পোরশায় পটল ক্ষেতে পচন

প্রকাশিত:রবিবার, ২৭ সেপ্টে ২০২০ ০৯:০৯

পোরশায় পটল ক্ষেতে পচন

পোরশা (নওগাঁ) :
নওগাঁর পোরশায় সবজী চাষী কৃষকদের পটল ক্ষেতে ব্যাপক হারে পচন লেগে গাছ মরে যাচ্ছে। এতে প্রান্তিক সবজী চাষী কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। পটল বিক্রি করে তাদের খরচ উঠবে কি না এ নিয়ে তারা চিন্তিত। কোন কীটনাশক প্রয়োগ করে কাজ হচ্ছেনা বলে তারা জানান। সরজমিনে উপজেলার নিতপুর খোর্দগানইর গ্রামে মোস্তাকিম নামে এক প্রান্তিক কৃষকের পটল বাগানে গিয়ে দেখা গেছে গাছে পটল ধরে থাকলেও সমস্ত গাছ মরে গেছে। প্রথম অবস্থায় গাছের মাঝে পচন ধরে গোটা গাছ হলুদ রং ধারন করে মরে যাচ্ছে। মোস্তাকিমের পটল বাগানে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর পোরশার দেয়া “জৈব কৃষি ও জৈবিক বালাই ব্যবস্থাপনা প্রদর্শনী” লেখা একটি সাইন বোর্ড আছে তার পরেও দেখা মিলছেনা কতৃপক্ষের। প্রান্তিক কৃষক মোস্তাকিম জানান, কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর পোরশার সহযোগীতায় কয়েকমাস পূর্বে তার ব্যক্তি মালিকানাধীন ২০শতাংশ জমির উপর পটল গাছ লাগালেও তারা আমাকে কোন সহযোগীতা করেনি। পটল গাছ লাগানোর সময় ২ হাজার টাকা দিয়েছে বলে তিনি জানান। তবে এপর্যন্ত তার ৩০-৩৫ হাজার টাকা খরচ হলেও তিনি মাত্র কয়েক হাজার টাকার পটল বিক্রি করেছেন। হঠাৎ করে পটল গাছে পচন লেগে গাছ মরে যাওয়ায় তিনি দিশেহারা হয়ে পড়েছেন বলে জানান। এব্যাপারে তিনি কৃষি কর্মকর্তাদের বলেও কোন লাভ হয়নি বলে জানান। তবে পটল গাছ লাগিয়ে এতে তার লাভ না হয়ে ক্ষতি হলো বলে তিনি জানান। একই গ্রামের কৃষক নুরনবী ও আফাজ উদ্দিন একই কথা জানান। পচনে তাদের পটল গাছ মরে যাওয়ায় তারাও ৩-৫কাঠা জমিতে পটল আবাদ করে লাভ না হয়ে ক্ষতি হয়েছে বলে জানান। এবিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাহফুজ আলমের সাথে কথা বললে তিনি উপজেলায় মাত্র দুটি “জৈব কৃষি ও জৈবিক বালাই ব্যবস্থাপনা প্রদর্শনী” আছে বলে জানান। এসময় তিনি মোস্তাকিমের পটল বাগান দেখতে যাননি বলে স্বীকার করেন। তবে তিনি আফাজ উদ্দিনের পটল বাগান দেখেছেন এবং আফাজ উদ্দিন তার পটল বাগানের আশা ছেড়ে দিয়েছেন বলে জানান। গাছে পচন লাগার ব্যাপারে তিনি অতীরিক্ত বৃষ্টিই কারন বলে জানান এবং পটলের সময় শেষে হওয়ার কারনে তারা কোন ব্যব্সথা নিচ্ছেনা বলে জানান।

এই সংবাদটি 1,229 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •