জানা অজানা

জীবনের শেষ ইচ্ছা যখন জেলে যাওয়া

জীবনের শেষ ইচ্ছা যখন জেলে যাওয়া

মানুষের কত বিচিত্র ইচ্ছাই না থাকে যা জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত পূরণের প্রত্যাশা থেকে যায়। কারো স্বপ্ন থাকে দামি গাড়িতে চড়ার, কারো স্বপ্ন থাকে দামি হোটেলে অন্তত একরাত থাকা। কারো আবার স্বপ্ন থাকে পছন্দের কোনো দেশ ভ্রমণ। কিন্তু বৃটেনের ১০৪ বছর বয়সী নারী অ্যানি ব্রোকেনব্রো’র মৃত্যুর আগের শেষ স্বপ্ন ছিল জেলে যাওয়া! হ্যাঁ, ঠিকই পড়ছেন, জেলে যাওয়া। ১০৪ বছর পর্যন্ত আইন অমান্য না করায় কোনো দিন জেলে যাওয়ার অভিজ্ঞতা ছিল না ঐ নারীর। সেই স্বপ্ন পূরণের জন্যই তিনি পুলিশের কাছে ইচ্ছা পূরণের আবেদন করেছিলেন।   অ্যানি ব্রোকেনব্রো স্টোকবিশপ এলাকার স্টোকেলেঘ কেয়ার হোম নামের একটি বৃদ্ধাশ্রমে থাকেন। সম্প্রতি ‘উইশিং ওয়াশিং লাইন ইনিশিয়েটিভ’ নামের একটি ইভেন্টে অংশগ্রহণ করেছিলেন তিনি। বয়স্ক মানুষদের মনের ইচ্ছাপূরণ করতেই ওই ইভেন্টের আয়োজন করা হয়। নিজের অপূর্ণ ইচ্ছার কথা জানাতে গিয়ে অ্যানি লিখেছিলেন, ‘আমার ইচ্ছ
লেখাপড়ার নজরদারি করছে পোষা কুকুর!

লেখাপড়ার নজরদারি করছে পোষা কুকুর!

খেলাধুলায় সঙ্গী হিসেবে পোষা প্রাণীদের সঙ্গ বাচ্চারা খুবই পছন্দ করে। আর এই বিষয়টিকেই কাজে লাগিয়েছে চীনের গুইঝাও প্রদেশের পিয়ার ঝু। মেয়ে মনোযোগ দিয়ে লেখাপড়া করছে কিনা তা দেখভালের জন্য প্রশিক্ষণ দিয়েছে বাড়ির পোষা কুকুরকে।   সম্প্রতি ভাইরাল হওয়া এক ভিডিওর সৌজন্যে সেই দৃশ্য দেখেছে নেট দুনিয়া। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, সাদা রঙের একটি মনগ্রেল কুকুর দুই পা তুলে দাঁড়িয়ে আছে পড়ার টেবিলে। ওই টেবিলে বসে হোমওয়ার্ক করছে ছোট্ট মেয়েটি। টেবিলে দাঁড়িয়ে কুকুরটি এক দৃষ্টে তাকিয়ে আছে মেয়েটির দিকে। আসলে মেয়েটি ঠিকমতো হোমওয়ার্ক করছে না কি সেটাই যাচাই করছে কুকুরটি।   চীনা এক সংবাদমাধ্যমকে পিয়ার ঝু বলেন, ‘আমার মেয়ে খুব অমনোযোগী। পড়তে বসলে মোবাইল নিয়ে ঘাটাঘাটি করে। আমরা না থাকলে সে যেন মনোযোগ দিয়ে পড়তে পারে সে জন্যই এই ব্যবস্থা।’   শুধু হোমওয়ার্ক দেখাশোনা নয়, কুকুরটিকে আরো কিছু প্রশিক্ষণ

এক কবুতরের দাম ১২ কোটি টাকা

বেলজিয়ামে রেকর্ড ১২ লাখ ৫২ হাজার ইউরোতে একটি ‘রেসিং’ কবুতর বিক্রি হয়েছে।   বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, গত রোববার অনলাইন নিলামে কবুতরটি বিক্রি হয়।   কবুতরটি যে দামে বিক্রি হয়েছে, তা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ১২ কোটি টাকা।   নিলামে বিক্রি হওয়া কবুতরটির ক্রেতা চীনের এক নাগরিক বলে জানা যায়।   কবুতরটির নাম আরমান্দো। এটি বেলজিয়ামের সর্বকালের সবচেয়ে দীর্ঘ পাল্লার ‘রেসার’ কবুতর।  
আলোচনায় আবার ‘রবিনহুড’

আলোচনায় আবার ‘রবিনহুড’

ধনীর সম্পদ ছিনিয়ে নিয়ে গরিবকে বিলিয়ে অমর হয়ে আছেন ইংল্যান্ডের চতুর্দশ শতকের নায়ক রবিনহুড। স্পেনের একটি গ্রামে তেমনই একজন ‘রবিনহুড’ সক্রিয় হয়ে উঠেছেন। তিনি ধনীর সম্পদ ছিনিয়ে নেন কি না, জানা যায়নি। তবে গরিবের ঘরের দরজায় ঠিকই অর্থ রেখে যান। তাঁর নাম-পরিচয় এখনো জানা যায়নি।   ইংল্যান্ডের শেরউড বনের রবিনহুড কে ছিলেন কিংবা তিনি আদৌ কোনো একক ব্যক্তি ছিলেন কি না, জানা যায়নি। অনেকেই মনে করেন, ত্রয়োদশ ও চতুর্দশ শতাব্দীর ডাকাতেরা এই নাম ব্যবহার করত। পরিচয় যা-ই হোক, রবিনহুডকে নিয়ে চলচ্চিত্র, টেলিভিশন সিরিজ নির্মিত হয়েছে। এই রবিনহুডের সঙ্গে স্পেনের ভিলারামিয়েল গ্রামের রবিনহুডের কোনো মিল রয়েছে কি না, সেটা নিয়েও আলোচনা হতে পারে। তবে এই রবিনহুডকে এখনো ‘দুর্বৃত্তের’ তালিকাভুক্ত করেনি কর্তৃপক্ষ।   ভিলারামিয়েল গ্রামটি স্পেনের উত্তরাঞ্চলে। এই গ্রামের মেয়র নুরিয়া সিমন বলেছেন, ৬ মার্চ থেকে
২২০ বছর পর মিললো টিপু সুলতানের বন্দুক-তলোয়ার

২২০ বছর পর মিললো টিপু সুলতানের বন্দুক-তলোয়ার

ডেস্ক রিপোর্ট :: ১৭৯৮-৯৯ সালে হয়েছিল মহীশূরের চতুর্থ যুদ্ধ। সেই যুদ্ধে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কাছে পরাজিত হন টিপু সুলতান। ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির হয়ে সেই যুদ্ধে লড়াই করেছিলেন মেজর থমাস হার্ট। সম্প্রতি থমাস হার্টের উত্তরসূরিরা চিলেকোঠার ঘর পরিষ্কার করার সময়ে দেখতে পান ধুলো ভর্তি খবর কাগজের মধ্যে কী যেন রাখা আছে। সেগুলো নামাতেই তাদের চক্ষু চড়কগাছ। সেই কাগজের মধ্যে লুকানো ছিল বাঘছাপওয়ালা বন্দুক ও স্বর্ণ-খচিত তলোয়ার। বাড়ির ছাদ থেকে হঠাৎ এই জিনিস পেয়ে হকচকিয়ে যায় ওই ব্রিটিশ পরিবার। জানা গিয়েছে, ওই বন্দুকটি টিপু সুলতানের। আর ওই তলোয়ার টিপু সুলতানের বাবা হায়দার আলির। চতুর্থ মহীশূর যুদ্ধে পরাজয়ের পর থমাস হার্ট ওই জিনিসগুলি প্রাসাদ থেকে নিয়ে চলে গিয়েছিলেন ইংল্যান্ডে। তারপর সেগুলিকে রেখে দিয়েছিলেন নিজের বাড়িতে। ২২০ বছর পর সেগুলি খুঁজে পেলেন  থমাসের উত্তরসূরিরা। এই মাসের শেষের দিকে নিলামে
যে পাখি আকাশে খায় আকাশে ঘুমায়

যে পাখি আকাশে খায় আকাশে ঘুমায়

সুইফট পাখিরা আকাশে ঘুমাতে পারে। এই পাখিদের প্রায় ১০০ প্রজাতি এমন পরিবেশে পুরোপুরি অভিযোজিত হয়ে গেছে। শুধু তা–ই নয়, এই পাখিরা তিন মাসের বেশি সময় একটানা উড়তে পারে আকাশে। এ সময় একবারও তারা নেমে আসে না মাটিতে বা গাছে। তারা আকাশে উড়ন্ত পতঙ্গ খায়। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় উঠে এসেছে এ তথ্য।   ১৯৫০-এর দশক থেকে গবেষকদের মধ্যে ধারণা ছিল, সুইফট পাখিরা আকাশে খায় এবং আকাশেই ঘুমায়। এ ধারণা এখন সত্যি প্রমাণিত হলো। নেদারল্যান্ডসের লুন্দ বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক আন্দেশ হেদেনস্ত্রমের নেতৃত্বে একদল বিজ্ঞানী এই গবেষণা করেছেন। তিন বছর আগে তাঁরা প্রথম দেখতে পান, কমন সুইফট প্রজাতির (এপাস এপাস) পাখিরা টানা ১০ মাস আকাশে থাকতে পারে। খেচর প্রাণীদের মধ্যে এটি বিশ্ব রেকর্ড। অন্য আরেকটি গবেষক দল দেখিয়েছে, আলপাইন সুইফট জীবনের বেশির ভাগ সময় আকাশেই কাটিয়ে দেয়।   লুন্দ বিশ্ববিদ্যালয়ের গ
কম বয়সে বিয়ে করার ৬টি সুফল

কম বয়সে বিয়ে করার ৬টি সুফল

ডেস্ক রিপোর্ট :: বিয়ের সঠিক বয়স কোনটি তা নিয়ে অনেক মতবিরোধ রয়েছে। অনেকেই বলবেন বিয়ে এবং সম্পর্ক আসলে কি তা বুঝে তবেই বিয়ের সিদ্ধান্ত গ্রহন করা উচিত। আর এই সঙ্গে অর্থনৈতিক বিষয়ও জড়িত থাকে বলে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী না হওয়া পর্যন্ত অনেকেই বিয়ের কথা ভাবেন না। কিন্তু সত্যি বলতে কি, দ্রুত বিয়ে করে ফেলার সিদ্ধান্ত কিন্তু বেশ ভালো বুদ্ধিমানের মতো কাজ। বয়স একটু কম থাকলেই বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলা উচিত, এতে জীবনটা অনেক বেশিই সহজ মনে হবে আপনার কাছে। অনেক ধরণের সমস্যা থেকে অনায়াসেই মুক্ত থাকতে পারবেন। কীভাবে জানতে চান? পড়ুন- ১) আপনি যদি বয়স ৩০ পার করে বিয়ে করেন তাহলে স্বাভাবিকভাবেই আপনার বয়সের কারণে আপনার মধ্যে যে গাম্ভীর্য চলে আসবে তার জন্য সম্পর্ক খুব বেশি মধুর ও ঘনিষ্ঠ হবে না। ব্যাপারটি বরং এমন হবে বিয়ে করার কথা তাই বিয়ে করেছি। এ কারণে আগেই বিয়ে করে ফেলা ভাল, যখন আবেগ কাজ করে অনেক। ২) বেশ
বিশ্বের সবচেয়ে নিঃসঙ্গ মানুষ যিনি

বিশ্বের সবচেয়ে নিঃসঙ্গ মানুষ যিনি

একেবারেই বিরল এক ভিডিও ফুটেজে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর একজন মানুষকে দেখা যাচ্ছে, বলা হচ্ছে, তিনি বিশ্বের সবচেয়ে নিঃসঙ্গ মানুষ। ব্রাজিলের অ্যামাজনে ২২ বছর ধরে ৫০ বছর বয়সী মানুষটি একা বাস করছে। তার গোত্রের বাকিরা সবাই খুন হওয়ার পর থেকেই তার একাকী জীবনের শুরু।   ব্রাজিল সরকারের ইনডেজিনাস এজেন্সি ফুনাই এই ভিডিওটি ধারণ করেছে। দূর থেকে তোলা সেই অস্পষ্ট ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, একজন পুরুষ একটি কুড়াল দিয়ে গাছ কাটছেন।   বিবিসি বাংলা বলছে, ভিডিওটি বিশ্বের নানা স্থানে শেয়ার করা হয়েছে কিন্তু এখানে আরো অনেক বিষয় রয়েছে যেগুলো আসলে খালি চোখে ধরা পড়ছে না।   কেন তার ভিডিও করা হলো?   ফুনাই বলছে, ১৯৯৬ সাল থেকে তাকে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে এর পেছনে। প্রথমত, এটা নিশ্চিত হওয়া যে সে বেঁচে আছে, দ্বিতীয়ত, কোন কোন এলাকায় সে ঘোরাফেরা করে সে স্থানগু
হিটলারের জন্মস্থানসহ বিতর্কিত কিছু ঠিকানা

হিটলারের জন্মস্থানসহ বিতর্কিত কিছু ঠিকানা

অস্ট্রিয়ার সীমান্তবর্তী শহরে প্রধান একটা সড়কের ওপর ১৫ নম্বর সলসবার্গার ভরস্টার্ড ঠিকানার বাড়িটা সাধারণ চোখে সাদামাঠা একটা বাড়ি। কিন্তু পাশের রাস্তায় একটা পাথরে খোদাই কথাগুলো দেখলে সে ধারণা বদলে যেতে পারে। জার্মান ভাষায় সেখানে ফ্যাসিবাদের শিকার লাখো লাখো মানুষের উল্লেখ আছে। এ বাড়িতে ১৮৮৯ সালে জন্মেছিলেন অ্যাডল্ফ হিটলার। যদিও সেকথা স্পষ্ট করে কোথাও উল্লেখ করা নেই।   হিটলারের জন্মদিন উদযাপন করতে এই বাড়িতে প্রতি বছর দলে ভিড় জমান নব্য-নাত্সীরা। ২০১৬ সাল থেকে এ বাড়ির মালিক অস্ট্রিয়ার সরকার। সে সময় সরকার তিন লাখ ৫০ হাজার ডলার মূল্যে এ বাড়িটি কিনেছিল এবং এটি ধ্বংস করে ফেলার ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু বাড়িটির পূর্বতন মালিক সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলা এখনও নিষ্পত্তি হয়নি। এ বছরের প্রথম দিকে আদালত সরকারকে আরও ১৭ লাখ ডলার দেবার নির্দেশ দেয়। আদালত বলেন, যেহেতু ইতিহাস জড়িয়ে আছে, তাই ওই বাড়ি
রাগ না করা উত্তম চরিত্রের বৈশিষ্ট্য

রাগ না করা উত্তম চরিত্রের বৈশিষ্ট্য

ডেস্ক রিপোর্ট :: রাগ মানব চরিত্রের এক দুর্বল দিক। ইসলামে রাগ প্রসঙ্গে রয়েছে কার্যকর নির্দেশনা।কুরআনে মুমিনদের বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করার সময় বলা হয়েছে, ‘যারা রাগকে নিয়ন্ত্রণ করে, মানুষকে ক্ষমা করে।’ -সূরা আলে ইমরান: ১৩৪হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘আমি হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বললাম, ইয়া রাসূলাল্লাহ! আমাকে উপদেশ দিন। তিনি বললেন, রাগ করো না। তিনি কয়েকবার পুনরাবৃত্তি করলেন। রাসূল (সা.) বললেন, রাগ করো না।’ –সহিহ বোখারি শরিফ। বর্ণিত হাদিসে আলোকে এতে বুঝা যায়- রাগ নয়, বরং ক্ষমা করার মাহাত্ম্যই হলো- ইসলাম।রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের টানা দশ বছরের খাদেম হজরত আনাস  (রা.) স্বীকৃতি দিয়েছেন, ‘তিনি (নবী করিম) কখনও না করা কাজের ব্যাপারে বলেননি- এটা কেন করোনি। আর করা কাজের ব্যাপারে কখনও বলেননি- এটা কেন করেছো!’ –সুনানে তিরমিজি। এ আলোচনা দ্বারা খুব