টাকা নয়, পেরেজের জন্যই রিয়াল ছেড়েছি: রোনালদো

২০০৯ সালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ছেড়ে রিয়াল মাদ্রিদে পাড়ি জমান ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। এরপর গত ৯ বছরে স্পেনের ঐতিহ্যবাহী এই ক্লাবটিকে দু’হাত ভরে দিয়েছেন পর্তুগিজ এই ফুটবলার। তবে গত ১০ জুলাই রিয়াল ছেড়ে রোনালদো নাম লেখান ইতালির শীর্ষ ক্লাব জুভেন্টাসে। ক্লাব ছাড়ার কারণ হিসেবে ওই সময় রোনালদোকেই দায়ী করেছে রিয়াল কর্তৃপক্ষ। এছাড়া সমর্থকদের কেউ কেউ বলেছেন, টাকার জন্যই হয়তো ক্লাব ছেড়ে গেছেন রোনালদো। তবে সম্প্রতি ফ্রান্স ফুটবলকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে রোনালদো জানালেন, টাকা বা অন্য কোনো কারণ নয়, ক্লাব সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজের জন্যই রিয়াল ছেড়েছেন ৩৩ বছর বয়সী এই ফুটবলার। এ নিয়ে রোনালদো বলেন, ক্লাবের পক্ষ থেকেই অবহেলাটা বুঝতে পারছিলাম। বিশেষ করে পেরেজের কাছ থেকে।

আমি বুঝতে পারছিলাম, তারা আর আমাকে চাচ্ছে না এখানে। প্রেসিডেন্টের কাছ থেকেও আগের মতো আচরণ পাইনি আমি। ভাবটা এমন ছিল যে আমাকে না হলেও হবে তাদের। আমি কী বুঝাতে চাচ্ছি, আশা করি বুঝতে পারছেন। এটাই আমাকে ক্লাব ছাড়ার ব্যাপারে ভাবিয়ে তুলেছিল। আমি খবরে দেখতাম, তারা বলে বেড়াচ্ছে আমি নাকি ক্লাব ছাড়তে চাই। আমার সবসময় মনে হতো প্রেসিডেন্ট আমাকে ধরে রাখবেন না। আমি টাকার জন্য ক্লাব ছাড়িনি। টাকা কামাতে চাইলে তো চীনেই যেতে পারতাম। তাহলে এখনের চেয়ে অন্তত পাঁচগুণ বেশি টাকা পেতাম। জুভেন্টাসেও আমি রিয়ালের মতোই টাকা পাচ্ছি। ব্যাপারটা কখনোই বেতন সংক্রান্ত ছিল না। পার্থক্যটা হচ্ছে, জুভেন্টাস আমাকে আসলেই চেয়েছে। আমাকে তারা সেটা দেখাতেও পেরেছে যে তারা আমাকে চায়। ২০০৯ সালে ৯০ মিলিয়ন ইউরোতে ম্যানচেস্টার ইউনাইটডে ছেড়ে স্পেনে পাড়ি জমানো রোনালদো রিয়াল মাদ্রিদকে জিতিয়েছেন ১৫টি শিরোপা। এর মধ্যে চারটি ইউয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ও দুটি স্প্যানিশ লা লিগা। ১০৫ মিলিয়ন ইউরোতে চার বছরের জন্য ইতালির শীর্ষ ক্লাব জুভেন্টাসের সঙ্গে চুক্তি হয় এই মহাতারকার। ইতালিয়ান সিরি আ’তে লীগের বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের হয়ে এখন পর্যন্ত ১০টি ম্যাচে মাঠে নেমেছেন রোনালদো। এর মধ্যে প্রতিপক্ষের জালে বল জড়িয়েছেন সাতবার। এই সময়ে ৪ গোলে অ্যাসিস্টও করেছেন। আর ম্যাচসেরা হয়েছেন মোট আটবার।