জানা অজানা

ছয় ঘণ্টায় শত ভাষায় গান গেয়ে বিশ্বরেকর্ড

ছয় ঘণ্টায় শত ভাষায় গান গেয়ে বিশ্বরেকর্ড

সুচেতা সতীশ। বয়স মাত্র বারো। তবে সদ্য কৈশোরে পা দেওয়া কেরালার রাজ্যের এই মেয়ে অসাধ্য সাধন করেছে। গত ২৫ জানুয়ারি দুবাইয়ে ভারতীয় হাইকমিশন আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে সপ্তম শ্রেণির এই ছাত্রী মাত্র ছয় ঘণ্টা পনেরো মিনিটে ১০২টি ভাষায় গান গেয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। সে নাম লিখিয়েছে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে।   সুচেতার জন্ম ভারতে হলেও পড়াশোনা, বেড়ে ওঠা দুবাইয়ে। সংগীত চর্চা সেখান থেকেই শুরু। পারিবারিকভাবে সাংস্কৃতিক আবহে বড় হওয়া সুচেতা বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় হিন্দি, মালায়ালাম, তামিল ও  ইংরেজি ভাষায় গান গেয়ে ইতিমধ্যেই প্রশংসা অর্জন করেছে। বছরখানেক আগে তার বিশ্বের বিভিন্ন ভাষায় গান গাওয়ার শখ জাগে।   গলফ নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সুচেতা জানায়, জাপানি ভাষায় প্রথম কোনো বিদেশি গান শেখে সে। তার বাবার এক বন্ধু বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন। তার কণ্ঠে জাপানি গান শুনে আগ্রহ তৈরি হয়। সেই থ
বিশ্বে বেকারের সংখ্যা ১৯ কোটি ২৭ লাখ : আইএলও প্রতিবেদনে তথ্য

বিশ্বে বেকারের সংখ্যা ১৯ কোটি ২৭ লাখ : আইএলও প্রতিবেদনে তথ্য

সারোয়ার জাহান: ২০১৬ সালে বৈশ্বিক চাকরি বাজারে বেকারত্বের হার বাড়ার পর গেলো বছরে তা কমেছে। ২০১৭ সালে বৈশ্বিক বেকারত্বের হার দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৬ শতাংশে। এ হিসেবে বিশ্বে এখনো বেকারের সংখ্যা ১৯ কোটি ২৭ লাখ মানুষ। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, উন্নত দেশগুলোর অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো থাকায় ২০১৭ সালে ২৬ লাখ কর্মসংস্থান বেশি হয়েছে। এ কারণে ২০১৬ সালের তুলনায় বেকারত্বের হার কমেছে। চলতি বছরও কিছুটা আশার কথা শুনিয়েছে সংস্থাটি। আইএলও মনে করছে, ২০১৮ সালে বৈশ্বিক বেকারত্বের হার দশমিক ১ শতাংশ কমে আসবে। তবে চাকরি খোঁজার মানুষের সংখ্যা বাড়ায় বেকারের সংখ্যায় তেমন পরিবর্তন আসবে না। ‘ওয়ার্ল্ড এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড সোশ্যাল আউটলুক-২০১৮’ শীর্ষক প্রতিবেদনে আইএলও এ তথ্য তুলে ধরেছে। যেখানে বিশ্বজুড়ে বেকারত্ব ও কর্মসংস্থানের অবস্থা এবং পূর্বাভাস তুলে ধরা হয়েছে।
ভূতের সঙ্গে বিয়ে!

ভূতের সঙ্গে বিয়ে!

সাধারণত মানুষের সঙ্গে মানুষের বিয়ে হয়ে থাকে। কিন্তু কখনো কি শুনেছেন ভূতের সঙ্গে মানুষের বিয়ের কথা। শুনতে উদ্ভট মনে হলেও সম্প্রতি এমনটাই ঘটেছে আয়ারল্যান্ডে। ভূতকে বিয়ে করেছেন দেশটির আমান্ডা তেগ নামের পঁয়তাল্লিশ বছর বয়সি এক নারী।   দীর্ঘদিন ধরে জীবন সঙ্গী খুঁজছিলেন আমান্ডা। অনেক খোঁজাখুজির পরও যখন মনের মতো কারো দেখা পাননি তখন সঙ্গী হিসেবে বেছে নিয়েছেন তিনশ বছর আগে মারা যাওয়া জ্যাক স্পারো নামের এক জলদস্যুর ভূতকে।   তবে ভূত বিয়ে করার সিদ্ধান্ত এক দিনে নেননি আমান্ডা তেগ। ঘটনার শুরু ২০১৪ সালের এক রাতে। প্রতিদিনের মতো আমান্ডা রাতের খাওয়া সেরে বিছানায় শুয়ে ছিলেন। হঠাৎ তিনি অনুভব করলেন তার পাশে কেউ একজন শুয়ে আছে।   প্রথমে চমকে গেলেও পরক্ষণেই নিজেকে সামলে নেন যখন জ্যাকের আত্মা তার সঙ্গে কথা বলা শুরু করে। এরপর গত চার বছর তারা চুটিয়ে প্রেম করেছেন, একে অপরকে জেনেছেন।
২০১৮ সালে ভয়ংকর ৬ বিপদ!

২০১৮ সালে ভয়ংকর ৬ বিপদ!

২০১৭ সাল বিদায় নিয়ে এসেছে ২০১৮ সাল। শুভ-অশুভ মুহূর্ত, সন্ত্রাস-মৈত্রী, ভালোবাসা-বিরহ, প্রিয়জনকে পাওয়ার আনন্দের পাশাপাশি স্বজন হারানো বেদনা নিয়েই বিদায় নিয়েছে ২০১৭। নতুন এই বছর ঘিরে এখন আশা-আকাঙ্ক্ষার দোলাচল। কিন্তু জানেন কি কোন বিপদ মাথায় নিয়ে হাজির হয়েছে ২০১৮?   কেমন যাবে ২০১৮? তার উত্তর ৪০০ বছর আগেই জানিয়েছেন ফরাসি ভবিষ্যৎবক্তা নস্ত্রাদামুস। তাঁর ভবিষ্যতবাণী অনুসারে বিশ্ববাসীর জন্য নতুন বছরে অপেক্ষা করছে ভয়ংকর ছয়টি বিপদ ৷   ১. চলতি বছরে প্রবল ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্থ হবে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র। ধ্বংসলীলা ও ক্ষয়ক্ষতিতে বিপুল পরিমাণে প্রাণহানি ও সম্পত্তি নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা।   ২. ২০১৮ সালে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরুর প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে। নস্ত্রাদামুস তাঁর লেখা একটি বইতে জানিয়েছেন, শক্তিধর দেশগুলির হাতে পরমাণু অস্ত্র এসে যাওয়ায় এই বছরই শুরু হবে পরমাণু য
শিশুদের হাতে আত্মঘাতি উৎসবের উপহার

শিশুদের হাতে আত্মঘাতি উৎসবের উপহার

প্রতি বছর জানুয়ারির ছয় তারিখ খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের লোকজন ‘অফেপিনি’ নামে  উৎসব পালন করে। উৎসবটি ‘লিটল ক্রিসমাস’ নামেও পরিচিত। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নাচ-গান, কেক কেটে দিনটি উদযাপন করা হলেও পর্তুগালের ভেল দো সেলগুয়েরিও গ্রামের চিত্র ভিন্ন। এই গ্রামে দিবসটি উপলক্ষে শিশুদের হাতে ধরিয়ে দেয়া হয় সিগারেট।   অদ্ভুত হলেও সত্যি যে, পাঁচ বছরের শিশু থেকে শুরু করে ওই দিনটিতে সব ছেলেমেয়ারা সিগারেটের নেশায় বুঁদ হয়ে থাকে। তারা অভিভাবকদের কাছ থেকে সেদিন দামি ব্র্যান্ডের সিগারেট উপহার হিসেবে পায়। জানা গেছে, গ্রামের পুরনো রীতি অনুযায়ী উৎসবের সময় ধূমপান করতে হয় কিশোর-কিশোরীদের। লুসিয়া নামের বছর দশেকের একটি মেয়ে জানায়, গত বছর উৎসবের দিন সে প্রায় তিন প্যাকেট সিগারেট শেষ করেছে। বহু বছর ধরে চালু এই রীতিতে ক্ষতি হচ্ছে ওই গ্রামের শিশুদের। বাড়ছে ক্যানসারের আশঙ্কা। তবে এসব কথায় কান দিতে নারাজ গ্রামের প্রবীণরা
কয়েন জমিয়ে বিএমডব্লিউ ক্রয়

কয়েন জমিয়ে বিএমডব্লিউ ক্রয়

কয়েন জমিয়ে সেই টাকা দিয়ে বিএমডব্লিউ কিনেছেন চীনের এক ব্যবসায়ী। স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের বরাত দিয়ে ডেইলি মেইল জানিয়েছে, গেল কয়েক বছর ধরে ওই ব্যবসায়ী চীনা মুদ্রা ইয়ান কয়েন জমা করেন। এরপর কয়েনগুলো বাক্সবন্দী করে সোজা চলে যান দোকানে। কিনে ফেলেন ৪৫ হাজার পাউন্ডের একটি ব্র্যান্ড নিউ বিএমডব্লিউ।   চীনের ফুজিয়ান প্রদেশের দোকানের সেলস ম্যানেজার মি. জু বলেন, ‘তিনি পাইকারী ব্যবসায়ী। গাড়িটি ক্রয়ের পর প্রথম কিস্তির অর্থ কয়েনে পরিশোধ করবেন বলে আমাদের খুব জোরাজুরি করেন। তাও আবার প্রতিটা ৫ ইয়ানের কয়েন। তবে এ কথা ঠিক তিনি দীর্ঘদিন ধরে ওই কয়েনগুলো জমা করেছেন। সব মিলে ৭০ হাজার ইয়ান হবে। গাড়ির প্রথম কিস্তি ৭ হাজার ৯৫৪ পাউন্ড শেষমেশ এই কয়েন দিয়েই শোধ করেছেন তিনি।’   ১০টি বাক্সের মধ্যে থাকা কয়েনগুলো ওই ব্যবসায়ীর বাড়ি থেকে নিয়ে আসেন দোকানের বেশ কয়েকজন কর্মচারী। আনার পর সেগুলো দোকানের মেঝেতে
চোখের ভেতর বুলেট ও ২৭ কন্টাক্ট লেন্স

চোখের ভেতর বুলেট ও ২৭ কন্টাক্ট লেন্স

বছরজুড়ে কত ঘটনাই না ঘটে। অনেক ঘটনা এতটাই আমাদের অবাক করে যে, সেগুলো অনেকদিন মনে থাকে। বিশেষ করে সেগুলো যদি মেডিকেল সায়েন্স বিষয়ক হয় তাহলে তো কথাই নেই। ২০১৭ সালের অদ্ভুত কিছু ঘটনা নিয়ে এ প্রতিবেদনের পড়ুন শেষ পর্ব।   ৪৫ বছর বয়স্ক একজনকে লক্ষ্য করে ০.২২ ক্যালিবার পিস্তল দিয়ে গুলি করা হলে বুলেটটি কাঠের দরজা ভেদ করে তার আই সকেটে আশ্রয় নেয়। চিকিৎসকরা বুলেট গেঁথে যাওয়া আই সকেটের স্ট্রাইকিং ইমেজ ক্যাপচার করেন। বুলেট লোকটির মাথার খুলিতে ফ্র্যাকচার করতে পারেনি। লোকটিকে যখন ইমার্জেন্সি রুমে আনা হয়, তার তীব্র ব্যথা হচ্ছিল। তার চোখের কোণে ক্ষত এবং পাতায় অশ্রুনালীতে ড্যামেজ ছিল। বুলেট অপসারণ করতে এবং অশ্রুনালীর ড্যামেজ সারিয়ে তুলতে তাকে দ্রুত সার্জারি রুমে নিয়ে যাওয়া হয়। সবাই যখন আশঙ্কা করছিল লোকটি চিরদিনের মতো অন্ধ হয়ে যাবে; সেই আশঙ্কা মিথ্যা প্রমাণ করে লোকটি স্বাভাবিক দৃষ্টিশক্তি ফিরে পায়।
বিয়ের পোশাকে ঢেকে যাবে মাউন্ট এভারেস্ট

বিয়ের পোশাকে ঢেকে যাবে মাউন্ট এভারেস্ট

পোশাক নাকি রেলগাড়ি! শুরুটা দেখা গেলেও শেষটা খুঁজে পাওয়া মুশকিল। অনেকে ভাবছেন এ আবার কেমন পোশাক? হ্যাঁ, এটি অন্যান্য পোশাকের মতো দেখতে হলেও লম্বায় রাত-দিন তফাৎ। অর্থাৎ পোশাকটির দৈর্ঘ্য আট কিলোমিটারেরও অধিক। সত্যি অবাক করা কাণ্ড। নিজের বিয়ে স্মরণীয় করে রাখতে ফ্রান্সের এক তরুণী এই অভিনব পোশাক বেছে নিয়েছেন। বলা যায়, এতে তিনি সফল। কেননা পোশাকটি ইতিমধ্যে বিশ্ব রেকর্ড গড়ে নাম উঠিয়েছে গিনেস বুকের পাতায়।   ফরাসি কনস্ট্রাকশন কোম্পানি ডায়নামিক প্রজেক্ট তৈরি করেছে এই গাউন। সাধারণত নারীদের গাউন তৈরি করতে ৫ থেকে ১০ মিটার কাপড় যথেষ্ট। খুব বেশি হলে ২০ মিটার। সেখানে বিয়ের জন্য এই স্পেশাল সাদা গাউন তৈরি করা হয়েছে ৮ হাজার ৯৫ মিটার কাপড় দিয়ে। ১৫ জন কারিগর পোশাকের বিভিন্ন অংশ তৈরি করেছেন। তারপর সেগুলো জোড়া দেয়া হয়েছে। গিনেস বুক বলছে, বিয়ের এই পোশাক দিয়ে মাউন্ট এভারেস্ট ঢেকে ফেলা যাবে।  
চোখের ভেতর বুলেট ও ২৭ কন্টাক্ট লেন্স

চোখের ভেতর বুলেট ও ২৭ কন্টাক্ট লেন্স

বছরজুড়ে কত ঘটনাই না ঘটে। অনেক ঘটনা এতটাই আমাদের অবাক করে যে, সেগুলো অনেকদিন মনে থাকে। বিশেষ করে সেগুলো যদি মেডিকেল সায়েন্স বিষয়ক হয় তাহলে তো কথাই নেই। ২০১৭ সালের অদ্ভুত কিছু ঘটনা নিয়ে এ প্রতিবেদনের পড়ুন শেষ পর্ব।   ৪৫ বছর বয়স্ক একজনকে লক্ষ্য করে ০.২২ ক্যালিবার পিস্তল দিয়ে গুলি করা হলে বুলেটটি কাঠের দরজা ভেদ করে তার আই সকেটে আশ্রয় নেয়। চিকিৎসকরা বুলেট গেঁথে যাওয়া আই সকেটের স্ট্রাইকিং ইমেজ ক্যাপচার করেন। বুলেট লোকটির মাথার খুলিতে ফ্র্যাকচার করতে পারেনি। লোকটিকে যখন ইমার্জেন্সি রুমে আনা হয়, তার তীব্র ব্যথা হচ্ছিল। তার চোখের কোণে ক্ষত এবং পাতায় অশ্রুনালীতে ড্যামেজ ছিল। বুলেট অপসারণ করতে এবং অশ্রুনালীর ড্যামেজ সারিয়ে তুলতে তাকে দ্রুত সার্জারি রুমে নিয়ে যাওয়া হয়। সবাই যখন আশঙ্কা করছিল লোকটি চিরদিনের মতো অন্ধ হয়ে যাবে; সেই আশঙ্কা মিথ্যা প্রমাণ করে লোকটি স্বাভাবিক দৃষ্টিশক্তি ফিরে পায়।
৬ বছরেই তাকে নিয়ে হইচই

৬ বছরেই তাকে নিয়ে হইচই

বয়স সবে মাত্র ছয়। এই বয়সেই গোটা দুনিয়ায় হইচই ফেলে দিয়েছে রুশ শিশুকন্যা অ্যানাস্তাসিয়া কেনিজেভা অ্যানা। বিশ্বের বাঘা বাঘা সংবাদমাধ্যম ফলাও করে ছাপছে তার খবর। কিন্তু কেন? এক কথায় উত্তর দিলে, নিজের ইনস্টাগ্রামে রেকর্ডসংখ্যক অনুসারী রয়েছে তার। এবং তারাই তাকে ‘বিশ্ব সুন্দরী’র খেতাব দিয়েছেন।   ইংলিশ জনপ্রিয় ট্যাবলয়েড ‘মেট্রো' জানিয়েছে, অ্যানার মা তাকে একটি ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট খুলে দেন। অবিশ্বাস্য ব্যাপার হলো, অ্যাকাউন্ট তৈরি করার পর পরই আড়াই মিলিয়ন অনুসারী যোগ দেয় তার ইনস্টাগ্রামে। ইতোমধ্যে সেটা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ মিলিয়নেরও অধিক।   বলা যায়, অ্যানাকে এ উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া কিংবা তাকে সুন্দরী হিসেবে বিশ্বের সামনে হাজির করার পেছনের কারিগর তার মা। যিনি নিয়মিত মেয়ের মডেলিং অ্যাডভেঞ্চারের ছবিগুলো ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেন।   সামাজিক মাধ্যমে অ্যানার তুমুল জনপ্রিয়তা দেখে ই