৪০ হাজার পরিবারের দায়িত্ব নিলেন এমপি শিবলী সাদিক

প্রকাশিত: ৭:৩৯ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ৩১, ২০২০

৪০ হাজার পরিবারের দায়িত্ব নিলেন এমপি শিবলী সাদিক

 

নবাবগঞ্জ(দিনাজপুর) :
করোনার প্রভাবে বেকার হয়ে পড়া হতদরিদ্র ৪০ হাজার অসহায় পরিবারের খাবারের দায়িত্ব নিয়েছেন দিনাজপুর ৬ আসনের (বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, ঘোড়াঘাড়, হাকিমপুর) সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক। ইতিমধ্যে ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ৪০হাজার পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী দেওয়ার প্রস্ততি হিসেবে আফতাবগঞ্জ বাজারসহ তার নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন গোডাউনে কয়েকটি স্বেচ্ছাসেবক টিমের মাধ্যমে এ খাবার সামগ্রী প্যাকেটিং এর কাজ চলমান রয়েছে। দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ও দেশের সার্বিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে না আসা পর্যন্ত এ কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন এমপি শিবলী সাদিক।
তিনি বলেন, করোনাভাইরাসে সারাবিশ্ব আতঙ্কিত,কর্মহিন শ্রমজীবি মানুষ। তাই এই চার উপজেলার অসহায় পরিবার যাদের প্রতিদিনের কর্মে চলে সংসারের চাকা, তাদের প্রতিটি পরিবারের বাড়ি বিড়ি ঘুরে বিতরণ করা হবে এই খাবার সামগ্রী। খাবার সামগ্রীর মধ্যে থাকবে চাল, ডাল, লবণসহ সংসারের নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী। এ ছাড়াও এই সময়ে ওই মানুষগুলোর ওষুধসহ প্রয়োজনে এসব পরিবারের মানুষদের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার জন্য সাবান ও স্যানিটাইজারও বিতরণ করা হবে।
গত (৩০মার্চ) সোমবার স্বপ্নপুরীর আফতাবগঞ্জ বাজারের ২টি গোডাউনে প্যাকেটিং এর কাজ পরিদর্শনের সময় এমপি শিবলী সাদিক বলেন, বিশ্বব্যাপি ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সারা দেশে সরকার অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সরকার দেশবাসীকে আগামী অল্পকিছুদিন ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন, ফলে ঘরে বসে থাকা অনেক নিম্ন আয়ের মানুষ সাময়িক সময়ের জন্য সমস্যায় পড়বেন। ইতিমধ্যে সরকার এসব খেটে খাওয়া নি¤œ আয়ের মানুষের জন্য ত্রাণের ব্যবস্থা করেছেন। এর বাইরে আমার নির্বাচনী এলাকার চার উপজেলার নিম্ন আয়ের অসহায় মানুষদের কথা ভেবে আমার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ৪০ হাজার পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী দেওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।
তিনি আরও বলেন,করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য নবাবগঞ্জ, বিরামপুর, হাকিমপুর ও ঘোড়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তারদের পিপিইসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্যসামগ্রী কেনার জন্য আমার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ১০ লাখ টাকা দেয়া হয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •