সুপ্রিম কোর্টের ব্যারেটের কনফার্মেশন শুনানি ১২ অক্টোবর

প্রকাশিত:শুক্রবার, ০২ অক্টো ২০২০ ০৭:১০

সুপ্রিম কোর্টের  ব্যারেটের কনফার্মেশন শুনানি ১২ অক্টোবর

নিউজ ডেস্ক:

সদ্য প্রয়াত সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ লিবারেল জাস্টিস রুথ বেডার জিনসবার্গের শূন্য আসনের জন্য প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মনোনীত ফেডারেল অ্যাপিলেট জাজ অ্যামী কনী ব্যারেটের কনফারমেশন শুনানি শুরু হবে ১২ অক্টোবর। শিকাগো ভিত্তিক ৭ম সার্কিটের ৪৮ বছর বয়স্ক ফেডারেল জাজ ব্যারেটের মনোনয়ন সংখ্যাগরিষ্ঠ সিনেটে কনফার্ম বা চূড়ান্তভাবে অনুমোদন পেলে তিনি প্রয়াত জিনসবার্গের স্থলাভিষিক্ত হবেন।

লুইজিয়ানার নিউ অরলিয়েন্সে জন্মগ্রহণকারী এবং ৭ বছর বয়স্ক সন্তান ও স্বামী জেসে এম ব্যারেটকে নিয়ে বর্তমানে ইন্ডিয়ানার সাউথ ব্যান্ডে বসবাসকারী জাজ ব্যারেটের সাথে সাক্ষাৎ করার এবং কনফার্মেশন শুনানিতে অংশ নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ডেমোক্র্যাটিক হুইপ এবং সিনেট জুডিসিয়ারি কমিটির সদস্য সিনেটর ডিক ডারবিন। সিএনএন-এর মাইকেল স্মারকনিশকে সিনেটর ডারবিন জানান, তিনি কনফার্মেশন শুনানিতে অংশ নেয়ার পরিকল্পনা করেছেন।

অবশ্য কয়েকজন ডেমোক্র্যাটিক সিনেটর নটর ডেম ল স্কুল গ্রেজুয়েট এবং ল স্কুল অধ্যাপক ব্যারেটের সাথে সাক্ষাৎ না করার কথা জানিয়েছেন। ডেমোক্র্যাটদের যুক্তি-তর্ককে আমলে না নিয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গত ২৬ সেপ্টেম্বর পূর্ব ঘোষণা মোতাবেক প্রয়াত জাস্টিস রুথ বেডার জিনসবার্গের শূন্য আসনে ব্যারেটকে মনোনীত করেন।

ব্যারেটের মনোনয়নের যৌক্তিকতা তুলে ধরে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, ৩ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় নির্বাচনের আগেই সুপ্রিম কোর্টের ৯টি আসনই পূরণ করার প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। ট্রাম্প বলেন, করোনা মহামারির সংক্রমণ ঠেকাতে সারা দেশে কয়েক কোটি ভোটার ৩ নভেম্বরের আগেই ভোট দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এবং ডাকযোগে ব্যালট প্রেরণের আবেদন জানিয়েছেন।

তাই ইতিমধ্যে সারা দেশে এবং প্রত্যন্ত অঞ্চলে মেইল-ইন ব্যালট প্রেরণ করা হচ্ছে। উক্ত ব্যালটকে কেন্দ্র করে কোনো ধরনের অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার জন্ম নিলে তার সুষ্ঠু সমাধানের দায়িত্ব সুপ্রিম কোর্টকেই পালন করতে হবে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আরও বলেন, অ্যাফোর্ডেবল কেয়ার অ্যাক্ট নামক জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ সমস্যার ভাগ্যও নির্ধারিত হবে সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তের আলোকে।

নটর ডেম ল স্কুল গ্রেজুয়েট ব্যারেট প্রয়াত রাইট-উইং জাস্টিস অটোরিন স্কালিয়ার ল ক্লার্কের সাথে দক্ষতার সাথে সম্পাদন করেন। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৭ সালে ব্যারেটকে ৭ম সার্কিট কোর্টে নিয়োগ দিয়েছিলেন এবং অ্যাপিলেট জাজ হিসেবে তিনি শিকাগো ছাড়াও ইলিনয়, ইন্ডিয়ানা এবং উইসকনসিনের গুরুত্বপূর্ণ মামলায় বিশেষ অবদান রেখেছিলেন।

চলতি বছরের জুন মাসে পাবলিক চার্জের কারণে গ্রীনকার্ড লাভের পথে অন্তরায় সৃষ্টিকারী একটি আইনের বিরুদ্ধে তিনি সিদ্ধান্ত দিয়ে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছিলেন। সিনেটে ব্যারেটের মনোনয়ন চূড়ান্ত অনুমোদন পেলে সুপ্রিম কোর্টে কনজারভেটিভ এবং লিবারেল জাস্টিসের সংখ্যা দাঁড়াবে ৬ ও ৩। সঙ্গত কারণে বলতে হচ্ছে, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পই উচ্চ আদালত ও সুপ্রিম কোর্টসহ সর্বাধিক সংখ্যক বিচারক নিয়োগের সুযোগ পেয়েছেন।

এই সংবাদটি 1,229 বার পড়া হয়েছে

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •