কানাডা

টেইলর ক্রিক পার্কে হবে টরন্টোর শহীদ মিনার

টেইলর ক্রিক পার্কে হবে টরন্টোর শহীদ মিনার

বাঙালি অধ্যূষিত ডেনফোর্থ সংলগ্ন টেইলর ক্রিক পার্কে হবে টরন্টোর শহীদ মিনার। শিগগিরই  মিনার স্থাপনার কাজ শুরু হবে। টরন্টো সিটি কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে এটি অনুমোদন করেছে।  শহীদ মিনার প্রতিষ্ঠার সাথে সরাসরি জড়িত সিটি কাউন্সিলর জেনেট ডেভিস মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে এই তথ্য জানান।   টরন্টো ফিলম্ ফোরাম, অন্য থিয়েটার ও থিয়েটার ফোকস এর যৌথ আয়োজনে এই অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে বক্তৃতাকালে সিটি কাউন্সিলর জেনেট ডেভিস বলেন, গত কয়েকদিন ধরে শহীদ মিনার নিয়ে নানা গ্রুপিং, রাজনীতি হচ্ছিলো। আমি আপনাদের জানাতে চাই যে, শিগগিরই শহীদ মিনার হবে। এর জন্য টেইলর ক্রিক পার্কে জায়গা ঠিক করা হয়েছে।   তিনি বাংলাদেশি কমিউনিটির প্রতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে এগিয়ে আসার  আহ্বান জানিয়ে বলেন, শহীদ মিনার হবে সকল বাংলাদেশিদের। যারা আজ এইখানে শহীদ দিবস উদযাপন করছেন, যার
দিল্লিতে ট্রুডোর ভাংড়া নাচ

দিল্লিতে ট্রুডোর ভাংড়া নাচ

শীতল ভারত সফরে নাচ দিয়ে উষ্ণতা ছড়ালেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো।   বৃহস্পতিবার নয়া দিল্লির কানাডা হাই কমিশনে এক অনুষ্ঠানে বাদ্যের তালে তালে ট্রডোর ভাংড়া নাচ এখন ইন্টারনেটে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল।   পাঞ্জাবের ঐতিহ্যবাহী এই নাচের ছন্দে ভারতীয় পোশাকে ট্রুডোর তাল মেলানো ফেলা নিয়ে প্রশংসা-নিন্দা দুইই চলছে।     সপরিবারে আট দিনের ভারত সফরে ট্রুডো নয়া দিল্লির সাড়া তেমন পাচ্ছিলেন না বলে আলোচনা চলছিল। আর তার কারণও পাঞ্জাব নিয়েই।   শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের প্রতি ট্রুডোর সহানুভূতিতে ট্রুডোর প্রতি নাখোশ ছিলেন ভারতের কর্তাব্যক্তিরা।   তবে সফরের শেষ দিকে এসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর দেখা পেয়েছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী; শুক্রবার নিজের ‘ট্রেডমার্ক’ আলিঙ্গনে ট্রুডোকেও বাঁধেন মোদী।  
কানাডায় শিশুদের রঙ-তুলিতে ভাষা আন্দোলন

কানাডায় শিশুদের রঙ-তুলিতে ভাষা আন্দোলন

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনের অংশ হিসেবে বেঙ্গলি ইনফরমেশন অ্যান্ড এমপ্লয়মেন্ট সার্ভিসেসের (বায়েস) উদ্যোগে কানাডার টরন্টোয় অনুষ্ঠিত হয়েছে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা।   চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় টরন্টোর বাঙালি শিশুরা রঙ-তুলিতে নান্দনিকভাবে ফুটিয়ে তোলেন মহান একুশ আর ১৯৫২ সালের বীরত্বগাথা-বাঙালির মহান ভাষা আন্দোলনকে। ১৭ ফেব্রুয়ারি টরন্টোর ডেনফোর্থ অ্যাভিনিউয়ের এক্সেস পয়েন্টে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।   অনুষ্ঠানে স্থানীয় এমপি, এমপিপি, সিটি কাউন্সিলর, বিপুলসংখ্যক প্রতিযোগী, অভিভাবক ও কমিউনিটির বিশিষ্টজনেরা উপস্থিত ছিলেন।  
কানাডায় বাংলাদেশি তরুণীর কৃতিত্ব

কানাডায় বাংলাদেশি তরুণীর কৃতিত্ব

কানাডার ব্রিটিশ কলাম্বিয়া প্রদেশের নানাইমো অ্যাম্বাসেডর নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশি তরুণী লিউনা শেরিফ। তীব্র প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হয়ে লিউনা শেরিফ মিস নানাইমোর মুকুট জয় করেন। এছাড়া দুজন কানাডীয় তরুণী মারিয়া ক্লিউমটে এবং ক্যাথেরিন নরম্যান ভাইস নানাইমো অ্যাম্বাসেডর নির্বাচিত হন।   মিস নানাইমোর মুকুট জয়ের পর লিউনা শেরিফ নানাইমো শহরে ২০১৬ সালের নভেম্বর থেকে ২০১৭ সালের অক্টোবর পর্যন্ত মিস নানাইমো অ্যাম্বাসেডর হিসেবে বিভিন্ন সমাজসেবা, নতুন প্রজন্মকে বিভিন্ন কল্যাণমূলক কাজে উদ্বুদ্ধকরণ, মাদক থেকে নিজেকে মুক্ত রাখা ও পরিচ্ছন্নতা ইত্যাদি বিষয়ে কাজ করেন। এ ছাড়া গুরুত্বপূর্ণ দিবসে লিউনা পাবলিক স্পিকার হিসেবে অংশ নেন।   লিউনা শেরিফ সপরিবারে কানাডায় বসবাস করেন। লিউনা শেরিফের বাবা মেজর (অব.) আরিফ ইসলাম। বর্তমানে তিনি কানাডা সরকারের একজন কর্মকর্তা। লিউনার মা বারডেম হাসপাতালের সাবেক চি
কানাডায় শিশুদের রঙ-তুলিতে ভাষা আন্দোলন

কানাডায় শিশুদের রঙ-তুলিতে ভাষা আন্দোলন

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনের অংশ হিসেবে বেঙ্গলি ইনফরমেশন অ্যান্ড এমপ্লয়মেন্ট সার্ভিসেসের (বায়েস) উদ্যোগে কানাডার টরন্টোয় অনুষ্ঠিত হয়েছে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা।   চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় টরন্টোর বাঙালি শিশুরা রঙ-তুলিতে নান্দনিকভাবে ফুটিয়ে তোলেন মহান একুশ আর ১৯৫২ সালের বীরত্বগাথা-বাঙালির মহান ভাষা আন্দোলনকে। ১৭ ফেব্রুয়ারি টরন্টোর ডেনফোর্থ অ্যাভিনিউয়ের এক্সেস পয়েন্টে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।   অনুষ্ঠানে স্থানীয় এমপি, এমপিপি, সিটি কাউন্সিলর, বিপুলসংখ্যক প্রতিযোগী, অভিভাবক ও কমিউনিটির বিশিষ্টজনেরা উপস্থিত ছিলেন।       শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার বিষয় ছিল ‘আমার মাতৃভাষা, আমার গর্ব।’ প্রায় ৫০ জন শিশু চিত্রশিল্পী প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। শিশু শিল্পীরা জল রং, ওয়েল প্যাস্টেল (মোমের রং) ও কাঠ পেনসিলের রঙে মনের মাধুরী মিশিয়ে ভাষার
কানাডার কাজের বাজারে বড় ধরনের ধাক্কা

কানাডার কাজের বাজারে বড় ধরনের ধাক্কা

নতুন বছরের শুরুতেই বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছে কানাডার কাজের বাজার (জব মার্কেট) ।  কেবল জানুয়ারি মাসেই  নয় বছরের মধ্যে সর্বাধিক পরিমান চাকরি  হারানোর ঘটনা ঘটেছে  বলে স্ট্যাটিসটিক্স কানাডা জানিয়েছে।   স্ট্যাটিসটিক্স কানাডা জানায়,  জানুয়ারি মাসে প্রায় ১লাখ ৩৭  হাজার খন্ডকালীন কর্মী চাকরি হারিয়েছেন। চাকুরি হারানোর মধ্যে সিংহভাগে রয়েছে অন্টারিও। জানুয়ারি থেকেই এই প্রভিন্সে ন্যূনতম মজুরি ২০ শতাংশ বাড়ানো হয়েছিলো।   স্ট্যাটিসটিক্স কানাডার রিপোর্টে দেখা যায়,  জানুয়ারি মাসে খন্ডকালীন চাকুরির পরিমান কমলেও পূর্ণকালীন চাকরির পরিমান বেড়েছে। জানুয়ারি মাসে  কানাডার অর্থনীতি ৪৯ হাজার নতুন পূর্ণকালীন কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছে।   জানুয়ারি মাসের খন্ডকালীন চাকরি হারানোর  তথ্য বিবেচনায় নিলে গড় জাতীয় বেকারত্বের ৫.৮ শতাংশ থেকে বেড়ে ৫.৯ শতাংশে দাড়ায়। এক বছর আগেও বেকারত্বের হার ছিলো
খালেদা জিয়ার বিরূদ্ধে মামলার  প্রতিবাদে কানাডা বিএনপির স্বারকলিপি

খালেদা জিয়ার বিরূদ্ধে মামলার প্রতিবাদে কানাডা বিএনপির স্বারকলিপি

সাবেক  প্রধানমন্ত্রী, বিএনপির চেয়ারপারসন  বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে একের পর এক 'মিথ্যা ও সাজানো' মামলার মাধ্যমে আগামী জাতীয় নির্বাচন থেকে সরানোর নীল নকশা , ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশে মানবাধিকার লংঘন এবং গণ- গ্রেফতারের প্রতিবাদে কানাডা বিএনপি কানাডার  পররাষ্ট্র মন্ত্রী ক্রিষ্টিনা ফ্রিল্যান্ডের দফতরে এক স্বারকলিপি  দিয়েছে। স্বারকলিপি পেশ করেন সাপ্তাহিক ভোরের আলোর প্রধান সম্পাদক আহাদ খন্দকার, এজাজ আহমেদ খান, এস তপন মাহমুদ, শেখ মো: মোতালেব, আমিনুর রশীদ চৌধুরী (বাবু), মো: মিজানুর রহমান প্রমুখ । এই সময় উপস্হিত ছিলেন যুব দলের সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক সামুন ভূইয়া । কানাডার  পররাষ্ট্র মন্ত্রী বর্তমানে এক সরকারী সফরে আমেরিকা অবস্হান করায় তার ব্যক্তিগত কর্মকর্তা স্বারকলিপি গ্রহন করেন । এই সময় নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক প্রক্ষাপট তুলে ধরে বলেন একের পর এক মিথ্যা , ভিত্তিহীন ও সাজানো
কানাডার এক্সপ্রেস এন্ট্রির আমন্ত্রন পাওয়ার দুটি শব্দচিত্র

কানাডার এক্সপ্রেস এন্ট্রির আমন্ত্রন পাওয়ার দুটি শব্দচিত্র

মনে করুন আফজাল (কল্পিত নাম) একজন ৩৫ বছরের যুবক বিগত ০৪ বছর ধরে ম্যানেজম্যান্ট কনসালটেন্ট হিসাবে কর্মরত রয়েছেন। উনি কানাডার এক্সপ্রেস এন্ট্রি পদ্ধতিতে আবেদন করে পার্মামেন্ট রেসিডেন্ট হিসাবে আসতে চান। উনার ইংরেজীতে দক্ষতা অনেক ভাল এবং আইএলটিএস এ প্রতিটি মডিউলে উনি ৮ করে পেয়েছেন। আফজাল সাহেবের কিন্তু কানাডা থেকে কোন জব-অফার নেই, কানাডাতে উনি কোন কাজও করেননি কখনও অথবা এখান থেকে যে কোন ডিগ্রী নিয়েছেন সেটাও নয়। গত ২৪ জানুয়ারী যে ড্র হয়েছে, তাতে উনি ৪৪৫ সিআরএস পয়েন্ট পেয়ে আইটিএ পেয়েছেন। গত ড্রতে সর্বনি¤œ ৪৪৪ পয়েন্ট যারা পেয়েছেন, তারাই ইনভিটেশন পেয়েছেন। এর আগে গত ১০ জানুয়ারী, ২০১৮ এর ড্রতে সর্বনি¤œ পয়েন্ট ছিলো ৪৪৬।   এবার ধরুন আয়েশা বিবির কথা (কল্পিত নাম)। ২৯ বছরের আয়েশা বিবি গত ০২ বছর ধরে কানাডাতে প্রোগ্রামার হিসাবে কাজ করছেন। এর আগে উনি আলবার্টা প্রদেশ থেকে ব্যাচেলর ডিগ্রী করেছেন। আয়ে
কানাডায় বালিকার হিজাবে ‘কাঁচি নিয়ে হামলা’, তদন্তে পুলিশ

কানাডায় বালিকার হিজাবে ‘কাঁচি নিয়ে হামলা’, তদন্তে পুলিশ

এক ব্যক্তি শিশু এক বালিকার হিজাব কেটে ফেলার চেষ্টা করার পর ঘটনাটিকে সম্ভাব্য ‘হেট ক্রাইম’ ধরে নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে কানাডীয় পুলিশ।   ১১ বছর বয়সী খাওলাহ নোমান ও তার ভাই টরেন্টোর রাস্তা দিয়ে হেঁটে স্কুলে যাচ্ছিল, এ সময় এক লোক কেচি নিয়ে খাওলাহর পেছনে আসে বলে জানিয়েছে তারা, খবর বিবিসির।   খাওলাহ জানিয়েছে, সে চিৎকার করলে হামলাকারি দৌঁড় দেয়, কিন্তু ফিরে এসে তার মাথায় পড়া হুড টেনে খুলে তার হিজাব কেটে দেয়।   হামলাকারীকে ২০ থেকে ৩০ বছর বয়সী, পাঁচ ফুট সাত থেকে আট ইঞ্চি উচ্চতার পাতলা গড়নের এশীয় বলে বর্ণনা করেছে পুলিশ।   তার মাথায় ভ্রু পর্যন্ত ছাঁটা কালো চুল, মুখে পাতলা গোফ ও কালো চশমা ছিল বলে জানিয়েছে ওই ভাইবোন। তার পরনে ছিল কালো হুডওয়ালা সুয়েটার, কালো প্যান্ট ও বাদামি হাতমোজা।   শুক্রবার টরেন্টোর পাওলিন জনসন জুনিয়র পাবলিক স্কুলে এক সংবাদ সম্মেলন
হিউম্যানিটারিয়ান এ্যান্ড কমপ্যাশনেট গ্রাউন্ডে কানাডাতে পার্মানেন্ট রেসিডেন্ট

হিউম্যানিটারিয়ান এ্যান্ড কমপ্যাশনেট গ্রাউন্ডে কানাডাতে পার্মানেন্ট রেসিডেন্ট

মো: হাসান সাজ্জাদ ইকবাল : ধরুন আপনি কানাডাতে আছেন কিন্তু আপনার বর্তমানে এখানে কোন স্ট্যাটাস নাই। শুধু তাই নয়, আপনি অন্য কোনভাবেই এখানে লিগালি থাকার জন্য কোন পথ খুজে পাচ্ছেন না। আপনাকে আপনার স্বামী বা স্ত্রী যে স্পন্সর করবে সে ব্যবস্থা বা সুযোগ আপনার নাই, কোন কারনে আপনি রিফিউজি হওয়ার আবেদন করার যোগ্য নয় কিংবা আপনি টেম্পোরারি রেসিডেন্ট হিসাবেও আবেদন করতে পারছেন না। আপনি এখানে লিভ-ইন-কেয়ারগিভার হিসাবে কাজ করছেন না যে কিছুদিন পরে পার্মামেন্ট রেসিডেন্ট হতে পারবেন। অথবা ধরুন আপনি রিমুভাল আদেশ পেয়ে গেছেন এবং আপনি কিছুতেই কুল কিনারা করতে পারছেন না কি করবেন। এদিক ওদিক ছোটাছুটি করছেন। আপনি দির্ঘদিন কানাডাতে বসবাস করেছেন, আপনি বেশ ভালভাবে কানাডার সমাজে মিশে গ্যাছেন, আপনি আপনার দেশে গেলে বিরাট বিপদের সন্মুখিন হবেন, নিজ দেশের কোন প্রান্তেই আপনার নিরাপত্তা নাই। অথবা এখানকার সেটেলম্যান্ট ছেড়ে দেশে গিয়