ভারত সীমান্তে আটক ১৫ শিক্ষার্থীকে ৫৪ ধারায় আদালতে প্রেরণ

প্রকাশিত:শুক্রবার, ০৫ আগ ২০১৬ ০১:০৮

ভারত সীমান্তে আটক ১৫ শিক্ষার্থীকে ৫৪ ধারায় আদালতে প্রেরণ

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি: গতকাল বৃহস্পতিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার কাশিনগর সীমান্ত এলাকা থেকে বিজিবি’র হাতে আটককৃত বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৫ শিক্ষার্থীকে ৫৪ ধারায় আদালতে প্রেরণ করেছে বিজয়নগর থানা পুলিশ। আজ শুক্রবার দুপুরে করা নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যদিয়ে প্রিজন ভ্যানে করে তাদের কে আদালতে পাঠানো হয়।
আটককৃতরা হলো, সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটিতে অধ্যয়নরত জায়িম খান, মো. মেহেদি হাসান, আশিক মিয়া, তারেক হোসেন, এ কে এম সালেহীন, মো. রবিউল, জুনায়েদ হোসেন, একই ইউনিভার্সিটি থেকে সদ্য পাশ করা মো. আবুল হাসনাত, মো. মনিরুজ্জামান, আমেরিকান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ’র (এআইইউবি) ইয়াহিয়া হোসেন সাজ্জাদ, প্রাইম এশিয়া ইউনিয়ন ভার্সিটির নিয়াজ আহমেদ তুষার, শ্যামলী পলিটেকনিকেল ইনস্টিটিউটের মো. আরিফ, নর্দান ইউনিভার্সিটির মো. সাইফুল ইসলাম, উত্তরা ইউনিভার্সিটির আলমগীর হোসেন ও ব্রাহ্মণাবড়িয়া সরকারি কলেজের ম্যানেজমেন্টের ছাত্র মো. ইমন। তাদের মধ্যে চারজনের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায়।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১২ বিজিবি সরাইল ব্যাটালিয়নের কোম্পানী কমান্ডার শাহ্ আলী এবং সিঙ্গারবিল ক্যাম্প কমান্ডার মো. হোসেন জানান, কাশিনগর এলাকায় ভারত সীমান্তের কাছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৫ শিক্ষার্থী দলবেধে ঘুড়াফেরা করছিল। এসময় টহলরত বিজিবি সদস্যরা তাদেরকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করাহয়।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিজয়নগর থানার ওসি আলী আর্শাদ জানান, গতকাল বেলা ১১টার দিকে বিজয়নগর উপজেলার কাশিনগর সিমান্ত এলাকা থেকে পুলিশ বর্ডারগার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটির ৯জন শিক্ষার্থী সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়–য়া ১৫ শিক্ষার্থীকে আটক করে। পরে তাদের কে বিকেল সারে ৫টার দিকে বিজয়নগর থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করাহয়। রাতভর থানা পুলিশের কর্মকর্তারা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের কে জিজ্ঞাসাবাদ করে। এসময় তারা পুলিশ কে জানায় তাদের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বেশ কয়েকজন সহপাঠির সাথে তারা সীমান্ত দেখার জন্যে কাশিনগরে এসেছিল। প্রাথমিক ভাবে তাদের বিরুদ্ধে নীতিবাচক কোন অভিযোগ বা কোন বিশেষ দলের সাথে যুক্ত আছে কিনা এধরনের কোন প্রমান পাওয়া যায়নি। তবে তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া সহ তারা কোন বিশেষ দলের সাথে যুক্ত আছে কিনা এ ব্যাপারে অধিক তদন্ত করার জন্যে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ এলাকার থানা পুলিশের কাছে জানাতে চাওয়া হবে। রির্পোট পাওয়ার পর পরবর্তীতে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান বিজয়নগর থানার ওসি আলী আর্শাদ ।

এই সংবাদটি 1,225 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •