ইলেকশন নিউজ

গোলাপগঞ্জে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ইকবাল চৌধুরী এগিয়ে

গোলাপগঞ্জে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ইকবাল চৌধুরী এগিয়ে

সিলেটের গোলাপগঞ্জে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এডভোকেট ইকবাল আহমদ চৌধুরী।   সবকটি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ শেষে নিকটতম প্রার্থী থেকে প্রবীন এই রাজনীতিবিদ বিশাল ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানপদে নাজিরা বেগম শিলা,ও মনসুর আহমদ এগিয়ে আছেন বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। বিস্তারিত আসছে…….  
সদরে এগিয়ে আশফাক

সদরে এগিয়ে আশফাক

সিলেট সদর উপজেলা নির্বাচনে এ পর্যন্ত প্রাপ্ত ফলাফলে বিশাল ব্যবধানে এগিয়ে আছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নৌকা প্রতীকের আশফাক আহমদ।   চেয়ারম্যান পদে এ পর্যন্ত পাওয়া ৪১টি কেন্দ্রের ফলাফলে আশফাক আহমদ পেয়েছেন ২৫৫৯৭ ভোট।   শুরুর দিকে ভোটের ফলাফলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুললেও এখন ভোটের ব্যবধানে অনেকটা পিছিয়ে গেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মাজহারুল ইসলাম ডালিম।     আশফাক আহমদের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে মাজহারুল ইসলাম ডালিম (আনারস প্রতীক) পেয়েছেন ৮৬০৭ ভোট।   আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী অ্যাড. নূরে আলম সিরাজী (মোটরসাইকেল প্রতীক) পেয়েছেন ২৬১৫ ভোট।   সিলেট সদর উপজেলার মোট ভোট কেন্দ্র ৯১টি। মোট ভোটার সংখ্যা ২ লক্ষ ১৯ হাজার ৩৩৫।  
সিলেটে অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই ভোট গ্রহণ শেষ, চলছে গণনা

সিলেটে অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই ভোট গ্রহণ শেষ, চলছে গণনা

ছোট খাটো বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটলেও কোন ধরণের উশৃঙ্খলতা-অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সিলেটে শেষ হয়েছে ২য় ধাপের উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। সিলেট ও মৌলভীবাজারে ১৯টি উপজেলায় ভোট গণনা চলছে। সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ কার্যক্রম চলে।   সিলেট জেলার উপজেলাগুলো হচ্ছে- সিলেট সদর, বিশ্বনাথ, দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ, বালাগঞ্জ, কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, কানাইঘাট, জকিগঞ্জ, গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার। মৌলভীবাজার জেলার উপজেলাগুলো হচ্ছে- মৌলভীবাজার সদর, বড়লেখা, জুড়ী, কুলাউড়া, রাজনগর, কমলগঞ্জ ও শ্রীমঙ্গল উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।     সিলেট ও মৌলভীবাজারের ১৯ টি উপজেলায় মোট ভোটারের সংখ্যা প্রায় ৩০ লাখ ৯১ হাজার ২২১ ভোটার ১৩৩৫ ভোটকেন্দ্রে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এর মধ্যে সিলেট জেলার ১২ উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ১৭ লাখ ৯৩ হাজার ৭১০ জন। যার মধ্যে
সিলেটের ১২ উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে

সিলেটের ১২ উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে

পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে সিলেট জেলার ১২ উপজেলায় সোমবার সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে। ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হলেও সকাল ৯টা পর্যন্ত সিলেট সদর উপজেলার বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে ভোট পড়েনি বলে জানা গেছে। তবে কেন্দ্র গুলোতে ভোটারদের উপস্থিতি কম। নেই দীর্ঘ লাইন। বিচ্ছিন্নভাবে দুই একজন এসে ভোট দিয়ে যাচ্ছেন।   সিলেট সদর উপজেলার ৫নং টূলটিকর ইউনিয়নের ১,২,৩ নং ওয়ার্ডের ভোটকেন্দ্র হলো মীরাপাড়া আব্দুল লতীফ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। তিনটি এলাকার প্রায় তিন হাজারের বেশী ভোটার থাকলেও ভোট শুরু হওয়ার আধা ঘন্টা পর্যন্ত কোন ভোট পড়েনি।   ঐ কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা প্রিজাইডিং অফিসার পৃথিশ সরকার জানান, সকাল সাড়ে আটটা পর্যন্ত কোন ভোটার আসেননি। কেন্দ্রের পোলিং এজেন্টরা নির্বাচনী সরঞ্জাম নিয়ে প্রস্তুত আছেন বলে জানান তিনি।   এছাড়
দিরাই উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মোটর সাইকেল প্রতীকের মোঃ মঞ্জুর আলম চৌধুরী

দিরাই উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মোটর সাইকেল প্রতীকের মোঃ মঞ্জুর আলম চৌধুরী

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটের ব্যবধান বেশি না হলেও ব্যতিক্রমী চমক দেখাতে পেরেছেন দিরাই উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মোটর সাইকেল প্রতীকের মোঃ মঞ্জুর আলম চৌধুরী। মাত্র ৬২ ভোটের ব্যবধানে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নৌকা প্রতীকের প্রদীপ রায়কে পরাজিত করার কারণে খোদ দলের ভেতরেই চলছে হিসেব-নিকেশ। ১০ মার্চ পঞ্চম উপজেলা পরিষদের প্রথম ধাপে অনুষ্ঠিত হয় সুনামগঞ্জের দিরাইসহ দেশের ৭৮টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। সে নির্বাচনে দিরাইয়ে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রদীপ রায়, দিরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের মোঃ আলতাব উদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী মোটর সাইকেল প্রতীকের মোঃ মঞ্জুর আলম চৌধুরী ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকের রঞ্জন কুমার রায় নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। সকাল ৮টা থেকে ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে
ঢাকা উত্তর সিটি নির্বাচন : পাঁচ প্রার্থীর তিনজনই কোটিপতি

ঢাকা উত্তর সিটি নির্বাচন : পাঁচ প্রার্থীর তিনজনই কোটিপতি

  ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদের উপ-নির্বাচনে বৈধ পাঁচ প্রার্থীর মধ্যে তিনজনই কোটিপতি। এরমধ্যে আওয়ামী লীগের মো. আতিকুল ইসলাম, এনডিএমের ববি হাজ্জাজ ও স্বতন্ত্র মোহাম্মদ আব্দুর রহিম ব্যবসায়ী এবং কোটিপতি হিসেবেই পরিচিত। তবে কোটিপতি হলেও আতিকুলের নিজের গাড়ি নেই। আর নিজের বাড়ি নেই ববি হাজ্জাজের। রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে জমা দেওয়া হলফনামা থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে। আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচন হবে। ছয়জন মনোনয়নপত্র জমা দিলেও বাছাইয়ে বাদ পড়েছেন জাতীয় পার্টি-জাপার প্রার্থী শাফিন আহমেদ। তবে তিনি গতকাল বিভাগীয় কমিশনারের কাছে আপিল করেছেন। হলফনামা থেকে জানা গেছে, আতিকুল ১৬টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক। তার বার্ষিক আয় কোটি টাকার বেশি। এরমধ্যে কৃষিখাতে সাড়ে ৩ লাখ টাকা, ভাড়া বাবদ সাড়ে ৩৬ লাখ টাকা; ব্যবসা থেকে সাড়ে ৫১ লাখ টাকা এবং অন্যান্য খাত থেকে আয় প্রায় ১৮ লাখ টা
ডাকসু নির্বাচনে ৩০ বছরের বেশি হলে অযোগ্য

ডাকসু নির্বাচনে ৩০ বছরের বেশি হলে অযোগ্য

ডেস্ক রিপোর্ট ::ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল ছাত্র সংসদ নির্বাচনে কারা কারা ভোটার ও প্রার্থী হতে পারবেন তা ঘোষণা করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। যারা প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে অনার্স, মাস্টার্স, এমফিলে অধ্যয়নরত তারাই কেবল ভোটার ও প্রার্থী হতে পারবেন। এক্ষেত্রে কারও বয়স ৩০ বছরের ওপরে হলে তারা ভোটার ও প্রার্থী হতে পারবেন না। এছাড়া সান্ধ্যকালীন বিভিন্ন কোর্স, প্রোগ্রাম, প্রফেশনাল এক্সিকিউটিভ, স্পেশাল মাস্টার্স, ডিপ্লোমা, এমএড, পিএইচডি, ডিবিএ, ল্যাঙ্গুয়েজ কোর্স, সার্টিফিকেট কোর্স অথবা এ ধরনের কোর্সে অধ্যয়নরতরা ডাকসু নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। প্রত্যেক হলে ভোটকেন্দ্র স্থাপন করা হবে। ক্রিয়াশীল ছাত্র সংগঠনের প্রস্তাবনার ভিত্তিতে কয়েকটি সম্পাদকীয় পোস্ট বাড়ানো হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী
নির্বাচনের রাতের কাহিনী বিএনপি তো দুরের কথা দেশের কেউই জানতেন না: রনি

নির্বাচনের রাতের কাহিনী বিএনপি তো দুরের কথা দেশের কেউই জানতেন না: রনি

  গোলাম মাওলা রনি: এমনকি কেউ দুঃস্বপ্নেও সেদিনের ঘটমান প্রহসন এবং আগের রাতের র্দূবৃত্তপনার কাহিনী কল্পনা করেনি। এমনকি যারা ওসব করেছে তারাও বলতে পারতেন না তাদের ছোঁড়া তীর কতোদুর গিয়ে কতজনকে বিদ্ধ করবে এবং কতোটা গভীরতা নিয়ে প্রতিপক্ষকে রক্তাক্ত করবে। ফলে যা হবার তাই হয়েছে। সুতরাং যারা নিজেদেরকে অসহায়, ক্ষতিগ্রস্থ ও সম্বলহীন ভাবছেন তাদের উচিত দয়া করে অপেক্ষা করা এবং প্রকৃতির কার্যকারন সম্পর্কে আশাহত না হওয়া। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে- বিএনপির কিছু শুভার্থী বোধ হয় পাগল হয়ে গিয়েছেন। তারা বিভিন্ন এঙ্গেল থেকে বহুমুখী কথাবার্তা বলে যে বিভ্রান্তী ছড়াচ্ছেন তা শেষ পর্যন্ত বিএনপির বিরুদ্ধে চলে যাচ্ছে। কেউ কেউ বিএনপিকে আন্দোলন করার পরামর্শ দিচ্ছেন- অনেকে আবার নেতৃত্ব পরিবর্তন সহ কাউন্সিল ডাকার যুক্তি খাড়া করেছেন। দুই একজন অবশ্য সংসদে যাওয়ার ব্যাপারেও আগ্রহ দেখাচ্ছেন। আমার মত
ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ছফু

ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ছফু

ডেস্ক রিপোর্ট :: আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে রাজনগর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে চান মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার উত্তরভাগ ইউনিয়নের কৃতিসন্তান বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সাবেক সদস্য সাইফুল আহমদ ছফু। জাতীয় নির্বাচনের আমেজ শেষ না হতেই শুরু হয়েছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের আমেজ। ফেব্রুয়ারির শুরুতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তফশিল আর মার্চে সারা দেশে ধাপে ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছে ইসি। সাইফুল আহমদ ছফু কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পূর্বে তিনি সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন। এর পূর্বে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সদস্য হয়ে কাজ করেন নিজ উত্তরভাগ ইউনিয়নে। রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক, শিক্ষামূলকসহ অনেক সেবামূলক কাজে জড়িত রয়েছেন ছফু। ছাত্রনেতা হিসেবে বিভিন্ন কাজে সাধারণ মানুষের কাছে ছুটে যাওয়ার পাশাপ
ঠাকুরগাঁওয়ে হেরে বগুড়ায় জয় ফখরুলের

ঠাকুরগাঁওয়ে হেরে বগুড়ায় জয় ফখরুলের

ঠাকুরগাঁওয়ে নিজ আসনে হেরে বগুড়ায় দলীয় চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার আসনে বড় ব্যবধানে জিতলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ঠাকুরগাঁও-১ আসনে ফখরুল হেরেছেন প্রায় এক লাখ ভোটে। আর বগুড়া-৬ আসনে জিতেছেন দুই লাখ ২০ হাজার ভোটে। ১৯৯১ সাল থেকে ঠাকুরগাঁও-১ আসনে ভোটে লড়ছিলেন ফখরুল। জিতেছেন কেবল ২০০১ সালে। বাকি প্রতিবার পরাজয় হয়েছে বড় ব্যবধানে। আর বেগম খালেদা জিয়া বগুড়া-৬ আসনে। এখানে ধানের শীষ মানেই জয়। কখনো হারেনি এখানে বিএনপির প্রার্থীরা। ঠাকুরগাঁও-১ আসনে নৌকা নিয়ে জিতেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন। ১৭৫টি কেন্দ্রে পেয়েছেন দুই লাখ ২৪ হাজার ৭৮ ভোট। আর এক এক লাখ ২৫ হাজার ৯০৯ ভোট পেয়েছেন বিএনপি নেতা। দুই জনের মধ্যে ব্যবধান ৯৮ হাজার ১৬৯ ভোটের। ২০০৮ সালে এই আসনে মুখোমুখি হয়েছিলেন দুই নেতা। তখন ফখরুল হারেন ৫৬ হাজার ৬৯০ ভোটে। বগুড়া-৬ আসনে ফখরুল ভোট পেয়েছেন থেকে বড় ব্যবধানে জয় পেয়