Fri. Aug 23rd, 2019

BANGLANEWSUS.COM

-ONLINE PORTAL

মীরসরাই ট্রাজেডির ৮ বছর আজ

1 min read

মীরসরাই ট্রাজেডির আট বছর পূর্ণ হলো আজ। আট বছর পার হলেও থামেনি ৪৫ পরিবারের শোকের মাতম। এখনো পরিবারের সবাই নিহতদের স্মরণে হু হু করে কেঁদে উঠে। বিশেষ করে ১১ জুলাই যেন তাদের নতুন করে স্বরণ করিয়ে দেয় স্বজন হারানোর বেদনা।

 

নিহতদের স্মরণে ও তাদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনায় স্ব স্ব ধর্মীয় নিয়মে প্রার্থনার আয়োজন করা হয়েছে। তাদের প্রিয় বিদ্যাপীঠগুলোতে স্মরণ সভার আয়োজন করা হয়েছে।

 

২০১১ সালের ১১ জুলাই মীরসরাইয়ের আবুতোরাব স্কুলের ৪৩ ছাত্র প্রাণ হারায়। ওইদিন খেলা শেষে বাড়ি ফেরার পথে তাদের বহনকারী ট্রাকটি খাদে উল্টে পড়েছিলো। এ ট্রাজেডিতে একজন অভিভাবক ও একজন শোকার্ত ব্যক্তিরও মৃত্যু হয়েছিলো।

 

এ ঘটনায় নিহতদের স্বজনদের সমবেদনা জানাতে সেদিন ছুটে এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বেগম খালেদা জিয়া, তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদসহ সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা। পাশে এসে দাঁড়িয়েছিলো দেশ-বিদেশের অগণিত সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান। প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার অগণিত সংবাদকর্মী ছুটে এসেছে সরেজমিনে ঘটনার ভয়াবহতা দেশ-বিদেশে তুলে ধরতে।

 

পরে নিহতদের স্মরণে সেই খাদে নির্মিত হয়েছে স্মৃতিসৌধ ‘অন্তিম’। বিদ্যালয়ের মূল ফটকে রয়েছে স্মৃতিসৌধ ‘আবেগ’।  এই দুটি স্মৃতি সৌধেই এবারও শ্রদ্ধা জানাবে বিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থী শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকসহ এলাকার বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন গুলো।

 

কর্মসূচির বিষয়ে আবুতোরার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মর্জিনা আক্তার বলেন, প্রতিবছরের মতো সকাল ৮টায় ভিন্ন ভিন্ন ধর্ম অবলম্বনে বিশেষ দোয়া ও প্রার্থনা, সকাল ৯টায় কালো ব্যাজ ধারণ, সকাল ১০ টায় শোক র‌্যালি হয়েছে। ১০.৩০ আবেগ থেকে অন্তিমে গিয়ে পুস্পস্তবক অর্পণ, সকাল ১১টা থেকে স্মৃতিচারণ ও আলোচনা সভা হবে।

 

সেদিনের ঘটনায় নিহত হয়েছিলো আবুতোরাব উচ্চ বিদ্যালয়, আবুতোরাব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আবুতোরাব মাদরাসা ও প্রফেসর কামাল উদ্দিন চৌধুরী কলেজের শিক্ষার্থীরা।

 

মীরসরাইবাসীর প্রার্থনা এমন মর্মান্তিক ঘটনার পূনরাবৃত্তি যেন আর কোনদিন না ঘটে পৃথিবীর কোথাও।

আরো সংবাদ

1 min read

জম্মু-কাশ্মীর সমস্যা নিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান কাশ্মীর সংক্রান্ত কোর গ্রুপ বৈঠকে সভাপতিত্ব করেছেন। এতে কাশ্মীরের বিষয়টি বিশ্বব্যাপী তুলে ধরতে পাকিস্তানের আরও প্রচেষ্টার আলোচনা হয়েছে। এ বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরইশি, আইন ও বিচারমন্ত্রী ফারোগ নাসিম, কাশ্মীরের সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী তথ্য ও সম্প্রচার ড. ফিরদাউস আশিক আওয়ান এবং অ্যাটর্নি জেনারেল অব পাকিস্তান উপস্থিত ছিলেন। বিশ্বজুড়ে কাশ্মীরের পরিস্থিতি তুলে ধরতে পাকিস্তানের রাজনৈতিক, কূটনৈতিক, আইনি এবং মিডিয়া প্রচেষ্টাকে আরও যুক্ত করার পদক্ষেপে একমত হয়েছেন। এর আগে পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র ড. মোহাম্মদ ফয়সাল এক বিবৃতিতে বলেন, খাদ্য ও ওষুধের ঘাটতি হওয়ায় এ অঞ্চলটি মানবিক সংকটের অপেক্ষায় রয়েছে, যা জনগণের বিশেষত প্রবীণ, মহিলা ও শিশুদের জীবনকে ঝুঁকিপূর্ণ করছে। ভারতীয় বাহিনী দীর্ঘদিন ধরেই উপত্যকায় নৃশংস উপায়ে বিদ্রোহ দমন করে আসছে। ইতিমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চল মোতায়েনকৃত সেনা হিসেবে অতিরিক্ত সেনা এ অঞ্চলে মোতায়েন করা হয়েছে। এতে কারফিউ আরোপ করা হয়েছে। ৫ আগস্ট ভারত সরকার কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার পর থেকেই যোগাযোগের অচলাবস্থা সৃষ্টি করা হয়েছে; শীর্ষস্থানীয় কাশ্মীরি নেতাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। জিয়ো টিভির প্রতিবেদনে বলা হয়ছে, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ (ইউএনএসসি), মানবাধিকার সংস্থা এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম কাশ্মীরিদের ওপর দেয়া কারফিউ ও কাশ্মীরি জনগণের ভোগান্তি নিরসনের আহ্বান জানিয়েছিল। অধিকৃত কাশ্মীরের অবস্থা বিশ্লেষণ করে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্যও আহ্বান করা হয়েছে। কাশ্মীর কোর গ্রুপও অধিকৃত কাশ্মীরে বসবাসকারী জনগণকে তাদের নিজস্ব অধিকার ফিরিয়ে দেয়া এবং উপত্যকায় আটকেপড়া লোকদের পাকিস্তানের সহায়তার কথা উত্থাপন করা হয়।

আজকের খবর

1 min read

জম্মু-কাশ্মীর সমস্যা নিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান কাশ্মীর সংক্রান্ত কোর গ্রুপ বৈঠকে সভাপতিত্ব করেছেন। এতে কাশ্মীরের বিষয়টি বিশ্বব্যাপী তুলে ধরতে পাকিস্তানের আরও প্রচেষ্টার আলোচনা হয়েছে। এ বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরইশি, আইন ও বিচারমন্ত্রী ফারোগ নাসিম, কাশ্মীরের সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী তথ্য ও সম্প্রচার ড. ফিরদাউস আশিক আওয়ান এবং অ্যাটর্নি জেনারেল অব পাকিস্তান উপস্থিত ছিলেন। বিশ্বজুড়ে কাশ্মীরের পরিস্থিতি তুলে ধরতে পাকিস্তানের রাজনৈতিক, কূটনৈতিক, আইনি এবং মিডিয়া প্রচেষ্টাকে আরও যুক্ত করার পদক্ষেপে একমত হয়েছেন। এর আগে পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র ড. মোহাম্মদ ফয়সাল এক বিবৃতিতে বলেন, খাদ্য ও ওষুধের ঘাটতি হওয়ায় এ অঞ্চলটি মানবিক সংকটের অপেক্ষায় রয়েছে, যা জনগণের বিশেষত প্রবীণ, মহিলা ও শিশুদের জীবনকে ঝুঁকিপূর্ণ করছে। ভারতীয় বাহিনী দীর্ঘদিন ধরেই উপত্যকায় নৃশংস উপায়ে বিদ্রোহ দমন করে আসছে। ইতিমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চল মোতায়েনকৃত সেনা হিসেবে অতিরিক্ত সেনা এ অঞ্চলে মোতায়েন করা হয়েছে। এতে কারফিউ আরোপ করা হয়েছে। ৫ আগস্ট ভারত সরকার কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার পর থেকেই যোগাযোগের অচলাবস্থা সৃষ্টি করা হয়েছে; শীর্ষস্থানীয় কাশ্মীরি নেতাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। জিয়ো টিভির প্রতিবেদনে বলা হয়ছে, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ (ইউএনএসসি), মানবাধিকার সংস্থা এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম কাশ্মীরিদের ওপর দেয়া কারফিউ ও কাশ্মীরি জনগণের ভোগান্তি নিরসনের আহ্বান জানিয়েছিল। অধিকৃত কাশ্মীরের অবস্থা বিশ্লেষণ করে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্যও আহ্বান করা হয়েছে। কাশ্মীর কোর গ্রুপও অধিকৃত কাশ্মীরে বসবাসকারী জনগণকে তাদের নিজস্ব অধিকার ফিরিয়ে দেয়া এবং উপত্যকায় আটকেপড়া লোকদের পাকিস্তানের সহায়তার কথা উত্থাপন করা হয়।

Copyright © Banglanewsus.com All rights reserved. | Developed By by Positive it USA.

Developed By Positive itUSA