সরকার দেশের হারিয়ে যাওয়া পাট শিল্পকে বাচিয়ে রাখতে বদ্ধকর-প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি

প্রকাশিত:শনিবার, ০৬ আগ ২০১৬ ১২:০৮

Khulna pic 06 agust,2016

শেখ হেদাযেতুল্লাহ, বিভাগীয় প্রতিনিধি:
খুলনার আটরা শিল্পাঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ব আলীম জুট মিলস মালিকানা সংক্রান্ত জটিলতায় র্দীর্ঘ ১৪ মাস টাকা আন্দোলন সংগ্রামের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একান্ত আ—রিকতায় অবশেষে বন্ধকৃত জুট মিলটির আবারও বিজেএমসির তত্বাবধানে উৎপাদন শুরু করেছে।
শনিবার মিল অভ্যান্তরে এক উদ্বোধনী ও দোয়ার অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্টানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ।
প্রধান অতিথি তার বক্তৃতায় বলেন, বর্তমান সরকার শিল্পবান্ধব এই সরকার দেশের হারিয়ে যাওয়া পাট শিল্পকে বাচিয়ে রাখতে বদ্ধকর। এই শিল্পের মেশিনারি গুলো আধুনিকায়ন করে দেশের সম্পদে পরিনত করা আর এটা বাস্তবায়ন করতে হলে শিল্প কলকারখানার শ্রমিকদের দক্ষতার সাথে নিজও নিজও কাজে মনোনিবেশ করতে হবে। তিনি এই মিলের শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, প্রধানমন্ত্রী কেবিনেট মিটিং এই মিলের বিষয়ে আন্তরিকতা ও উদারতার জন্য মিলটি আজ আবারও বিজেএমসির আওতায় উৎপাদন শুরু করতে যাচ্ছে। তিনি মিলটির উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য আধুনিক মেশিন সংযোজন এবং মিলের অভ্যন্তরের রাস্তা সংষ্কার ও গভীর নলকুপের ব্যাবস্থা করার আশ্বাস প্রদান করেন।
অনুষ্ঠানে শ্রমিক নেতৃবৃন্দ সকলেই বন্ধ মিলটি র্পুণজন্ম এবং রাষ্ট্রিয় ভাবে উৎপদনে নতুন করে যাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পাটমন্ত্রী এমাজউদ্দিন প্রামানিক, প্রতিমন্ত্রী মীর্জা আযম, মৎস ও প্রানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ, খুলনা সদর আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্জ মিজনুর রহমান, আলহাজ্জ শেখ আকরাম হোসেনের অবদানের কথা স্বরণ করে দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামে সংবাদপত্র সহ যারা পাশে ছিলেন তাদেরকে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানান।
নেতৃবৃন্দ বক্তৃতায় শ্রমিকদের বকেয়া ৪৭ মাসের মজুরী ও ১২ মাসের বেতন সহ কিছু দাবি তুলে ধরেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ফুলতলা উপজেলার চেয়ারম্যান শেখ আকরাম হোসেন, ফুলতলা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোহসিনা আক্তার বানু, আলীম জুট মিলের পরিচালক মহব্বৎ আলী মিয়া, বিজেএমসির উপ-মহাব্যাবস্থাপক(রক্ষনাবেক্ষণ) মোঃ নুরুল ইসলাম, খানজাহান আলী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ আবিদ হোসেন, আটরা গিলাতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ মনিরুল ইসলাম, আজুমির হিসাব বিভাগের প্রধান মোঃ রফিকুল ইসলাম, ফুলতলা থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহাবুদ্দিন জীপ্পি, খানজাহান আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আশরাফুল আলম, ফুলতলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান।
মিলের উপ-মহাব্যাবস্থাপক(প্রকল্প প্রধান) আনোয়ারুল হক তালুকদারের সভপতিত্বে বক্তৃতা করেন, জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি হাফিজুর রহমান ভুইয়া, আফিল জুট মিলের সাধারণ সম্পাদক শেখ আনছার আলী, পাটকল শ্রমিকলীগের সভাপতি মোঃ মোতাহার হোসেন, ক্রিসেন্ট জুট মিলের সিবিএ সভাপতি মোঃ সোহরাব হোসেন,ইষ্টার্ণ জুট মিলের সিবিএ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ জাকির হোসেন, মোঃ খলিলুর রহমান, মোঃ হারুন অর রশিদ মলি¬ক, মোঃ মিজানুর রহমান, আলীম জুট মিলস ওয়ার্কাস ইউনিয়নের সভাপতি আঃ সালাম জমাদ্দার, সাধারণ সম্পাদক শেখ আঃ রশিদ, ইষ্টার্ণ জুট মিলস মজদুর ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ আলাউদ্দিন, জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের খুলনা জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ মোজাম্মেল হক, আ জু মির ওয়ার্কাাস ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শেখ কওছার আহম্মেদ, সর্দার আঃ হামিদ, মোঃ সাইফুল ইসলাম লিটু, মনিরুল ইসলাম ছোট্ট, বাবুল রেজা, আমিরুল ইসলাম, সৈয়দ আবু জাফর, মোঃ আনোয়ার সহ খুলনা অঞ্চলের বিভিন্ন জুট মিলের সিবিএ-ননসিবিএ এর নেতৃবৃন্দ ।
উল্লেখ্য আলীম জুট মিল বিজেএমসির আওতায় থাকা অবস্থায় মরহুম আলীমের ভাগ্নে জগলুল মাহমুদ গং মিলের শেয়ার দাবী করে ত্রুটি পুর্ণ কাগজপত্র তৈরী করে আদালতের মাধ্যমে মিলটি নেওয়ার চেষ্ঠা করলে গত ২০১৫ সালের ১৯ এপ্রিল থেকে রাজপথে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে আসছিল।

এই সংবাদটি 1,226 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •