Sat. Jan 25th, 2020

BANGLANEWSUS.COM

-ONLINE PORTAL

বৃষ্টিতে আমন চাষির মুখে হাসি

1 min read

আষাঢ়ের শেষ প্রান্তে এসে সারাদেশের মতো খুলনায়ও ভারী বৃষ্টি হয়েছে। এতে আমন চাষীদের মুখে হাসি ফুটেছে। দুইদিনের বৃষ্টিতে কিছুটা হলেও আমন জমিতে অনেক লাভ হয়েছে। বৃষ্টি না হলে আমন আবাদে প্রভাব পড়বে।

 

বাংলাদেশ আবহাওয়া অফিস জানায়, শুক্রবার খুলনায় ৫৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয় এবং শনিবার রাত ৯টা পর্যন্ত বৃষ্টি হয়েছে ৫৩ মিলিমিটার। জুন মাসে খুলনায় ২৬৪ মি.মি. বৃষ্টিপাত হয়েছিলো। এ বছর জুনে খুলনায় বৃষ্টিপাত হয়েছে ১১৫ মি.মি.। আর ২৮ আষাঢ় পর্যন্ত খুলনায় বৃষ্টিপাত হয়েছে মাত্র ১৫৭ মি.মি.। যা আগের বছরের তুলনায় অনেক কম।

 

 

 

কৃষকরা জানান, আমন ধানের চাষ পুরোটাই নির্ভর করে বৃষ্টির ওপর। মধ্য আষাঢ় থেকে বীজতলা প্রস্তুতের কাজ শুরু করেন তারা। কোথাও কোথাও আষাঢ়ের শুরু থেকেই বীজতলার কাজ শুরু হয়ে যায়। মাস খানেক পর বীজতলা থেকে চারা তুলে জমিতে লাগানো হয়। এই প্রক্রিয়াও চলে প্রায় এক মাস ধরে।

 

তারা আরো জানান, জুলাইয়ের প্রথম থেকে দেশের অন্যান্য বিভাগে বৃষ্টিতে বন্যা হলেও খুলনায় তেমন বৃষ্টির দেখা মেলেনি। অবশেষে শেষ আষাঢ়ে এসে দুইদিন মুষলধারায় বৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টি না হলে কৃষকদের অসুবিধায় পড়তে হতো।

 

ডুমুরিয়ার শোভনা এলাকার কৃষক কামাল হোসেন বলেন, বৃষ্টির পানি না পেলে ধান গাছের গোড়া মোটা হয় না। শুক্রবার বৃষ্টি হওয়ায় শনিবারে গাছের চেহারা সুন্দর হয়েছে। আবার শনিবার বৃষ্টি হয়ে আমাদের মন জুড়িয়ে গেছে। আমনের বীজতলা করতে সুবিধা হয়েছে।

 

খুলনা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক পঙ্কজ কান্তি মজুমদার বলেন, খুলনায় আরো আগে বৃষ্টির প্রয়োজন ছিলো।  এ বৃষ্টি চলমান থাকলে আমনের জন্য ভাল হবে।

 

 

 

খুলনা আঞ্চলিক আবহাওয়া অফিসের সিনিয়র আবহাওয়াবিদ আমিরুল আজাদ বলেন, শুক্রবার থেকে খুলনায় বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে আগামী কয়েকদিন এ ধারা অব্যহত থাকবে।

Copyright © Banglanewsus.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.