মাঝি, খুলনা রেঞ্জ ডিআইজি এস এম মনির-উজ-জামান বিপিএম, খুলনা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান, পুলিশ সুপার নিজামুল হক মোলা, জাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ হোসেন এবং টাউন জামে মসজিদের খতিব ও জেলা ইমাম পরিষদের সভাপতি মাওলানা মোঃ সালেহ।
উলেখ্য, ঢাকার বাইরে এটিই প্রথম সন্ত্রাস বিরোধী মতবিনিময়সভা। বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতারসহ সকল বেসরকারি রেডিও ও কমিউনিটি রেডিও অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করে। সভায় সরকারি কর্মকর্তা, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, গণমাধ্যমকর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
পরে মন্ত্রী জাসদের স্থানীয় নেতাকর্মীদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ এবং বেলা দুইটায় বাংলাদেশ বেতার খুলনা আঞ্চলিক কেন্দ্র চত্ত্বরে নির্মাণাধীন বঙ্গবন্ধুর ভাষ্কর্য পরিদর্শন করেন।

এই সংবাদটি 1,225 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •