বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ ! বন্ধের ৫২দিন পর আবারো বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু

কয়লার অভাবে বন্ধ হয়ে যাওয়া দেশের একমাত্র কয়লা ভিক্তিক দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে আবারও উৎপাদন শুরু হয়েছে।
প্রায় এক মাস ২২দিন বন্ধ থাকার পর গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে উৎপাদন শুরু হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ম্যানেজার (উৎপাদন) প্রকৌশলী মাহাবুবুর রহমান।

গত ২২ জুলাই কয়লা সংকটের কারনে বন্ধ হয়ে যায় বড়পুকুরিয়া ৫২৫ মেগওয়াট তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি। এতে বিদ্যুৎ সংকটে পড়ে দিনাজপুরসহ রংপুর বিভাগের আট জেলা। আর ভোগান্তিতে পড়ে সাধারন মানুষ।

গতকাল বৃহস্পতিবার বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ম্যানেজার (উৎপাদন) প্রকৌশলী মাহাবুবুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায় বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ষ্টিমে আগুন দেয়া হয়েছে। বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়ে জাতীয় গ্রীডে যোগ হতে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১০টা বাজবে এমনটাই জানিয়েছে তাপবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ।

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফজলুর রহমান জানান, প্রতিদিন দেড় হাজার থেকে দুই হাজার টন কয়লা উত্তোলন হচ্ছে। উত্তোলিত কয়লা খনির ইয়ার্ডে না রেখে প্রতিনিয়তই তা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে সরবরাহ করা হচ্ছে। গত ৮ সেপ্টেম্বর থেকে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে কয়লা উৎপাদন শুরু হওয়ায় কয়েক দিনের কয়লা মজুদ করে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির ২৭৫ মেগওয়াটের একটি ইউনিটে উৎপাদন শুরু করা হয়েছে।
তিনি আরও জানায় কিছুদিনের মধ্যে কয়লা উৎপাদনের পরিমান আরও বাড়বে।

উল্লেখ্য কয়লা সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি কর্তৃপক্ষ কয়লা সরবরাহ করতে না পারায় গত ২২ জুলাই রাত সাড়ে ১১টায় তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি বন্ধ হয়ে যায়। এতে করে বিদুৎ সংকটে পড়ে দিনাজপুরসহ দেশের উত্তারাঞ্চরের আট জেলা।
এদিকে, কয়লা সরবরাহ বৃদ্ধি হলে পর্যায়ক্রমে ১২৫ মেগওয়াট করে ২৫০ মেগওয়াটের বাকি দুটি ইউনিটও চালু করা হবে বলে বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ জানায়।