প্রাথমিক শিক্ষকদের হতাশা দূর করে দিন মানসম্মত শিক্ষা নিন

প্রকাশিত:সোমবার, ২০ জুলা ২০২০ ০১:০৭

ফারজানা আক্তার
সহকারী শিক্ষক,বাশঁখালী,চট্টগ্রাম।
সরকারি যে কোন নির্দেশনা আর নিয়মবিধির প্রতি আমার যথেষ্ট সম্মান আছে।
১৩ তম গ্রেড নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ধ্রুমজাল।কে পাবে কে পাবে না?? পেলেও কি উচ্চধাপ না নিম্নধাপ??? সামনে আগাবো কি করে?? ১৩ তম গ্রেড কি অনেক বড় গ্রেড??? এটা কি আমাদের আর্থ সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধি করে?? শিক্ষক শ্রেণীর কোন শ্রেণীতে পড়ি?? মাধ্যমিক,কলেজ,বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা কর্মরত তারা শিক্ষক।আমরাও শিক্ষক।শিক্ষকে শিক্ষকে এত ভেদাভেদ কেনো?? তাদের কাজ আমাদের কাজ কি এক না??আমাদের কাজটা আরো বেশি কষ্টের!!! একই কাজ কষ্টের কাজের কোন মূল্যায়ন নেই কেন?? কেউ ব্যাংকার নন ক্যাডারের সাথে তুলনা করে!!!
আশ্চর্য!! এরা আমাদের হাতে গড়া।বাংলাদেশের সব পেশাজীবী মানুষ আমাদের হাতে গড়া।শিক্ষার অন্য স্তরে পড়ুক আর না পড়ুক আমাদের কাছে তার হাতের দস্তখত হয়।তবে আমাদের কোন এত নিচে করে রাখা হয়েছে??
নিয়ম হল শিক্ষা বিষয়ে লেখাপড়া করে শিক্ষক হবে।অভিজ্ঞতা আর পরীক্ষা দিয়ে এ বিভাগের প্রশাসক হবে।নন ক্যাডার থেকে হেড মাস্টার নেওয়ার কোন প্রয়োজন দেখি না।এখানে অনেক ভাল ভাল মেধাবী ছাত্র আছে।তারা এক্সাম দিয়ে ৩৫% এ প্রধান শিক্ষক হতে পারে।এখানে হেড মাস্টারের কাজটা এত সহজ না।নতুন হেড মাস্টার নন ক্যাডার থেকে এসে তাকে সহকারী শিক্ষকদের কাছ থেকে ক্রমে সব শিখতে হয়।তারপর প্রশিক্ষণ নিয়ে দক্ষ হয়।উল্টা পথে আমরা কি হাটঁছি না?দক্ষ অনেক লোক আছে।ডিপার্টমেন্টাল এক্সাম দিয়ে দক্ষ লোকগুলোকে প্রশাসক বানান।এত বছর চাকরি করার পর,,সেবা দেওয়ার পর,যোগ্যতা থাকার পর তাকে পদোন্নতির সুযোগ না দিয়ে বাইরে থেকে একজনকে সুযোগ দিচ্ছেন।এখন সময় যারা শিক্ষকতা পেশায় আসবেন তাদের জন্য শিক্ষা বিষয়ক ডিগ্রী বাধ্যবাধকতা করা উচিত।এক্সামে যারা ভাল করবে তাদের শিক্ষক বানানো হোক।তাই শিক্ষকদের ক্যাডার আলাদা হওয়া উচিত।ফিল্ড পর্যায়ে কাজ করার পর এখান থেকে প্রশাসক, নীতি নির্ধারক হবে।দেখবেন শিক্ষার সকল কার্যক্রম শিক্ষার্থীবান্ধব হচ্ছে।কারণ সে জানে প্রান্তিক যোগ্যতা,শিখন শেখানে কার্যক্রম।শিক্ষা ক্ষেত্রের এ হ য ব র ল অবস্থা বন্ধ করুন।
সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার,উপজেলা শিক্ষয় অফিসারে শিক্ষকদের পূর্বের বিভাগীয় কোটা দিন।কেন সে অন্যান্য বিভাগের মত এক্সাম দেওয়ার সুযোগ পাবে না?? এ শিক্ষকদের কোন যোগ্যতা নেয়?? শিক্ষকদের বিভাগীয় প্রার্থীতা বহাল রাখুন।এমন দমিয়ে ফেলার নীতি কি মানসম্মত শিক্ষাকে অর্জন করতে পারবে??
আমরা সকল শিক্ষকের মত সমান মর্যাদা চাই।শিক্ষক নামের পদটাও সৃষ্টি করা দরকার।কোন দিন শিক্ষক হতে পারব না এ কেমন কথা????শিক্ষক পোস্ট সৃষ্টি করা দরকার।এত কষ্ট করে ডিপিএড করবে শিক্ষকরা এর মান থাকবে না এ কেমন কথা?? ডিপ্লোমার মান চায় আমরা।১.৫ বছরের ডিপ্লোমার সাথে এমএড দিয়ে অন্য ডিপ্লোমার সমমান করে গ্রেড দিন।নয়তো ডিপিএডের বছর বাড়ান।আর এই ডিপিএড শিক্ষক হওয়ার আগে বাধ্যবাধকতা করুন।এখানে এই এক্সামে যারা ভাল করবে সেখান থেকে সেরাদের শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিন।চাকরি করে শিক্ষক হওয়ার চেয়ে শিক্ষক হয়ে আসাটাই উত্তম।এ এক মহৎ সেবা।তাই মহৎ সেবার জন্য উত্তম গ্রেড,সুযোগ সুবিধার পথ তৈরি করা সময়ের দাবী।
উচ্চতর গ্রেড চালু করা দরকার।প্রমোশন না হলে ও উচ্চতর গ্রেড তার প্রশান্তির কারণ হতে পারবে।।
অন্য সেক্টর এ নীতি নির্ধারণ করে বলে আজ এ অবস্থা।আমর নিজস্ব নীতি নির্ধারক চাই।

এই সংবাদটি 1,387 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •