ফাইনালে মাঠে থাকবে ৪৫ লাখ ক্রোয়েশিয়ান খেলোয়াড়!

১৯৯৮ সালে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলতে এসেই সবাইকে চমকে দিয়েছিল ক্রোয়েশিয়া। বিশ্বের বাঘা বাঘা দলগুলোকে পেছনে ফেলে জিতেছিল তৃতীয় সেরার পুরষ্কার। সেই ক্রোয়েশিয়াই এবার নিজেদের পঞ্চম বিশ্বকাপে এসে পৌঁছে গিয়েছে বিশ্বকাপের ফাইনালে।

 

রোববার লুঝনিকি স্টেডিয়ামে ফাইনাল ম্যাচে খেলবে তারা ফ্রান্সের বিপক্ষে। মাত্র সাড়ে চার মিলিয়ন বা প্রায় ৪৫ লক্ষ মানুষের বসবাস ক্রোয়েশিয়ায়। বিশ্বকাপের ইতিহাসে এতো কম জনসংখ্যার কোন দেশ আগে কখনো ফাইনাল খেলেনি। ক্রোয়েশিয়ানরা প্রথমবারের মত গড়ল এই ইতিহাস।

 

 

 

নিজেদের দেশের সবচেয়ে বড় এই সাফল্যে আনন্দে উত্তাল পুরো ক্রোয়েশিয়া। ফাইনাল ম্যাচে মাঠের খেলায় মূলত ১১ জন খেললেও অদৃশ্য খেলোয়াড় হিসেবে ক্রোয়েশিয়ার সকল নাগরিকই লুঝনিকিতে উপস্থিত থাকবেন বলে মনে করেন ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার ইভান রাকিটিচ।

 

এই ম্যাচটি পুরো ক্রোয়াট জাতির জন্য ঐতিহাসিক উল্লেখ করে রাকিটিচ বলেন, ‘এই ম্যাচটি শুধুমাত্র মাঠে থাকা ১৪-১৫ জন খেলোয়াড়ের জন্য ঐতিহাসিক নয়। পুরো ক্রোয়াট জাতির জন্য এটি বিশেষ এক ম্যাচ। ফাইনাল ম্যাচের দিন মাঠে পুরো ৪৫ লক্ষ মানুষ থাকবে! সবাই নিজেদের মতো করে খেলবে এই ফাইনাল।’

 

এসময় নিজ দেশে ফুটবল উন্মাদনা সম্পর্কেও ধারণা দেন রাকিটিচ। লুঝনিকিতে যদি জায়গা দেয়া যেত তাহলে ৪৫ লক্ষ মানুষের সবাই রাশিয়ায় চলে আসতো বলে জানান বার্সেলোনার এই মিডফিল্ডার।

 

রাকিটিচ বলেন, ‘গত এক মাসে ক্রোয়েশিয়া থেকে আসা কিছু ভিডিও ফুটেজ দেখুন। তাহলেই বুঝবেন বিশ্বকাপ কতোটা ছুঁয়ে গেছে আমাদের মানুষদের। এটা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব না। সবার ঐক্যবদ্ধতা, একত্রে আনন্দে করা, সম্মান, গর্ব, অহংকার; এগুলো আসলে বর্ণনা করা সম্ভব না। স্টেডিয়ামে যদি জায়গা থাকতো তাহলে ৪৫ লক্ষ মানুষ দিয়ে এটি ভরা থাকতো।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.