টরেন্টোর গাড়ি হামলাকারীর ফেসবুকে ‘রহস্যজনক’ বার্তা

কানাডায় পথচারীদের ওপর গাড়ি হামলাকারী অ্যালেক মিনাসিয়ান (২৫) টরোন্টোর উত্তরের শহরতলী রিচমন্ড হিলের অধিবাসী। তার ওই গাড়ি হামলায় ১০ জন নিহত ও ১৫ জন আহত হলেও এর আগে পুলিশের খাতায় কখনো তার নাম ওঠেনি। তবে কানাডার পুলিশ বলছে, হামলার ঠিক আগে অনলাইনে ‘রহস্যজনক’ কিছু বার্তা পোস্ট করেন তিনি।

 

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটির পুলিশ তার ওই পোস্ট থেকে ধারণা করছে ‘তিনি নারী বিদ্বেষী ছিলেন’। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে অপর এক হামলার জন্য দায়ী ব্যক্তির প্রশংসা করে বক্তব্যও দিয়েছেন অ্যালেক মিনাসিয়ান।

 

গাড়ি হামলাকারী অ্যালেক মিনাসিয়ানের সহপাঠীরা জানিয়েছেন, সে কম্পিউটারে খুব পারদর্শী। সে সামাজিকভাবে বিদঘুটে প্রকৃতির ছিল। তবে কোন উগ্রপন্থী আদর্শে বিশ্বাসী বলে তাকে মনে হয়নি।

 

 

 

স্কুলে তার সাবেক সহপাঠীরা জানিয়েছে, তিনি কারো সাথে মেলামেশা করতেন না। স্কুলে তিনি ‘বিশেষ সহায়তা দরকার’ এমন তালিকাভুক্ত ছিলেন। স্কুলে একা একা হেটে বেড়াতেন এবং স্কুলের ক্যাফেতেও একা বসেই খেতেন। তবে তিনি সহিংস ছিলেন না।

 

কেন তিনি হঠাৎ করে রাস্তার ধারে মানুষজনকে এভাবে গাড়ি দিয়ে হামলা চালালেন সেটি এখনো পরিষ্কার নয়। তবে পুলিশ বলছে, এটি দুর্ঘটনাবশত নয় বরং ইচ্ছে করেই যে কাজটি করেছেন।

 

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে বলা হচ্ছে, ২০১৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার কাছে ২২ বছর বয়সী এক তরুণের গুলিতে ছয়জন নিহত হওয়ার ঘটনাটি নিয়ে অনলাইনে আলাপ করেছেন অ্যালেক মিনাসিয়ান। পুরনো ফেসবুক পোস্টে তাকে বলা হয়েছে, ‘ইনভলান্টারি সেলিবেট’ যারা অনিচ্ছাকৃতভাবে বিয়ে অথবা অন্য কোনও ধরনের যৌন সম্পর্ক ত্যাগ করেছেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.