পুলিশের কাছে করোনা রোগীদের তথ্য!

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার, ০৭ জানু ২০২১ ০৯:০১

পুলিশের কাছে করোনা রোগীদের তথ্য!

নিউজ ডেস্ক, নিউইয়র্ক: অপরাধী ধরতে করোনা আক্রান্তদের তথ্য ব্যবহার করছে পুলিশ – এমন অভিযোগের দায় স্বীকার করলো সিঙ্গাপুর সরকার। গত বছরের শুরুতে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারকে সহায়তার উদ্দেশ্যে ‘ট্রেস টুগেদার’ নামের অ্যাপটি ডাউনলোড করেন সবাই। দেশটির শতকরা ৮০ ভাগ জনগণ এই অ্যাপ ব্যবহার করছেন। অ্যাপে দেয়া ব্যক্তিগত তথ্য অনুযায়ী দেশটিতে করোনা আক্রান্ত ও তাদের সংস্পর্শে আসা লোকজনের তথ্য সংগ্রহ করছে সরকার। কিন্তু সম্প্রতি একটি তদন্তের কাজে পুলিশ এই অ্যাপর তথ্য ব্যবহার করেছে বলে অভিযোগ ওঠে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়, এর আগে এই অ্যাপ ব্যবহার করে পুলিশ জনগণের ওপর নজরদারি করছে এমন অভিযোগ তোলে বেশ কিছু সংগঠন। তবে আগেরবার দেশটির সরকারি কর্মকর্তারা এসব অভিযোগকে মিথ্যা গুজব বলে উড়িয়ে দিলেও এবার একটি হত্যাকাণ্ডের তদন্তের সময় অভিযোগের আংশিক সত্যতা প্রমাণ পাওয়া গেছে। যদিও পুলিশের দাবি তাঁরা কেবল ‘ঐ হত্যা মামলার আসামীর তথ্য’ই সরকারের কাছ থেকে সংগ্রহ করেছে। এছাড়া বাকিদের সব তথ্য সংরক্ষিত আছে।

এদিকে সোমবার দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ডেসমন্ড ট্যান জানান, এখন থেকে পুলিশ চাইলে সরকারের ডাটাবেজ থেকে তদন্তের স্বার্থে কিছু তথ্য সংগ্রহ করতে পারবে। যদিও আগে অ্যাপে নিবন্ধনের সময় সরকারের পক্ষ থেকে সকলের তথ্যের নিরাপত্তা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল। কিন্তু সোমবার পার্লামেন্টে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এ বক্তব্যের পর অ্যাপের নীতিমালাও পরিবর্তন হয়ে যায়। ‘ট্রেস টুগেদার’ এর নতুন আপডেটে বলা হয়, “বিচারকার্য পরিচালনায় ও অপরাধ দমনে প্রয়োজনে সরকার এই অ্যাপের তথ্য ব্যবহার করবে। তবে এটি জনগণকে নিরাপত্তা দিতেই ব্যবহার করা হবে।”

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ডেসমন্ড ট্যান বলেন, “সিঙ্গাপুরের অপরাধ দমন আইন অনুযায়ী পুলিশ চাইলে সরকারের কাছে থেকে যেকোন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের তথ্য সংগ্রহ করতে পারে। তাই বিশেষ প্রয়োজনে ট্রেস টুগেদার অ্যাপের তথ্যও ব্যবহারের এখতিয়ার রাখে পুলিশ।”

অন্যদিকে অ্যাপের তথ্য পাচার নিয়ে সংশয় দেখা দিলে মঙ্গলবার বিশেষ বিবৃতি দিয়ে জনগণকে আশ্বস্ত করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভিভিয়ান বালাকৃষ্ণা। তিনি বলেন, “পুলিশ ‘কেবলমাত্র চাঞ্চল্যকর মামলার অপরাধীকে ধরতে’ তাঁর অবস্থানের তথ্য ব্যবহার করবে। কারো ব্যাংক হিসাব বা মোবাইল ফোনের কল রেকর্ড বা ব্যক্তিগত কোন তথ্য শেয়ার করা হবে না।” এসময় দাবীকৃত হত্যাকাণ্ডের তদন্তে আসামীর অবস্থানের তথ্য পুলিশকে দেয়ার কথাও স্বীকার করেন তিনি।

এই সংবাদটি 1,229 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •