মাথা নত করবেন না মির্জা ফখরুল

ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে এই সরকারকে পরাজিত করার ঘোষণা দিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, তারা মাথা নত করবেন না। দলীয় চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে দুর্নীতির মামলায় আবার সাত বছরের কারাদণ্ডের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার রাজধানীতে বিএনপির ছয় ঘণ্টার অনশনে এ কথা বলেন ফখরুল।

গুলিস্তানের মহানগর নাট্যমঞ্চে এই কর্মসূচি হয়। সকাল ১০টা থেকে বিকাল তিনটা পর্যন্ত এই অনশনে বসেন বিএনপি এবং সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। তবে তাদের অনশন ভাঙান বিএনপিপন্থী বুদ্ধিজীবী এমাজউদ্দিন আহমদ।

যেদিন এই কর্মসূচি হয়, একই দিন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক হিসেবে বিএনপিও গণভবনে যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সংলাপ করতে। আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে জোটের দাবি এবং সরকারের দাবির মধ্যে ব্যবধান কমিয়ে সমঝোতায় আসার বিষয়ে ফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেন আশাবাদী বলে জানিয়েছেন। তবে বিএনপি এই সংলাপের সাফল্য নিয়ে সংশয়ে।গণঅনশনে ফখরুল আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন। বলেন, ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারকে পরাজিত করা হবে।

এর আগে বিএনপি দুই বার আন্দোলনে নেমে খালি হাতে ঘরে ফিরেছে। ২০১৪ সালের দশম সংসদ নির্বাচন ঠেকানোর আন্দোলনে বিএনপি যেমন ব্যর্থ হয়েছে, তেমনি ২০১৫ সালের সরকার পতনের আন্দোলনেও তারা সফল হয়নি। আর এ কারণে বিএনপির নেতা-কর্মীরা হতোদ্যম বলে ধারণা করা হয়।

বিএনপি মহাসচিব দলীয় নেতা-কর্মীদেরকে সাহস দিয়ে বলেন, ‘বন্ধুগণ আমরা মাথা নত করব না। আমরা নিজেদের অধিকারের আন্দোলন ও লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে তা আদায় করব। আমাদের বেঁচে থাকার অধিকার, ১৯৭১ সালের যে চেতনা নিয়ে স্বাধীনতার যুদ্ধ করেছিলাম সেই অধিকার আমরা প্রতিষ্ঠা করবোই করব।’

‘দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে যখন বলা হলো- আপনার সাজা বৃদ্ধি পেয়েছে, তখন তিনি বলেছিলেন, তারা যত সাজা দিতে চায় দিক, আমি মাথা নত করব না।

দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার রায় নিয়েও কথা বলেন ফখরুল। বলেন, ‘সরকারের নিয়ন্ত্রণে এখন বিচার ব্যবস্থা চলছে। তার প্রমাণ গত দুই দিনে খালেদা জিয়ার মামলার রায় হয়ে গেছে। সরকার প্রতিটি প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে দিয়েছে। দেশের বিচার ও প্রশাসন ব্যবস্থাকেও তারা ধ্বংস করে দিয়েছে। আজকে দেশ আর গণতান্ত্রিক দেশ নেই, স্বৈরতান্ত্রিক দেশে পরিণত হয়েছে।’