ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ছাত্রী

প্রকাশিত: ৫:২২ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৬, ২০১৯

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ছাত্রী

বাংলার ইতিহাসে প্রথম মহিলা কলেজ হচ্ছে ‘বেথুন কলেজ’। সেই প্রতিষ্ঠান থেকে বিএ পরীক্ষা দিয়ে প্রথম হয়ে পেয়েছিলেন ‘পদ্মাবতী স্বর্ণ পদক’। তারপর ইংরেজিতে এমএ পড়তে ভর্তি হলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। প্রাচ্যের অক্সফোর্ডখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়টিতে তখন ছেলের সঙ্গে মেয়েদের পড়ার কোনো ব্যবস্থা ছিল না। কিন্তু তার মেধার কথা বিবেচনা করে তৎকালীন উপাচার্য ড. হার্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার বিশেষ অনুমতি দিয়েছিলেন তাকে।

 

বলছিলাম লীলা রায়ের কথা। তিনি একজন বাঙালি সাংবাদিক, জনহিতৈষী এবং রাজনৈতিক আন্দোলনে সক্রিয় ব্যক্তি ছিলেন। তবে তার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য পরিচয় তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ছাত্রী। ১৯২৩ সালে এমএ পাশ করেছিলেন তিনি। ছাত্রাবস্থায় বিপ্লবী কর্মকাণ্ড এবং নারী আন্দোলনে যুক্ত হয়ে পড়েছিলেন। নারীশিক্ষা প্রসারের উদ্দেশ্যে ১৯২৩ সালে গড়ে তুলেছিলেন দীপালি সংঘ। এই সংগঠনের উদ্যোগে বেশ কিছু মেয়েদের স্কুল গড়ে ওঠে। মুসলিম নারীদের শিক্ষাতেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন।

 

নারী আত্মরক্ষা ফান্ড গঠন করেন লীলা রায়। সেখানে মেয়েদের মার্শাল আর্ট এবং শরীরচর্চার প্রশিক্ষণ দেয়া হতো। তার পরিকল্পনায় ‘ছাত্রীভবন’ নামে একটি ছাত্রী-আবাসিক চালু হয় কলকাতায়। লবণ সত্যাগ্রহের সময়ে গড়ে তোলেন ঢাকা মহিলা সত্যাগ্রহ কমিটি। ঢাকা শহর এবং জেলায় জেলায় ঘুরে তিনি লবণ আইন ভঙ্গ করেন। তার সম্পাদিত ‘জয়শ্রী’ পত্রিকা হয়ে উঠেছিল নারী আন্দোলনের এক গুরুত্বপূর্ণ মুখপত্র।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •