মাস্টারমাইন্ড’ মারজানের পরিচয় পাওয়া গেছে

প্রকাশিত:সোমবার, ১৫ আগ ২০১৬ ১০:০৮

মাস্টারমাইন্ড’ মারজানের পরিচয় পাওয়া গেছে

ডেস্ক নিউজ: গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার ‘মাস্টারমাইন্ড’ মারজানের পরিচয় পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। মারজানের প্রকৃত নাম নুরুল ইসলাম ওরফে মারজান। তাঁর বাড়ি পাবনা সদর উপজেলার হেমায়েতপুর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের আফুরিয়ায়। মো. নাজিম উদ্দিন এবং সালমা খাতুনের ১০ সন্তানের মধ্যে মারজান চতুর্থ। তিনি বেশ কিছুদিন ধরে ‘পরিবারবিচ্ছিন্ন’ ছিলেন। এ ঘটনা জানাজানি হলে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।
মারজানের বিষয়ে তথ্য চেয়ে গত শুক্রবার পুলিশের বিশেষ অ্যাপ ‘হ্যালো সিটিতে’ ছবি প্রকাশ করা হয়। সেখানে তাঁকে গুলশান হামলার ‘অপারেশন কমান্ডার’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। তাঁর বয়স ২২ বা ২৩ বছর বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন।
পাবনার পুলিশ সুপার (এসপি) মো. আলমগীর কবীর আজ সোমবার রাত পৌনে ৯টায় বলেন, ‘মারজানের পরিচয় মিলেছে। পুলিশের একটি দল বাড়ি গিয়ে তাঁর প্রকৃত পরিচয় নিশ্চিত হয়েছে। তবে বিষয়টি আমাদের এখতিয়ারের বাইরে থাকায় সাংবাদিকদের জানানো সম্ভব হয়নি। পুলিশের কাউন্ডার টেরিরিজম ইন্টলিজেন্স বিভাগ বিষয়টি তদারকি করায় বিষয়টি সম্পর্কে খুব বেশি জানতে পারেননি।’
মারজানের বাবা মো. নাজিম উদ্দিন জানান, তাঁর পাঁচ ছেলে ও পাঁচ মেয়ে। এর মধ্যে মারজান চতুর্থ। মারজান আফুরিয়া পাটকিয়া বাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং উচ্চ বিদ্যায় থেকে পাশ করার পর পাবনার আলিয়া মাদ্রাসা থেকে আলিম পাস করে। এর পর তিনি দীর্ঘদিন পাবনার বাশবাজার মসজিদে মক্তব বিভাগে ছাত্রছাত্রী পড়াতেন। পরে ২০১৪ সালে তিনি চট্টগাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আরবি বিভাগের ভর্তি হন।
বছর খানেক আগে ঈশ্বরদী উপজেলার কালিকাপুরে আপন খালাতো বোনকে বিয়ে করেন মারজান। তবে গত আট মাস ধরে মারজান স্ত্রীসহ কোথায় আছেন তা জানেন না বলে জানান মো. নাজিম উদ্দিন।
মারজানের বাবা আরো বলেন, ‘ছেলের এ ধরনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা জানতে পেরে তাঁর মা সালমা অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। গতকাল সোমবার রাতে তাঁকে পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আমার ছেলে এ ধরনের ঘটনায় যুক্ত থাকলে আমরা তাঁর দায়িত্ব নিতে চাই না।’
গত শুক্রবার সকালে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার ও কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলার মূল দায়িত্বে থাকা আরেক ব্যক্তিকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাঁর সাংগঠনিক নাম মারজান। তাঁর ছবি পাওয়া গেছে। নিজের ফেসবুকে মারজান গুলশান হামলার ছবি আপলোড করেছিলেন।
মনিরুল ইসলাম আরো জানিয়েছিলেন, গোপন টেক্সট বা আপসের মাধ্যমে গুলশান হামলার ছবি মারজানের কাছে পাঠানো হয়েছিল। তিনি তা ওপেন করেছিল। পুলিশ এক জঙ্গির মোবাইল থেকে তা উদ্ধার করেছে। মারজান সম্পর্কে জানা যায়, তিনি উগ্রবাদী চিন্তার ধারক। জেএমবির হাই-প্রোফাইল জঙ্গিদের সঙ্গে তাঁর রয়েছে নিবিড় যোগাযোগ।
গুলশান ও শোলাকিয়া হামলার পর এসব জঙ্গির সঙ্গে তাঁর বৈঠকও হয়। পরবর্তী হামলার জন্য ছকও তৈরি করেছিলেন। কিন্তু রাজধানীর কল্যাণপুরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে তাঁদের সেই ছক ভেস্তে গেছে।

এই সংবাদটি 1,226 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •