যাত্রাশিল্পের সংকট কবে নিরসন হবে?

প্রকাশিত:রবিবার, ১৮ অক্টো ২০২০ ০১:১০

যাত্রাশিল্পের সংকট কবে নিরসন হবে?

সম্পাদকীয়: আবহমান বাংলার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য আমাদের যাত্রা। ঔপনিবেশিককালে স্বাধীনতা সংগ্রাম, পাকিস্তান আমলে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন, জাতীয়তাবাদী চেতনার উন্মেষ, বঙ্গবন্ধুর ছয় দফা, স্বাধীনতার ঘোষণা- এসব কালপঞ্জি গাঁয়ের নিরক্ষর মানুষ সহজে জানতে বা বুঝতে পারে যাত্রাপালার মাধ্যমে। যাত্রাশিল্পীদের নিরাপত্তার অভাব- অভিনয় শুরু হলেই একশ্রেণির স্থানীয় রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা অশ্লীল নৃত্যগীত পরিবেশন ও চাঁদা দেয়ার দাবি জানান। অশ্লীল নৃত্যগীতের যে ব্যাপারটা তাতে আয়োজক কমিটিও যুক্ত থাকে। তেমনি একশ্রেণির অসৎ যাত্রাদল মালিকও এসব অপকর্মে জড়িত হয়ে পড়েন। অনেক সময় থানা-পুলিশও উৎকোচের মাধ্যমে এসব অপসংস্কৃতিকে প্রশয় দিয়ে থাকে।

বর্তমান সরকারের আমলে আমরা একটি যাত্রা নীতিমালা পেয়েছি, যা গেজেটভুক্ত হয়েছে ২০১২ সালের ৩০ আগস্ট। দুঃখের বিষয়, যে উদ্দেশ্যে আমরা একটি নীতিমালা প্রণয়ের দাবি তুলেছিলাম, বাস্তবে তা যথাযথভাবে প্রতিফলিত হচ্ছে না। নীতিমালায় বলা হয়েছ, যে কোনো স্থানে যাত্রা প্রদর্শনী করিতে হইলে পূর্বেই স্থানীয় জেলা প্রশাসনের অনুমতি লইতে হইবে। অনুমতির জন্য আবেদন পাওয়ার সাত কর্মদিবসের মধ্যে জেলা প্রশাসনকে অনুমতির বিষয়টি নিষ্পত্তি করিতে হইবে। মৌসুমে অনুমতিজনিত প্রশাসনিক জটিলতায় যাত্রা পরিক্রমা যাহাতে ব্যাহত না হয় সেই বিষয়ে জেলা প্রশাসক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন।’ বাস্তবতার সঙ্গে এসব কথার কোনো মিল নেই। গৌরবময় ঐতিহ্যকে স্মরণ করে আমরা কি দেশের যাত্রাকে আবার সচল করে তুলতে পারি না?

এই সংবাদটি 1,229 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •