স্বাধীনতা নিয়ে বাংলাদেশে কাজ করছে বিচার বিভাগ :: নিউইয়র্কে প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা

প্রকাশিত:বুধবার, ১৯ অক্টো ২০১৬ ০১:১০

sinha-in-ny-2016
মাকসুদ আলী রাসেল ::: বাংলাদেশেন প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা বলেন, ‘আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্যে বাংলাদেশের বিচার বিভাগ এখন স্বাধীনভাবে কাজ করছে’ ।  ‘বিচারের জট খুলতে আমি শুরু থেকেই তৎপর। ক্রমান্বয়ে বিচার নিয়ে বিলম্ব ঘটার বিড়ম্বনা সামনের দিনগুলোতে একেবারেই কমে যাবে।’
নিউইয়র্ক স্থানীয় সময় ১৬ অক্টোবর শনিবার সন্ধ্যায় (বাংলাদেশ সময় সোমবার সকাল)  যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত বাংলাদেশী-আমেরিকান আইনজীবীদের সংগঠন ‘বাংলাদেশ ল’ সোসাইটির আয়োজনে ‘বাংলাদেশের মানবাধিকার ও বিচার বিভাগের ভূমিকা’ শীর্ষক এক আলোচনায় তিনি একথা বলেন ।
সিটির এস্টোরিয়ার ক্লাব সনমে  এ আলোচনায়  তিনি আরো বলেন, ‘সাংবিধানিক রীতি অনুযায়ী সরকার গঠন ও পরিবর্তনের ভিত্তি তৈরী হয়েছে বাংলাদেশে। বিচার বিভাগ সম্পূর্ণভাবে স্বাধীন বলেই মার্শাল ল’ আর কখনোই বাংলাদেশের মানুষের ওপর চেপে বসার সুযোগ পাবে না।”
‘আগে সকলেই বিচার বিভাগকে রাজনৈতিক সরকারের অঙ্গ হিসেবে মনে করতেন। প্রকৃত অর্থে বিচার বিভাগ হচ্ছে রাষ্ট্রের অঙ্গ এবং এখন একশতভাগ স্বাধীনতা নিয়ে বিচার বিভাগ কাজ করছে বলেন প্রধান বিচারপতি ।
তিনি  বলেন, ‘এখন কোন কিছুই চেপে রাখা সম্ভব নয়। মিডিয়া সোচ্চার থাকায় আমরাও সঠিকভাবে কাজে তৃপ্তি পাচ্ছি।’
‘বিভিন্ন সেক্টরের মত বিচার বিভাগেও কিছু দুর্নীতি এখনও রয়েছে। এটি অস্বীকারের ওপায় নেই। তবে তার অবসানে আমরা সকলে আন্তরিক অর্থেই সচেষ্ট রয়েছি।’ যোগ করেন প্রধান বিচারপতি ।
‘বিচার বিভাগ যথাযথভাবে পরিচালনার জন্যে সুনির্দিষ্ট ফাউন্ডেশন তৈরী হয়েছে এখন। সুতরাং পরবর্তীতে যারা কাজ করবেন, তাদের বড় ধরনের সমস্যা হবে না। এখন থেকে সবকিছু আইন অনুযায়ী চালাতেও কারো মুখাপেক্ষী হয়ে থাকতে হবে না।’ -প্রধান বিচারপতি বলেন ।
আয়োজক সংগঠনের সভাপতি এডভোকেট মোর্শেদা জামান সভাপতিত্বে সভা পরিচালনা করেন, এডভোকেট শাহ বখতিয়ার। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিচারপতি আবুল তারেক, বিচারপতি এম আর হাসান, সংসদ সদস্য ওয়ারেস হাসান খান বেলাল, মার্কিন এটর্নী অশোক কর্মকার, এটর্নী মঈন চৌধুরী, জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন, নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কন্সাল জেনারেল শামীম আহসান প্রমুখ ।
উল্লেখ্য, শনিবার সকাল ৯টায় (বাংলাদেশ সময় শনিবার রাত) জেএফকে এয়ারপোর্টে অবতরণের পর  প্রধান বিচারপতিকে স্বাগত জানান জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন, কন্সাল জেনারেল শামীম আহসানসহ বাংলাদেশ ল’ সোসাইটির নেতৃবৃন্দ ।

এই সংবাদটি 1,225 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ