বন্যায় ২২০০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ

প্রকাশিত:বুধবার, ১০ আগ ২০১৬ ০৮:০৮

বন্যায় ২২০০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ

ডেস্ক নিউজ :
বন্যায় সারা দশেরে ২০টি জলোয় ২২০০-এর বশেি শক্ষিাপ্রতষ্ঠিান বন্ধ হয়ে গছে।ে প্রতদিনি নতুন নতুন এলাকা প্লাবতি হওয়ায় এই সংখ্যা আরো বাড়ছ।ে র্সবোচ্চ দড়ে মাস থকেে শুরু করে গলে এক সপ্তাহে বন্ধ থাকা এসব প্রতষ্ঠিানরে ক্ষয়ক্ষতরি পরমিাণ নর্ণিয় করতে শক্ষিা এবং প্রাথমকি ও গণশক্ষিা মন্ত্রণালয়রে তনি প্রতষ্ঠিান কাজ করছ।ে

এগুলো হচ্ছে মাধ্যমকি ও উচ্চ শক্ষিা অধদিপ্তর, প্রাথমকি ও গণশক্ষিা অধদিপ্তর এবং শক্ষিা প্রকৌশল অধদিপ্তর। ডপিইি’র মঙ্গলবাররে র্সবশষে তথ্যমত,ে শুধু প্রাথমকি স্কুলগুলোর প্রায় ১২ কোটি টাকা ক্ষতি হয়ছে।ে এটা দনি দনি বাড়ব।ে তবে বন্যা পরস্থিতিি উন্নতি হলে এই ক্ষতরি হার ধীরে ধীরে কমব।ে সংশ্লষ্টিদরে সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য জানা গছে।ে

জানা গছে,ে বন্যায় শক্ষিাপ্রতষ্ঠিানরে ক্ষয়ক্ষতি ও অন্যান্য বষিয়ে মনটিরংি করার জন্য আলাদা সলে গঠন করা হয়ছে।ে এই সলেগুলো বন্যা শষে হলে বন্যার সময় একাডমেকি, প্রশাসনকি ও অবকাঠামোর ক্ষয়ক্ষতরি রপর্িোট তরৈি করবনে। তাদরে রপর্িোটরে ভত্তিতিে সরকার পরর্বতী পদক্ষপে নবে।ে

জানা গছে,ে বন্ধ হয়ে যাওয়া শক্ষিা প্রতষ্ঠিানরে মধ্যে সরকারি প্রাথমকি বদ্যিালয় রয়ছেে ১ হাজার ৩শ’ আর নম্নি মাধ্যমকি, মাধ্যমকি স্কুল, কলজে ও মাদরাসার সংখ্যা প্রায় ১ হাজার। গতকাল র্পযন্ত প্রাথমকি শক্ষিা অধদিপ্তর (ডপিইি) এবং মাধ্যমকি ও উচ্চশক্ষিা অধদিপ্তররে (মাউশ)ি পরসিংখ্যানে এমন তথ্য জানা গছে।ে

এর মধ্যে কুড়গ্রিাম, রংপুর, লালমনরিহাট, নীলফামারী, গাইবান্ধা, শরেপুর, বগুড়া, সরিাজগঞ্জ, মাদারপিুর, টাঙ্গাইল, শরয়িতপুর, ফরদিপুর, রাজবাড়ী, মানকিগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ ও সুনামগঞ্জে পানতিে ডুবে যাওয়া সরকারি প্রাথমকি বদ্যিালয় ১ হাজার ৩০০টতিে প্রায় ১২ কোটি টাকা ক্ষয়ক্ষতি হয়ছে।ে এর মধ্যে জামালপুরে সবচয়েে বশেি ২২৮ট,ি টাঙ্গাইলে ১৪৭ট,ি কুড়গ্রিামে ১০০ট,ি মানকিগঞ্জে ৯০টি এবং সরিাজগঞ্জে ১৬০টি শক্ষিাপ্রতষ্ঠিান বন্ধ রয়ছে।ে সগেুলোতে প্রায় ১০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়ছে।ে বন্যার পানতিে ডুবে যাওয়ায় এসব শক্ষিা প্রতষ্ঠিানে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ হয়ে গছে।ে র্বতমানে প্রাথমকি বদ্যিালয়গুলোতে দ্বতিীয় সাময়কি পরীক্ষা চলার কথা থাকলওে তা সম্ভব হচ্ছে না।

এই সংবাদটি 1,226 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •