হাতি আতঙ্ক মৌলভীবাজারে

হাতি আতঙ্কে ভুগছেন মৌলভীবাজারের জুড়ি উপজেলার সাগরনাল বাঁশমহাল এলাকার মানুষ। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে প্রশাসন আশঙ্কা করছে প্রাণহানির। এরই মধ্যে হাতির আক্রমণে মারা গেছেন একজন আহত হয়েছেন ৫ জন। হাতি ভাঙচুর করেছে ৩টি গাড়ি।

বনবিভাগ বলছে ব্যক্তিগত এই হাতি যুগলদের কোন অনুমতি ছাড়াই বনে ছেড়ে দিয়েছেন তার মালিক। হাতির আক্রমণে একজন মারা যাওয়ায় পরপর হাতি দুইটির মালিক কুলাউড়া উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়নের রাজনগর গ্রামের সাবেক মেম্বার ফরিদ আলী মোবাইল বন্ধ করে পলাতক রয়েছেন।

জুড়ি থানা পুলিশ বলছে একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে তবে এটি হত্যা মামলা হিসেবে নেওয়া হবে নাকি কিনা তা জানার জন্য উপর মহলে লিখিত দিয়েছেন এবং বনবিভাগের আইনে পোষ্য হাতির ব্যাপারে তাদেরকেও চিঠি দেওয়া হয়েছে।

বনবিভাগ বলছে, হাতিটির এখন প্রজনন সময়, এই সময়ে হাতি অস্থির থাকে তাই এমনটা করছে। হাতি বনে ছাড়ার আগে যেহেতু বনবিভাগের অনুমতি নেওয়া হয়নি তাই এই দায় এড়াতে পারেন না হাতির মালিক।

গত কয়দিন ধরেই পালিত দুটি হাতি নিয়ে চরম আতঙ্কে আছেন সাগরনাল বাঁশমহালের পাশ দিয়ে চলাচলকারী কুলাউড়া-জুড়ি উপজেলার মানুষ। বুধবার সকালে হাতির আক্রমণে একজনের মৃত্যু হওয়ায় সে আতঙ্ক আরও বেড়েছে।

জানা যায়, মঙ্গলবার (১৮ সেপ্টেম্বর) রাত আনুমানিক ৮টায় মোটরসাইকেল যোগে কুলাউড়া থেকে ফুলতলা যাবার পথে সাগরনাল চা এলাকায় রাস্তায় হাতির আক্রমণের শিকার হন কুলাউড়া উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আজমল আলী শামীম। এর পরেরদিন বুধবার সকালে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

এরআগে গত সোমবার রাত আনুমানিক ১০টায় কুলাউড়া সদর ইউনিয়নের গাজীপুর-ফুলতলা রোডের পূর্ব উগলি নামক স্থানে রাস্তা দিয়ে ট্রাক, সিএনজি ও একটি প্রাইভেট কার যোগে ১০-১৫ জন যাচ্ছিলেন। এসময় হঠাৎ জোড়া হাতি গাড়ি ও লোকজনের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। ভয়ে লোকজন গাড়ি ফেলে পার্শ্ববর্তী একটি উঁচু টিলায় আশ্রয় নেন। এসময় টিলায় উঠতে গিয়ে অন্ধকারের মধ্যে পড়ে ৫ যাত্রী আহত হন। পরে হাতিগুলো লোকজন না পেয়ে হামলা চালিয়ে ৩টি গাড়ি ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে কুলাউড়া থানা পুলিশ মাহুত (হাতির চালক) নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে হাতিগুলো কৌশলে তাড়িয়ে লোকজন এবং গাড়িগুলো উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

হাতির আক্রমণে মারা যাওয়া শামীমের সঙ্গী ছিলেন কুলাউড়া উপজেলার ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নের বাসিন্দা শাহীন চৌধুরী জানান, কুলাউড়া শহর থেকে গাজীপুর চা বাগান হয়ে জুড়ী উপজেলার ফুলতলায় যাবার মুহূর্তে আদি মোকাম টিলা নামার মুহূর্তে সামনে দুটি হাতি দেখতে পান। এসময় মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে হাতি তাদের সামনে চলে আসে। এসময় তারা দু’জন আত্মরক্ষায় দুদিকে পালিয়ে যান। এরপর থেকে নিখোঁজ হন আজমল আলী শামীম। এদিকে শাহীন চৌধুরী পালিয়ে গিয়ে সাগরনাল চা বাগানের শ্রমিকদের ঘটনা জানান। পরে সকালে শামীমের লাশ রাস্তার পাশ থেকে উদ্ধার করে জুড়ী থানা পুলিশ।

কুলাউড়া রেঞ্জের সহযোগি রেঞ্জ অফিসার রিয়াজ উদ্দিন জানান, কুলাউড়া উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়নের রাজনগর গ্রামের সাবেক মেম্বার ফরিদ আলী বনবিভাগের কোন অনুমতি ছাড়াই তার দুটি হাতিকে সাগরনাল বাশমহালে ছেড়ে দিয়েছেন। প্রজনন সময়ে হাতি খুব উগ্র আচরণ করে সেটা মালিকের জানার কথা। হাতির মালিক যদি পায়ে একটা শিকল দিয়েও ছেড়ে দিত তাহলেও প্রাণহানির ঘটনা ঘটনা।

জুড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, ব্যাপক প্রাণহানির আশঙ্কা জানিয়ে পুলিশ সুপার এবং জেলা প্রশাসক স্যারকে চিঠি দিয়েছি এবং বন বিভাগকে তাদের আইন বুঝার জন্য চিঠি দিয়েছি। হাতি দুইটির মালিকের সাথে যোগাযোগ করা যাচ্ছেনা তাই প্রয়োজনে বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, হত্যা মামলা হবে কিনা তা জানতে উপর মহলে যোগাযোগ করছি কারণ এই ধরনের ঘটনার পূর্ব অভিজ্ঞতা নেই।