কানাডা

কানাডার এক্সপ্রেস এন্ট্রির আমন্ত্রন পাওয়ার দুটি শব্দচিত্র

কানাডার এক্সপ্রেস এন্ট্রির আমন্ত্রন পাওয়ার দুটি শব্দচিত্র

মনে করুন আফজাল (কল্পিত নাম) একজন ৩৫ বছরের যুবক বিগত ০৪ বছর ধরে ম্যানেজম্যান্ট কনসালটেন্ট হিসাবে কর্মরত রয়েছেন। উনি কানাডার এক্সপ্রেস এন্ট্রি পদ্ধতিতে আবেদন করে পার্মামেন্ট রেসিডেন্ট হিসাবে আসতে চান। উনার ইংরেজীতে দক্ষতা অনেক ভাল এবং আইএলটিএস এ প্রতিটি মডিউলে উনি ৮ করে পেয়েছেন। আফজাল সাহেবের কিন্তু কানাডা থেকে কোন জব-অফার নেই, কানাডাতে উনি কোন কাজও করেননি কখনও অথবা এখান থেকে যে কোন ডিগ্রী নিয়েছেন সেটাও নয়। গত ২৪ জানুয়ারী যে ড্র হয়েছে, তাতে উনি ৪৪৫ সিআরএস পয়েন্ট পেয়ে আইটিএ পেয়েছেন। গত ড্রতে সর্বনি¤œ ৪৪৪ পয়েন্ট যারা পেয়েছেন, তারাই ইনভিটেশন পেয়েছেন। এর আগে গত ১০ জানুয়ারী, ২০১৮ এর ড্রতে সর্বনি¤œ পয়েন্ট ছিলো ৪৪৬।   এবার ধরুন আয়েশা বিবির কথা (কল্পিত নাম)। ২৯ বছরের আয়েশা বিবি গত ০২ বছর ধরে কানাডাতে প্রোগ্রামার হিসাবে কাজ করছেন। এর আগে উনি আলবার্টা প্রদেশ থেকে ব্যাচেলর ডিগ্রী করেছেন। আয়ে
কানাডায় বালিকার হিজাবে ‘কাঁচি নিয়ে হামলা’, তদন্তে পুলিশ

কানাডায় বালিকার হিজাবে ‘কাঁচি নিয়ে হামলা’, তদন্তে পুলিশ

এক ব্যক্তি শিশু এক বালিকার হিজাব কেটে ফেলার চেষ্টা করার পর ঘটনাটিকে সম্ভাব্য ‘হেট ক্রাইম’ ধরে নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে কানাডীয় পুলিশ।   ১১ বছর বয়সী খাওলাহ নোমান ও তার ভাই টরেন্টোর রাস্তা দিয়ে হেঁটে স্কুলে যাচ্ছিল, এ সময় এক লোক কেচি নিয়ে খাওলাহর পেছনে আসে বলে জানিয়েছে তারা, খবর বিবিসির।   খাওলাহ জানিয়েছে, সে চিৎকার করলে হামলাকারি দৌঁড় দেয়, কিন্তু ফিরে এসে তার মাথায় পড়া হুড টেনে খুলে তার হিজাব কেটে দেয়।   হামলাকারীকে ২০ থেকে ৩০ বছর বয়সী, পাঁচ ফুট সাত থেকে আট ইঞ্চি উচ্চতার পাতলা গড়নের এশীয় বলে বর্ণনা করেছে পুলিশ।   তার মাথায় ভ্রু পর্যন্ত ছাঁটা কালো চুল, মুখে পাতলা গোফ ও কালো চশমা ছিল বলে জানিয়েছে ওই ভাইবোন। তার পরনে ছিল কালো হুডওয়ালা সুয়েটার, কালো প্যান্ট ও বাদামি হাতমোজা।   শুক্রবার টরেন্টোর পাওলিন জনসন জুনিয়র পাবলিক স্কুলে এক সংবাদ সম্মেলন
হিউম্যানিটারিয়ান এ্যান্ড কমপ্যাশনেট গ্রাউন্ডে কানাডাতে পার্মানেন্ট রেসিডেন্ট

হিউম্যানিটারিয়ান এ্যান্ড কমপ্যাশনেট গ্রাউন্ডে কানাডাতে পার্মানেন্ট রেসিডেন্ট

মো: হাসান সাজ্জাদ ইকবাল : ধরুন আপনি কানাডাতে আছেন কিন্তু আপনার বর্তমানে এখানে কোন স্ট্যাটাস নাই। শুধু তাই নয়, আপনি অন্য কোনভাবেই এখানে লিগালি থাকার জন্য কোন পথ খুজে পাচ্ছেন না। আপনাকে আপনার স্বামী বা স্ত্রী যে স্পন্সর করবে সে ব্যবস্থা বা সুযোগ আপনার নাই, কোন কারনে আপনি রিফিউজি হওয়ার আবেদন করার যোগ্য নয় কিংবা আপনি টেম্পোরারি রেসিডেন্ট হিসাবেও আবেদন করতে পারছেন না। আপনি এখানে লিভ-ইন-কেয়ারগিভার হিসাবে কাজ করছেন না যে কিছুদিন পরে পার্মামেন্ট রেসিডেন্ট হতে পারবেন। অথবা ধরুন আপনি রিমুভাল আদেশ পেয়ে গেছেন এবং আপনি কিছুতেই কুল কিনারা করতে পারছেন না কি করবেন। এদিক ওদিক ছোটাছুটি করছেন। আপনি দির্ঘদিন কানাডাতে বসবাস করেছেন, আপনি বেশ ভালভাবে কানাডার সমাজে মিশে গ্যাছেন, আপনি আপনার দেশে গেলে বিরাট বিপদের সন্মুখিন হবেন, নিজ দেশের কোন প্রান্তেই আপনার নিরাপত্তা নাই। অথবা এখানকার সেটেলম্যান্ট ছেড়ে দেশে গিয়
বাংলা‌দে‌শের প‌রি‌বেশ রিফুউ‌জিদের জন্য কানাডায় সু‌যোগ

বাংলা‌দে‌শের প‌রি‌বেশ রিফুউ‌জিদের জন্য কানাডায় সু‌যোগ

কানাডা প্র‌তি বছর ক‌য়েক লক্ষ নতুন অ‌ভিবাসী‌কে স্বাগত জানায়। এঁদের বেশীর ভাগের এ‌দে‌শে আগমন ঘ‌টে স্কিল্ড ইম‌গ্রিান্ট ও রেফুউ‌জি হি‌সে‌বে।   যুদ্ধ‌বিধস্ত দেশ থে‌কে যেমন অ‌নে‌কে রেফু‌উ‌জি হি‌সে‌বে আ‌সেন, আবার অন্যান্য দেশ, যেখা‌নে যুদ্ধ‌বিগ্রহ হয়ত নেই ‌কিন্তু সে সমস্ত দেশ থে‌কেও রিফুউ‌জি হ‌য়ে আ‌সেন। জোর প‌ুর্ব্বক যা‌দের‌কে নিজ ভূ‌মি থে‌কে উ‌চ্ছেদ করা হ‌য়ে‌ছে, তা‌দের‌কে কানাডা আশ্রয় দি‌য়ে মান‌বিকতা দেখান। আবার যারা নিজ দে‌শে রাজনী‌তি, ধর্ম, মুক্ত বু‌দ্ধিচর্চা, ভিন্ন ধর‌নের সেক্সচুয়াল ও‌রিয়ে‌ন্টেশনের জন্য অপ‌রের দ্বারা প্রান সংহা‌রের ভ‌য়ে থা‌কেন, তারাও কানাডায় আশ্রয় পান। এ আশ্রয় ক্ষ‌নি‌কের জন্য নয়। একবা‌রে স্থায়ী আশ্রয়। সব কিছু ঠিক থাক‌লে ক‌য়েক বছ‌রের ম‌ধ্যে, রেফুউ‌জি ব্য‌ক্তিগন কানাডার নাগ‌রিক হ‌য়ে যান।   কানাডা‌তে ‌রেফুউজি বা আশ্রয় প্রার্থনার কারনগু‌লোর ম‌ধ্যে সম্প্র‌ত
ইতিহাসের সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড গড়লো কানাডা

ইতিহাসের সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড গড়লো কানাডা

বছর শুরুতেই তাপমাত্রার রেকর্ড গড়লো কানাডা। দেশটিতে ইতিহাসের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। গত ২ জানুয়ারি (মঙ্গলবার) কুইবেকের লা গ্রান্ডেতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল মাইনাস ৪৮.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শুধু কুইবেকে নয়; আলবার্টা, অন্টারিওসহ চার প্রদেশেই সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড এটি।   এদিকে তাপমাত্রার কারণে জনজীবনেও বিরূপ প্রভাব পড়েছে দেশটিতে। দেশটির বিমানবন্দরের বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে জানা গেছে, বেশ কয়েকটি ফ্লাইট চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা বিলম্বিত হয়েছে। শত শত ফ্লাইট বাতিল হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে।   টরন্টো, মন্ট্রিয়ল, অটোয়াসহ বিভিন্ন বিমানবন্দরে যাত্রীদের ভ্রমণের বিষয়ে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে। পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা ফ্লাইট অ্যাওয়ার জানিয়েছে, শুধু টরন্টো বিমানবন্দরেই প্রায় ৫০০ ফ্লাইট বাতিল বা বিলম্বিত হয়েছে।  
কানাডার সাসকাটুনে বিজয় দিবস পালন

কানাডার সাসকাটুনে বিজয় দিবস পালন

সাসকাটুনে ৩০ ডিসেম্বর শনিবার বাংলাদেশী কমিউনিটি এসোসিয়েশন অব সাসকাচুয়ানের (বিকাস)  উদ্যোগে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় বাংলাদেশের মহান বিজয় দিবস পালন করা হয়। সাসকাটুনে লরিয়ের ড্রাইভের কসমো সিভিক সেন্টারে কানাডা ও বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুভ সুচনা হয়। সদ্য বিলুপ্ত কমিটির  প্রেসিডেন্ট জাকির হোসেনের পরিচালনায় বিজয় দিবসের ঐতিহাসিক গুরুত্ব এবং বাঙ্গালীর সাংস্কৃতিক পদচারনা নিয়ে প্রামান্যচিত্র প্রদর্শনের মাধ্যমে  সাংস্কৃতিক পর্ব শুরু হয় । এরপর বাংলা হ্যারিটেজ স্কুলের ঋতি, ঐশী , পূর্ণতা, শ্রিদুলা, মধুরিমা, রিভি, রায়েসা, দেবি, দিপা আর পারিজাত   পরিবেশন করে ' সূর্যোদয়ে তুমি, সূর্যাস্তে তুমি' , 'ও আমার বাংলা মাগো ' সংগীত আর ' মাগো ধন্য হলো' গানের সাথে নৃত্য  ।  নির্ঝর, আলাভি, অর্থি, পরমিতা, প্রমি, অর্পা, টুম্পা, প্রকৃতি, প্রার্থনা, মাশরাফি,আসিফ, লাসির, অরিন্দমসহ আরো অনেক স্থা
মন্ট্রিয়লে ‘তারেক রহমান ও বাংলাদেশ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

মন্ট্রিয়লে ‘তারেক রহমান ও বাংলাদেশ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

বাংলাদেশ পলিসি ফোরাম কানাডার উদ্যোগে গত ২৪ ডিসেম্বর মন্ট্রিয়লের পার্কভিউ রিসিপশন হলে " তারেক রহমান ও বাংলাদেশ " শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উম্মোচন অনুষ্ঠিত হয়। কানাডিয়ান পারলামেন্টের ককাসের সাবেক চেয়ারপারসন ও সাবেক এমপি  লুইস মার্সেল এবং ফায়সাল আহমেদ চৌধুরী বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন।   বইটির মোড়ক উম্মোচন কালে  লুইস মার্সল বলেন, বাংলাদেশের সাবেক প্রধান মন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান যখন তৎকালীন তত্বাবধায়ক সরকারের আমলে গ্রেফতার হয়েছিলেন তখন আমরা তাদের মুক্তি চেয়েছিলাম । তৎকালীন কানাডিয়ান পারলামেন্টের আমরা ৭২ জন সংসদ সদস্য কানাডিয়ান পারলামেন্টে প্রস্তাব উত্থাপন করি এবং তাদের মুক্তির ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য তত্বাবধায়ক সরকারের কাছে সুপারিশ করি । কিন্তু দু:খের বিষয় আজ পর্যন্ত বাংলাদেশে কোন গনতান্তিক অবস্থা ফিরে আসে নাই । আমাদের বিশ্বাস অচিরেই বাংলাদেশে সব দলের অংশগ্রহনের মা
জীবন দর্শনের আনন্দযজ্ঞে নিমন্ত্রণ

জীবন দর্শনের আনন্দযজ্ঞে নিমন্ত্রণ

অগ্রসর বিশ্বের তরুণ প্রজন্ম আজকাল ভোগবাদের স্থূল ফাঁদ থেকে বেরিয়ে আসতে চেষ্টা করছে। জীবন ধারণের ক্ষেত্রে যতটুকু না হলেই নয়; ঠিক ততটুকু ব্যয় করছে তারা। বড় এপার্টমেন্ট বা বড় গাড়ি কিনে অযথা বেশী অর্থ লগ্নি করতে চাইছে না কেউ। একে মিনিমালিস্টিক এপ্রোচ বলা হচ্ছে।   একটা ছোট এপার্টমেন্টেই স্পেসকে কীভাবে সর্বোচ্চ ব্যবহার করা যায়; সে চেষ্টা করছে নতুনেরা। গাড়ি না কিনে পাবলিক ট্রান্সপোর্ট বা ট্যাক্সিতে যাতায়াতের কাজ চালিয়ে নেয়াই বেশি যুক্তিসংগত মনে করছে তারা। যাদের কাজ অনলাইন নির্ভর; তারা শহর ছেড়ে গ্রামের দিকে চলে যাচ্ছে। শুধু নতুন প্রজন্ম কেন; চাকরি থেকে অবসর নেয়া প্রজন্ম এখন গ্রামে বসবাসকেই বেছে নিচ্ছেন শান্তিপূর্ণ ও পরিবেশ বান্ধব জীবন যাপনের জন্য।   নতুন প্রজন্ম চলে আসা ক্লিশে জীবন দর্শন থেকে বেরিয়ে আসছে এমন ইঙ্গিত স্পষ্ট। আগের প্রজন্মে বড় গাড়ি-বড় বাড়ির পেছনে অর্থ লগ্নি করা ল
“প্রত্যয়’ এর মিলনমেলা”

“প্রত্যয়’ এর মিলনমেলা”

প্রত্যয় কানাডা এর  সদস্য, উপদেষ্টা ও সুভানুদ্ধায়ীরা গত ২৫ শে ডিসেম্বর ২০১৭ তে মিলিত হন মিতা হাউজে সবার পরিবার-পরিজন ও বন্ধু-বান্ধব সহ। কানাডায় বড়দিনের ছুটির আমেজে সবাই ছিলেন উৎফুল্ল ও উৎসবমুখর।   উক্ত অনুষ্ঠানে পারিবারিক পরিবেশে মজাদার সব দেশীয় খাবার পরিবেশন করা হয়,  অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করে সব উপস্থিত সদস্যবর্গকে মাতিয়ে রাখেন প্রত্যয় কানাডার জনপ্রিয় শিল্পী রিদী, রিনী ও মৌসুমি। অনুষ্ঠানে কাপল্ (জুটি) খেলা পরিচালনা করেন মাসুদা পলি।   প্রত্যয়ের উপদেষ্টা রিয়েলটর আবদুল আউয়াল, সাপ্তাহিক নবদ্বীপ সম্পাদক হান্নান মামুন, প্রেসিডেন্ট রফিক পাটোয়ারী, সাধারন সম্পাদক কামরু ভূইয়া ও সাংষ্কৃতিক সম্পাদক  মাসুদা পলি সদ্য অনুষ্ঠিত  “নবান্ন উৎসবের” সফলতার জন্য প্রত্যয় সংশ্লিষ্ট সব সদস্য ও দর্শকবৃন্দকে ধন্যবাদ  জানান এবং আগামী ৩ রা মার্চ ২০১৮ তে “প্রত্যয় পিঠা ও বসন্ত উৎসব” এর ঘোষণা দিয়ে
বিদায়ী বছরে টরন্টোতেই  সড়ক দুর্ঘটনায় ৪২ জন পথচারীর মৃত্যু

বিদায়ী বছরে টরন্টোতেই সড়ক দুর্ঘটনায় ৪২ জন পথচারীর মৃত্যু

বিদায়ী ২০১৭ সালে কেবলমাত্র টরন্টো শহরেই সড়ক দুর্ঘটনায় ৪২ জন পথচারী  মারা গেছে। একই সময়ে ৪ জন সাইক্লিষ্টও নিহত হয়েছে। গাড়ির সাথে গাড়ির সংঘর্ষে নিহতদের এই হিসেবে ধরা হয়নি।   সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবর এবং টরন্টো পুলিশের বিভিন্ন সময় দেওয়া সংবাদবিজ্ঞপ্তির তথ্য একত্রিত করে টরন্টো স্টার এই হিসাব দাড় করিয়েছে। তবে পুলিশ বলছে, তাদের হিসেবে বিদায়ী বছরে ৩৬ জন পথচারী সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন।   জানা যায়, ব্যক্তিগত এলাকায়, পার্কিং লটে গাড়ির আঘাতে নিহতদের পুলিশের হিসেবের আওতায় আনা হয়নি।   গত বছর ৪৩ জন পথচারীর প্রাণহানির খবর জানিয়েছিলো পুলিশ। সেটি ছিলো গত এক যুগের মধ্যে সর্বাধিক সংখ্যক পথচারীর মৃত্যু।   প্রাপ্ত তথ্যে দেখা যায়, ৫ থেকে ৯০ বছর বয়সী পথচারী সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন। এদের মধ্যে ৫৫ বছর ও তার চেয়ে বেশি বয়সী পথচারীর মৃত্যুর সংখ্যা বেশি। এলাকা ভিত