ঢাকার মঞ্চে পারস্যের মহাকবি শেখ সাদী

প্রকাশিত: ১:৫৫ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২২, ২০১৯

ঢাকার মঞ্চে পারস্যের মহাকবি শেখ সাদী

ঢাকার মঞ্চে আসছে নাট্যদল চন্দ্রকলা থিয়েটারের নতুন নাটক ‘শেখ সাদী’। পারস্যের মহাকবি শেখ সাদীর জীবন ও কাজ নিয়ে নাটকটি লেখা। লিখেছেন অপূর্ব কুমার কুণ্ডু। নির্দেশনা ও নামভূমিকায় একক অভিনয় করছেন এইচ আর অনিক। ২৯ আগস্ট বৃহস্পতিবার, সন্ধ্যায় নাটকটির প্রথম প্রদর্শনী হবে।

 

‘শেখ সাদী’ চন্দ্রকলা থিয়েটারের ১৮ তম মঞ্চ প্রযোজনা। পারস্যের মহাকবি শেখ সাদীর জীবন ও কর্ম আশ্রিত নাটক ‘শেখ সাদী’। নাট্যকর অপূর্ব কুমার কুণ্ডু জানান, নাটকটির কাহিনি এক ঐতিহাসিক মুহূর্তকে ঘিরে। দিল্লির যুবরাজ মুহম্মদ বুলবন তাঁর সময়কালে এক বিশ্ব কবি সম্মেলনের আয়োজন করেন, যেখানে মুখ্য কবি হিসেবে আমন্ত্রণ পান শেখ সাদী। শেখ সাদীর বন্ধু দিল্লির কবি আমির খসরু আমন্ত্রণপত্র লেখেন এবং শেখ সাদীর আসার বিষয়ে নিশ্চিত করতে আহ্বান জানান। সেবার রাষ্ট্রীয় সম্মান এবং বন্ধুর আহ্বানে উৎফুল্ল শেখ সাদী সম্মানিত এবং আনন্দে আপ্লুত হয়েছিলেন বটে, কিন্তু বার্ধক্যজনিত কারণে সে আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে দিল্লি আসতে পারেননি। অবশ্য সশরীরে না যাওয়ার আরেকটি কারণ ছিল। শেখ সাদী চেয়েছিলেন তাঁর জীবনের শেষ দিনগুলো কাটুক শিরাজি নগরীতে, যেখানে তাঁর জন্ম-শৈশব-কৈশোর ও যৌবনের বেড়ে ওঠা। ফলে শিরাজি ত্যাগ করে দিল্লির সে যাত্রায় শেখ সাদী না গেলেও শেখ সাদী তাঁর রচিত ‘গুলিস্তা’, ‘বুলিস্তা’সহ অন্যান্য রচিত গ্রন্থ তুলে দিয়েছিলেন শিরাজিতে অভ্যাগত দিল্লির রাষ্ট্রীয় অতিথিদের হাতে। ইতিহাসের এই সত্যকে ঘিরেই নাটকটি শুরু হয়।

 

নাটকের একটি দৃশ্যে দেখা যায়, মহাকবি শেখ সাদী তাঁর সৃজন সাহিত্যের সম্ভার নিয়ে দাঁড়িয়ে শিরাজির নিজ ঘরে, পারস্য থেকে দিল্লিগামী মুসাফিরদের আসার অপেক্ষায়। দিল্লি যুবরাজ মুহম্মদ বুলবন, কবি বন্ধুবর আমির খসরুর আমন্ত্রণের প্রতিদান হিসেবে মুসাফিরদের হাতে তুলে দিলেন সাহিত্য সমগ্র। ভোরের আলো ফোটার মাহেন্দ্রক্ষণের মধ্যবর্তী অপেক্ষমাণ শেখ সাদীর সময়টুকু নিয়েই নাটক ‘শেখ সাদী’। এর মধ্যে নানা কথনে জানা যায় পোশাকের পকেটে খাবার রাখার বহুল প্রচলিত কাহিনির পাশাপাশি পারস্যের কবি রুদকি, ফেরদৌসী, জালাল উদ্দীন রুমি, ওমর খৈয়ামসহ পূর্বসূরি ও সমসাময়িক সাহিত্যিকদের সমান্তরাল পথচলা, যাপিত জীবনকে তুলে ধরার ঘটনাও। শেখ সাদীর আত্মোপলব্ধির নাটক শেখ সাদী।

 

নাটকের একক অভিনেতা এইচ আর অনিক বলেন, ‘নাট্যকার অপূর্ব কুমার কুন্ডু “মাইকেল মধুসূদন”, “হেলেন কেলার” নাটক লেখার সুবাদে ইতিমধ্যেই জীবন আশ্রিত নাটক রচনায় সফল। উপরন্তু “শেখ সাদী” নাটকটি তিনি ঢাকার ইরানিয়ান কালচারাল সেন্টারের রিভিউ কমিটিকে দেখিয়ে এবং সহায়ক পরামর্শ পেয়ে আপ্লুত। আমি ও আমার দলীয় কর্মী নিয়ে ইতিমধ্যেই দিল্লির যেসব স্থানে শেখ সাদী ভ্রমণ করেছেন সেসব স্থানে গিয়ে গবেষণ করে সমৃদ্ধ হয়েছি। পাশাপাশি আমি কলকাতায় নাট্যকার মনোজ মিত্রের কাছ থেকে মঞ্চ নির্দেশনা এবং অভিনেতা ও নির্দেশক গৌতম হালদারের কাছ থেকে অভিনয় নির্দেশনা নিয়েছি, যা সামগ্রিক ভাবে প্রযোজনার মান উন্নয়নে সহায়তা হবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।’

 

জানা গেছে, নাটকটির প্রযোজনা সহযোগী ঢাকার ইরানিয়ান কালচারাল সেন্টার। ইরানিয়ান কালচারাল সেন্টারের তত্ত্বাবধানে ইরানের ফজর থিয়েটার ফেস্টিভ্যালে ‘শেখ সাদী’ নাটকটি অংশগ্রহণ করবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •