সিলেটে ‘সাদাকালোয়’ ছেয়ে গেছে নীল আকাশ

 

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের তফসিল ঘোষণা হয়েছিল বেশ আগেই। তখন থেকে তোড়জোর শুরু হয় নগরীতে; প্রচারণায় ব্যস্ত হয়ে ওঠেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। পরে নির্বাচন যতোই ঘনিয়ে আসে ততোই বাড়তে থাকে দৌঁড়ঝাঁপ। সর্বশেষ ১০ জুলাই প্রতীক বরাদ্দের দিন থেকে ব্যস্ততা রূপ নিয়েছে ‘মহাব্যস্ততায়’। একটু বেশি ব্যস্ততা চোখে পড়ছে মেয়র প্রার্থীদের। সবমিলিয়ে ১৯৬ জন প্রার্থীদের জমজমাট প্রচারণা চলছে সম্প্রীতির শহরখ্যাত সিলেটে। এখন পর্যন্ত সিলেটের কোথাও প্রচারণার ক্ষেত্রে বড় কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

 

ভোটারদের মনজয় করতে প্রার্থীরা নেমেছেন মাঠে। দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন ভোটারদের। নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডের প্রতিটিরই পাড়া-মহল্লা, অলিগলি ছেয়ে গেছে বদরউদ্দিন আহমদ কামরান ও আরিফুল হক চৌধুরীর নৌকা-ধানের শীষের ব্যানার পোস্টারে। আকাশ দেখাই দায় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

 

পিছিয়ে নেই স্বতন্ত্র প্রার্থী সিলেট মহানগর জামায়াতের আমির এহসানুল মাহবুব জুবায়েরের টেবিল ঘড়ি ও নাগরিক কমিটির বদরুজ্জামান সেলিমের বাস প্রতীক, সিপিবি-বাসদ প্রার্থী আবু জাফরের মই, ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনে প্রার্থী মোয়াজ্জেম হোসেনের হাত পাখা ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এহসানুল হক তাহেরের হরিণ মার্কাও। তাদের পোস্টারও চোখে পড়েছে নগরীর মোড়ে মোড়ে।

 

প্রধান প্রধান সড়কগুলো মেয়র, কাউন্সিলর ও নারী কাউন্সিলরদের পোস্টারে ছেয়ে গেছে। নগরজুড়ে শোভা পাচ্ছে ১৯৬ জন প্রার্থীর সাদাকালো রঙের পোস্টার। আচরণবিধি অনুযায়ী সাদাকালো রঙে তৈরি এসব পোস্টার দড়িতে ঝুলিয়ে টানাতে হচ্ছে। আর তাই পথ হাটলে মাথার উপর থাকছে পোস্টারের বহর। এক প্রার্থীর পোস্টার দেখা শেষ হতে না হতেই চোখ কাড়ছে অন্যজনের পোস্টারে। পুরোনগরীতে একই অবস্থা।

 

নগরীর উত্তর সুরমায় ব্যস্ততম সুরমা মার্কেট পয়েন্ট, কোর্টপয়েন্টের ওভারব্রিজ, নগরভবন পয়েন্ট, জিন্দাবাজার পয়েন্ট, চৌহাট্টা, আম্বরখানা পয়েন্ট, রিকাবীবাজার পয়েন্ট, মির্জাজাঙ্গাল পয়েন্ট, তালতলা পয়েন্ট, বাগবাড়ি পয়েন্ট, মীরের ময়দান পয়েন্ট, সুবিদবাজার পয়েন্ট, আখালিয়া, নয়াসড়ক, শাহী ঈদগাহ, টিলাগড়, নাইওরপুল, কাজীটুলা, সোবাহানীঘাট, মেন্দিবাগসহ সবক’টি পয়েন্টেই চোখে পড়েছে মেয়র প্রার্থীদের পোস্টার টানানো। তাদের পাশাপাশি কাউন্সিলর প্রার্থীদের পোস্টারও চোখে পড়েছে কিছু কিছু এলাকাতে।

 

অন্যদিকে দক্ষিণ সুরমা কদমতলি মুক্তিযোদ্ধা চত্বর, বাসস্টেশন এলাকা, কাজীরবাজার ব্রিজ এলাকা, মারকাজ পয়েন্ট, বাবনা পয়েন্ট, রেলস্টেশন এলাকা, হুমায়ূন রশীদ চত্বর, ক্বীন ব্রিজ এলাকা, শাহজালাল ব্রিজ এলাকাসহ বিভিন্ন পয়েন্ট ও এলাকাতেও একই অবস্থা চোখে পড়েছে।

 

নগরী ঘুরে দেখা গেছে, মূল পয়েন্টগুলোতে বড় দুই দলের মেয়র প্রার্থী বদরউদ্দিন আহমদ কামরান ও আরিফুল হক চৌধুরীর পোস্টারই বেশি চোখে পড়ছে। তাদের কর্মী বাহিনী কম থাকার কারণে পুরো নগরীতে পোস্টার টানানোর কাজ এখনও সম্পন্ন করতে পারেননি। নগরী ঘুরলেই চোখে পড়ে প্রার্থীদের কর্মীবাহিনী কোন না কোন প্রার্থীর পোস্টার টানানোর কাজে ব্যস্ত।

 

প্রসঙ্গত, সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন ৭ জন মেয়র প্রার্থী, ১২৭ জন কাউন্সিলর প্রার্থী ও সংরক্ষিত নারী আসনে ৬২ নারী কাউন্সিলর পদপ্রার্থী। আগামী ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের চতুর্থ নির্বাচন। এর আগে ২০০৩ সালে প্রথম নির্বাচন, ২০০৮ সালে দ্বিতীয় ও ২০১৩ সালে তৃতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। প্রথম ও দ্বিতীয় নির্বাচনে বদরউদ্দিন আহমদ কামরান, তৃতীয় নির্বাচনে আরিফুল হক চৌধুরী মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *