মাগুরছড়া ট্রাজেডির ২৩তম বর্ষ

প্রকাশিত:সোমবার, ১৫ জুন ২০২০ ১০:০৬

মাগুরছড়া ট্রাজেডির ২৩তম বর্ষ

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার)
জাতীয় সম্পদ রক্ষা ও মাগুরছড়া গ্যাস বিপর্যয়ে ক্ষয়ক্ষতি আদায়, ক্ষয়ক্ষতির তালিকা প্রকাশসহ কমলগঞ্জ উপজেলার প্রতিটি ঘরে ঘরে গ্যাস সংযোগের দেয়ার দাবীতে রোববার (১৪ জুন) দুপুর সাড়ে ১টায় কমলগঞ্জ উপজেলা চৌমুহনা চত্বরে পরিবেশবাদী সংগঠন পাহাড় রক্ষা ও উন্নয়ন সোসাইটি এবং কমলগঞ্জ উন্নয়ন পরিষদ এর উদ্যোগে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে পাহাড় রক্ষা ও উন্নয়ন সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক নির্মল এস পলাশের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সংহতি প্রকাশ করে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সুজন কমলগঞ্জ উপজেলা শাখার সম্পাদক প্রভাষক সেলিম আহমদ চৌধুরী, পাহাড় রক্ষা ও উন্নয়ন সোসাইটির সভাপতি মোনায়েম খান, কমলগঞ্জ উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি এম, এ, ওয়াহিদ রুলু, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী কমলগঞ্জ শাখার সহ সভাপতি সাংবাদিক প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, কমলগঞ্জ প্রেসক্লাব সম্পাদক মো. মোস্তাফিজুর রহমান, কমলগঞ্জ সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক শাহীন আহমদ, পরিবহন শ্রমিক নেতা আলমাছ মিয়া প্রমুখ।
মানববন্ধন শেষে বেলা ২টায় কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) নাসরিন চৌধুরীর কাছে পাহাড় রক্ষা ও উন্নয়ন সোসাইটির পক্ষ থেকে ৫ দফা দাবী সম্বলিত প্রধানমন্ত্রী বরাবরে একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। পাঁচ দফা দাবীর মধ্যে রয়েছে- মাগুরছড়া গ্যাস বিস্ফোরণে অবহেলার কারণে বন, পরিবেশ, সড়কপথ, রেলপথ, চা বাগান, কৃষিখাত প্রভৃতি খাতে যে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে অবিলম্বে জনসম্মুখে সেই ক্ষয়ক্ষতির তালিকা প্রকাশ করা, গ্যাস ও তেল সম্পদের সব চুক্তি সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে প্রকাশ করা, কমলগঞ্জস উপজেলার প্রতিটি ঘরে ঘরে গ্যাস সরবরাহ করা, দেশের মূল্যবান খনিজ সম্পদ লুন্ঠন, অপচয় করার প্রক্রিয়ায় জড়িতদের চিহ্নিত করা এবং মাগুরছড়া অগ্নিকান্ডের দায়িত্বহীনতার কারণে যে ব্লো আউট ঘটেছে এবং গ্যাস সম্পদ, পরিবেশের যে অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে তার জন্য অক্সিডেন্টাল-ইউনোকল, শেভরনের কাছ থেকে ক্ষতিপূরণের টাকা আদায় করা।
এর পর বিকাল ৪টায় মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরীন এর নিকট তাঁর কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। স্মারকলিপি প্রদান করেন পাহাড় রক্ষা ও উন্নয়ন সোসাইটির সভাপতি মোনায়েম খান।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, মার্কিন কো¤পানী অক্সিডেন্টালের খামখেয়ালিপনার কারণে ১৯৯৭ সালের ১৪ জুন মধ্যরাতে মাগুরছড়া গ্যাসকূপে গ্যাস বিস্ফোরিত হয়। তখন আগুনে পুড়ে গ্যাস, চা বাগান, বনাঞ্চল, রেলপথ, সড়কপথসহ আশপাশের ঘড় বাড়ীসহ মারাত্বক ক্ষতি হয় পরিবেশের। কিন্তু ২৩ বছরেও ক্ষতিপুরন আদায় করা সম্ভব হয়নি। অবিলম্বে আন্তর্জাতিক আদালতে মামলা করে ক্ষতিপুরন আদায় করতে সরকারকে উদ্যোগ নেয়ার আহবান জানানো হয় মানববন্ধন থেকে। বক্তারা আরো বলেন, কমলগঞ্জের মাগুরছড়া গ্যাস কূপে বিষ্ফোরণের ২৩ বছর পূর্তিতেও এখনও বন পরিবেশ প্রকৃতির কোন ক্ষতিপূরণ দেয়নি মার্কিন বহুজাতিক তেল গ্যাস কোম্পানী অক্সিডেন্টাল, ইউনিকল বা শেভরন। বন পরিবেশ, জীব বৈচিত্র্য, রেলপথ ও সড়ক পথের ক্ষতি পূরণে আজ পর্যন্ত কোন সুরাহা হয়নি।
উল্লেখ্য, ১৯৯৭ সালের এই দিনে মার্কিন তেল কোম্পানী অক্সিডেন্টাল এর কামখেয়ালীপনায় বিষ্ফোরণ ঘটে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের মাগুরছড়া গ্যাস কুপে। অগ্নিকান্ডে নিমিষেই পুড়ে ছাই হয়ে যায় লাউয়াছড়া বনের গাছপালা, চা বাগান পান পুঞ্জি, উড়ে যায় দুটি ব্রীজ, পাকা সড়ক। গলে যায় রেলওয়ে লাইন। ক্ষতি হয় প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকা।

এই সংবাদটি 1,228 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •