রায়পুরে ১৬১ মাদককারবারি ও ৬৭ সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার

প্রকাশিত:বুধবার, ০৬ জানু ২০২১ ০৪:০১

তাবারক হোসেন আজাদ, লক্ষ্মীপুর: 

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ২০২০ সালের সবচেয়ে আলোচিত ঘটনা ছিলো ২৫০ ক্যান বিয়ারসহ মিজানুর রহমান ঢালী নামের এক যুবলীগ নেতাকে আটক। তারপরেই ছিলো পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হান কবিরের ২২০ পিস ইয়াবাসহ আটকের ঘটনা। অপরদিকে শহরের নূপুর বোডিং থেকে ৮শ পিস ইয়াবাসহ এক নারী ও দুই মাদককারবারিকে আটক করে থানা পুলিশ। এছাড়াও পাউবো ও কৃষি দফতরের পরিত্যাক্ত ভবনগুলোসহ ১৫টি স্থানে মাদকের আড্ডা ও সেবন নিয়ে পুলিশের অভিযান ছিলো আলোচনায়। গত এক বছরের অভিযানে ৪ হাজার ১৩৪ পিস ইয়াবাসহ ১৬১ মাদককারবারি এবং ৬৭ সাজাপ্রাপ্ত আসামিকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

১৮ সেপ্টেম্বর রাতে উপজেলার উত্তর চরআবাবিল ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রাম থেকে যুবলীগ নেতা ঢালীকে আটক করে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। পরে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করে তাকে রায়পুর থানায় হস্তান্তর করা হলে তাকে গ্রেফতার দেখায় থানা পুলিশ। আটক ঢালী উত্তর চর আবাবিল ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক ও একই ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রামের ফজলুল করিম মিজানের ছেলে।

১৫ ডিসেম্বর রাতে নূপুর বোডিং থেকে আটককৃত মাদককারবারিরা হলেন, ফেনী জেলার সদর থানার নেয়ামতপুর গ্রামের মৃত সামছুল হক এর ছেলে শাহাদাত হোসেন (৩৫), মানিকগঞ্জ জেলার সিংরাই থানার ইসলাম নগরের মৃত মহিজ উদ্দিনের ছেলে সাঈদুর রহমান তারেক (৪৫) ও চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ থানার পশ্চিম রূপসা গ্রামের বাসেদ খান এর মেয়ে সানজিদা আক্তার রিয়া (২৫)।

রায়পুর থানাসূত্রে জানা যায়, জানুয়ারি মাসে ৪৭৯ পিস ইয়াবাসহ ১৮ মাদককারবারি ও ১৫ সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার হয়। ফেব্রয়ারি মাসে ২৫৬ পিস ইয়াবাসহ ১৪ মাদককারবারি ও ৫ সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার হয়। মার্চ মাসে ২৮০ পিস ইয়াবা, ৫০ গ্রাম গাঁজাসহ ৬ মাদককারবারি ও ১২ সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার হয়। এপ্রিল মাসে ৭০ পিস ইয়াবাসহ তিন মাদককারবারি গ্রেফতার হয়। মে মাসে ৬০ পিস ইয়াবা, ১০০ গ্রাম গাঁজাসহ ৯ মাদককারবারি গ্রেফতার হয়। জুন মাসে ৪০ পিস ইয়াবা, ১৩ ক্যান বীয়ারসহ পাঁচ মাদককারবারি ও দুই সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার হয়।

জুলাই মাসে ১২০ পিস ইয়াবা, ১০ লিটার মদ, ১০০ গ্রাম গাঁজাসহ ১৭ মাদককারবারি ও পাঁচ সাজাপ্রাপ্ত আসামি, গ্রেফতার হয়। আগষ্ট মাসে ৩৬৫ পিস ইয়াবা, ৩২০ গ্রাম গাঁজা, ৬০০ মিলি. স্প্রীট, ৪ লিটার মদসহ ২৬ মাদককারবারি ও তিন সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার হয়। সেপ্টেম্বর মাসে ৭৬০ পিস ইয়াবা, ৩১৫ গ্রাম গাঁজা, ২৫০ ক্যান বিয়ারসহ ২৮ মাদককারবারি ও ১৪ সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার হয়। অক্টোবর মাসে ৩১ পিস ইয়াবা, ৫০০ গ্রাম গাঁজাসহ ৭ মাদককারবারি ও দুই সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার হয়। নভেম্বর মাসে ৭৩৭ পিস ইয়াবা, ৪৫০ গ্রাম গাঁজাসহ ১৪ মাদককারবারি ও ৮ সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার এবং ডিসেম্বর মাসে ৯৩৬ পিস ইয়াবাসহ ১৪ মাদককারবারি ও এক সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার হয়।

রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল জানান, ২০২০ সালে জুলাই মাসে এ থানায় যোগদান করার পর থেকে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছি। গত এক বছরে ৪ হাজার ১৩৪ পিস ইয়াবাসহ ১৬১ মাদক কারবারি এবং ৬৭ সাজাপ্রাপ্ত আসামিকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা ছাড়া এককভাবে মাদক নির্মূল করা সম্ভব নয়। মাদক নির্মূল করতে হলে রাজনৈতিক নেতা এবং সমাজের গন্যমান্য ব্যক্তিরা এগিয়ে আসলেই মাদকমুক্ত করা সম্ভব।

এই সংবাদটি 1,229 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •