বঙ্গবন্ধু-১ এর আওতায় থাকবে মুম্বাই থেকে মিন্দানাও

কারিগরি সমস্যার কারণে দেশের প্রথম স্যাটেলাইট ‘বঙ্গবন্ধু-১’ এর উৎক্ষেপণ স্থগিত করা হলেও আজ (শুক্রবার) ফ্লোরিডার স্থানীয় সময় ৪টা ২০ মিনিটে আবারও উৎক্ষেপণের প্রস্তুতি নিচ্ছে কেনেডির স্পেস সেন্টার। সব কিছু ঠিক থাকলে নির্দিষ্ট সময়েই ‘বঙ্গবন্ধু-১’ স্যাটেলাইট বহনকারী রকেটটি উৎক্ষেপণ করা হবে।

 

বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটটি মহাকাশে ১১৯.১ পূর্ব দ্রাঘিমাংশের কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করবে। ২০১৫ সালের ১৫ জানুয়ারি রাশিয়ান ইন্টারস্পুটনিকের আওতাধীন কক্ষপথটি (অরবিটাল স্লট) ভাড়া নেয়ার বিষয়ে রাশিয়ার সাথে চুক্তি করে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। ১৫ বছরের জন্য রাশিয়ার কাছ থেকে এ অরবিটাল স্লট ভাড়া নেয়ার পর ওই বছরই ‘বঙ্গবন্ধু-১’ উৎক্ষেপণে মূল পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক স্পেস পার্টনারশিপ ইন্টারন্যাশনাল (এসপিআই) কাজ শুরু করে।

 

 

 

থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেস সূত্রে জানা যায়, বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটটির জন্য কেনা কক্ষপথটি ১১৯.১ পূর্ব দ্রাঘিমাংশে হলেও বাংলাদেশের অবস্থান ৯০ ডিগ্রির আশপাশ ঘিরে। এ কারণে বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহের কভারেজ অঞ্চল হবে কিছুটা পূর্বমুখী। ফলে স্যাটেলাইটটির আওতায় থাকবে ভারতের মুম্বাই থেকে ফিলপিনের মিন্দানাও দ্বীপ পর্যন্ত।

 

বঙ্গোপসাগরের পুরো এলাকাসহ এ সীমানার ভেতরে থাকবে ভারত, নেপাল, ভুটান, মিয়ানমার, শ্রীলঙ্কা, ইন্দোনেশিয়ায় ও ফিলিপাইনের বিস্তির্ণ এলাকা। এছাড়া তুর্কিমেনিস্থান ও কাজাখাস্থানের কিছু অংশও বঙ্গবন্ধু-১ এর কভারেজ অঞ্চল হিসেবে পরিগণিত হবে। এসব এলাকায় বঙ্গবন্ধু-১ ‘কিউ-ব্যান্ড’ কভারেজ এবং ‘সি-ব্যান্ড’ সুবিধা প্রদান করবে।

 

ব্যবসায়িক কারণে স্যাটেলাইটটি পূর্বমুখী অবস্থানের স্লট কেনা হয়েছে বলা হলেও একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জাগো নিউজকে জানায়, বাংলাদেশের অবস্থানকে ঘিরে কোনো স্লট খালি না থাকায় পূর্ব দিকে সরে গিয়ে রাশিয়ার কাছ থেকে স্লটটি নেয়া হয়। এছাড়া অবস্থানগত কারণে মধ্যপ্রাচ্য দেশগুলোর সাথে যোগাযোগে সমস্যা হলেও কোনো উপায়ও ছিল। কারণ, বাংলাদেশের পক্ষ থেকে স্লট নেয়ার প্রস্তাব করা হলে সে সময় বিভিন্ন দেশ থেকে আপত্তি তোলা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *