শিক্ষার্থীর মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে পড়ালেখার চাপ কমানো জরুরি

শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিদ্যমান পড়ালেখার চাপ কমানো জরুরি। এ ছাড়াও সামাজিক কার্যক্রমে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করা দরকার।

সোমবার ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের মানসিক স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী মনোযত্ন কেন্দ্র-এর উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা এ কথা বলেন।

তারা বলেন, কমিউনিটি বা সামাজিক মানসিক উন্নয়নে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব রয়েছে। কর্মক্ষেত্রে মানসিক নির্যাতন প্রতিরোধে বিদ্যমান আইনে কোনো সুস্পষ্ট নির্দেশনা নেই এবং কর্মীর মানসিক অধিকার সম্পর্কেও কোনো নির্দেশনা নেই।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনকালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সূত্র উল্লেখ করে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের স্বাস্থ্য সেক্টরের সিনিয়র কাউন্সেলর ও মানসিক স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম সমন্বয়কারী আমির হোসেন বলেন, যাদের বয়স ১৫ থেকে ২৯ বছর তাদের মৃত্যুর দ্বিতীয় মূখ্য কারণ হলো আত্মহত্যা। প্রতি ৫ জনে একজন তরুণ মানসিক রোগে ভুগছে, ৮৩ শতাংশ তরুণ মনে করে বিদ্রুপাত্বক মন্তব্য এবং উত্ত্যক্ততা তাদের আত্মমর্যাদার ওপর প্রভাব ফেলে।

তিনি উল্লেখ করেন, বাংলাদেশে ১৮ বছরের উর্ধ্বে ১৬ দশমিক ১ শতাংশ এবং ১৮ বছরের নিচে ১৮ শতাংশ (শিশু ও কিশোর) জনগোষ্ঠী মানসিক রোগে আক্রান্ত। দেশে প্রায় ৩৫ শতাংশ মানুষের মানসিক স্বাস্থ্যসেবা প্রয়োজন।

সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অসংক্রামক ব্যাধি নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমের প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. মো. রিজওয়ানুল করিম শামীম, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা মনোবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কামরুজ্জামান মজুমদার এবং সেন্টার ফর ল অ্যান্ড পলিসি অ্যাফেয়ারস-সিএলপিএ-এর সেক্রেটারি অ্যাডভোকেট সৈয়দ মাহাবুবুল আলম।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের সাধারণ সম্পাদক ড. এসএম খলিলুর রহমান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের স্বাস্থ্য সেক্টরের প্রধান ইকবাল মাসুদ।

এদিকে, বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষ্যে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের মানসিক স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী মনোযত্ন কেন্দ্র-এর উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। এসবের মধ্যে ছিলো- শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ফ্রি কাউন্সেলিং ও সাইকোলজিক্যাল অ্যাসেসমেন্ট ক্যাম্প, ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের তিনটি মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্র ঢাকা, গাজীপুর ও যশোরে পারিবারিক সভা এবং আলোচনা সভা।