বাংলাদেশ

তফসিল এখনই না দিতে ইসিকে চিঠি ঐক্যফ্রন্টের

রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ শেষ না হওয়া পর্যন্ত একাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা না করতে নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। শনিবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা কামাল হোসেন স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি চিঠি প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) দপ্তরে পৌঁছে দেন গণফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক (প্রশিক্ষণ) রফিকুল ইসলাম পথিক। ওই সময় সিইসির সভাপতিত্বে ইসির ৩৮তম কমিশন সভা চলছিলো। তফসিলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে রোববার কমিশনের নির্ধারিত সভা রয়েছে। কামালের চিঠিতে বলা হয়, “প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সংলাপ অব্যাহত আছে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক জানিয়েছেন, ৮ নভেম্বরের পরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে প্রধানমন্ত্রীর আবারো সংলাপের বিষয়টি বিবেচনায় রয়েছে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট প্রধানমন্ত্রীর সাথে আবারো সংলাপে বসার ব্যাপারে ইচ্ছুক। “এই
৪ তারিখে সিদ্ধান্ত জানাবো: সিইসি

৪ তারিখে সিদ্ধান্ত জানাবো: সিইসি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তারিখ আগামী ৪ তারিখে কমিশনের সভা শেষে জানানো হবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। বৃহস্পতিবার (১ নভেম্বর) নির্বাচনের সার্বিক প্রস্তুতি অবহিত করে তফসিলের তারিখ নিয়ে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের একথা জানান। রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ‘নির্বাচনের প্রস্তুতি সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে জানাতে এসেছিলাম। ভোটার তালিকা, নির্বাচনের কেন্দ্র ইত্যাদি নিয়ে কথা হয়েছে। প্রত্যেক নির্বাচনের আগেই এরকম হয়ে থাকে। সেই হিসবে প্রস্তুতি নিয়ে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করলাম। রাষ্ট্রপতি প্রস্তুতি নিয়ে সন্তুষ্ট।’ নির্বাচন কবে হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তফসিলই তো হয়নি। কমিশনের সঙ্গে আলাপ করে আগামী ৪ তারিখের সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এটা রুটিন কাজ। কখন নির্বাচন হবে, আমাদের প্রস্তুতি কী সে
গণভবনে ঐক্যফ্রন্টের নেতারা

গণভবনে ঐক্যফ্রন্টের নেতারা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সংলাপে অংশ নিতে গণভবনে প্রবেশ করেছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্টের ২১ সদস্যের প্রতিনিধি দল প্রবেশ করেন। তাদের মধ্যে বিএনপি নেতা ড. আবদুল মঈন খান সন্ধ্যা ছয়টায় গণভবনে পৌঁছান। সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপ। সংলাপে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১৪ দলের ২৩ প্রতিনিধি এবং গণফোরাম সভাপতি ড. কামালের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ২১ জন প্রতিনিধি অংশ নেবেন।
সংলাপ ফলপ্রসূ হবে বলে মনে হয় না: এরশাদ

সংলাপ ফলপ্রসূ হবে বলে মনে হয় না: এরশাদ

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আওয়ামী লীগের সংলাপ ফলপ্রসূ হবে বলে মনে হয় না। নির্বাচনে ইভিএমের ব্যবহার নিয়ে এরশাদ বলেন, ইভিএম পরীক্ষিত নয়। এটি আমরা সন্দেহের চোখে দেখি। ইভিএম দিলে কারচুপির ঘটনা ঘটতে পারে। তাই জাতীয় পার্টি এর পক্ষে নেই। বৃহস্পতিবার দুপুরে রংপুরে একদিনের সফরে এসে পর্যটন মোটেলে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগের সাথে ঐক্যফ্রন্টের সংলাপ নিয়ে সংশয় প্রকাশ করে এরশাদ বলেছেন, হাসিনার পদত্যাগসহ ৭ দফার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের যে সকল দাবি রয়েছে সেটি মানা হাসিনার পক্ষে সম্ভব নয়। তাই সংলাপটি ফলপ্রসূ হবে বলে আমার মনে হয় না। আওয়ামী লীগ বলেছে সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে কিন্তু জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট চেয়েছে সংবিধানের বাহিরের অনেক কিছু। বিএনপি’র নির্বাচনে অংশ নেয়া সম্পর্কে এরশাদ বলেন, খালেদা জিয়া জেলে, তারেক রহমান দেশের বাহিরে। দলে নেতৃত্ব দেবে
সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী: সবাই মিলে দেশটাকে গড়তে হবে

সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী: সবাই মিলে দেশটাকে গড়তে হবে

ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের স্বাগত জানিয়ে সূচনা বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রীগণভবনে সংলাপের শুরুতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের স্বাগত জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, 'গণভবন জনগণের ভবন। সবাইকে স্বাগত জানাচ্ছি।' সংলাপের শুরুতে সূচনা বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, 'আওয়ামী লীগ গত ৯ বছর ক্ষমতায় থেকে দেশের যা উন্নয়ন করেছে তা সবাই দেখতে পেয়েছেন। এখন সবাই মিলে দেশটাকে গড়তে হবে। কারণ, দেশটা আমাদের সবার। সবাই মিলে দেশটাকে গড়তে হবে।' তিনি আরও বলেন, 'আজকে এই অনুষ্ঠানে আপনারা এসেছেন জনগণের ভবনে। এই গণভবনে আপনাদের স্বাগত জানাই। দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি এবং দীর্ঘ সংগ্রামের পথ পাড়ি দিয়ে গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রেখেছি। এটা বাংলাদেশের উন্নয়নের গতিধারা অব্যাহত রাখার ক্ষেত্রে বিরাট অবদান রাখবে বলে মনে করি। এই দেশটা আমাদের। সব মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা, দেশকে এগিয়ে ন
মির্জা ফখরুলের সঙ্গে বৈঠক করেছেন কাদের সিদ্দিকী

মির্জা ফখরুলের সঙ্গে বৈঠক করেছেন কাদের সিদ্দিকী

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে বৈঠক করেছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী। মঙ্গলবার (৩০ অক্টোবর) রাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুরে কাদের সিদ্দিকীর বাসভবনে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় দেড় ঘণ্টার চলমান বৈঠকে সংলাপ ও সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতির আলোকে করণীয় বিষয়ে দুই নেতার মধ্যে আলোচনা হয়। বিএনপির পক্ষ থেকে মির্জা ফখরুল জাতীয় ঐক্যের সাথে থাকতে কাদের সিদ্দিকীর প্রতি আহ্বান জানান। এছাড়া তিনি বঙ্গবীরের কাছে জাতীয় ঐক্যের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য তুলে ধরেন। একটি সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কী করতে চায় বিএনপি, তাও তুলে ধরেন মির্জা ফখরুল। কাদের সিদ্দিকী জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের আজ তার বাসায় নৈশভোজের দাওয়াত দেয়। এর আগে বেলা ১২ টায় মতিঝিল অফিসে সংবাদ সম্মেলন করেন বঙ্গবীর।  
‘বাংলাদেশ : কামিং টু আমেরিকা’

‘বাংলাদেশ : কামিং টু আমেরিকা’

নিউইয়র্ক থেকে : মিশিগান অঙ্গরাজ্যের বাংলা টাউনে উদ্বোধন হল বাংলাদেশের লাল-সবুজে আঁকা সর্ববৃহৎ ম্যুরাল ‘বাংলাদেশ ঃ কামিং টু আমেরিকা’। বাংলা টাউন খ্যাত হামট্রামিক ও ডেট্রয়েট শহরের সীমানায় বিশাল দেয়াল জুড়ে লাল সবুজে বাংলাদেশ। এ টাউনের প্রবেশ দ্বারে চোখ আটকে যাবে বিশাল এ চিত্রকর্মে। আর এর মধ্যদিয়েই বহুজাতিক এ সিটিতে ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশের জয়গান ধ্বনিত হবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে। এ টাউনের এক তৃতীয়াংশ অধিবাসীই বাংলাদেশি। কয়েক দশকে এ শহরে গড়ে উঠেছে বাংলাদেশি অভিবাসীদের আবাস। শহরে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, দোকানপাট গড়ে তুলেছেন বাংলাদেশিরা। স্থানীয় অর্থনীতি ও রাজনীতিতে বাংলাদেশীদের অংশগ্রহন বাড়লেও বাংলার এ ম্যুরাল বৃহৎ জনগোষ্ঠীর কাছে বাংলাদেশি অভিবাসীদের খুব ভালোভাবেই উপস্থাপন করবে। অভিবাসন বিরোধী সরকারের সময় আঁকা এ বিশাল ম্যুরাল নিজেদের অধিকারের, মর্যাদার, ও
কোনও সংলাপ ব্যর্থ হয় না, সম্ভাবনার সৃষ্টি হয়: আ স ম রব  ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ১৬ সদস্য যারা যাচ্ছেন

কোনও সংলাপ ব্যর্থ হয় না, সম্ভাবনার সৃষ্টি হয়: আ স ম রব ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ১৬ সদস্য যারা যাচ্ছেন

ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের প্রতিনিধি দল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সংলাপ করতে যাবেন বলে জানিয়েছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আব্দুর রব। তিনি বলেন, ‘কোনও সংলাপ ব্যর্থ হয় না। একটি সম্ভাবনার সৃষ্টি হয়।’ মঙ্গলবার (৩০ অক্টোবর) মতিঝিলে ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠক শেষে তিনি এসব কথা বলেন। আ স ম রব বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপে ঐক্যফ্রন্টের সব দলের প্রতিনিধি থাকবেন। আজ প্রধানমন্ত্রী সংলাপের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। এর মাধ্যমে আলোচনা হচ্ছে হবে এবং চলবে। ’ আ স ম রব আরও বলেন, ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে আমাকে মুখপাত্র করা হয়েছে। ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করা ছাড়া কেউ ঐক্যফ্রন্টের কথা বলবে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন যাতে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হতে পারে, সব
সংলাপে যাচ্ছেন ১৬ সদস্যের প্রতিনিধি দল

সংলাপে যাচ্ছেন ১৬ সদস্যের প্রতিনিধি দল

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ১৬ সদস্যের প্রতিনিধি দল সংলাপে অংশ নিতে যাচ্ছেন। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের এ সংলাপ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে অনুষ্ঠিত হবে। আজ মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় মতিঝিলে ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে ঐক্যফ্রন্টের এক সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। এর আগে রোববার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংলাপের আহ্বান জানিয়ে ৭ দফা দাবি এবং ১১টি লক্ষ্য সংবলিত চিঠি দেয় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। মঙ্গলবার সকালে সে চিঠির জবাব আসে ড. কামালের বাসায়। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, জেএসডি
ভুল বুঝতে পেরে যুক্তরাজ্যে ফিরতে চায় আইএসে যোগ দেওয়া বাংলাদেশি যুবক

ভুল বুঝতে পেরে যুক্তরাজ্যে ফিরতে চায় আইএসে যোগ দেওয়া বাংলাদেশি যুবক

কয়েক বছর আগে যুক্তরাজ্য থেকে সিরিয়ায় গিয়ে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসে যোগ দেয় বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত ব্রিটিশ যুবক আশরাফ মাহমুদ ইসলাম। নিজের ভুল বুঝতে পেরে এখন যুক্তরাজ্যে নিজের পরিবারের কাছে ফিরতে চায় সে। তবে দ্বৈত নাগরিকত্ব থাকার কথা জানিয়ে তার ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিলের আনুষ্ঠানিক প্রজ্ঞাপন জারি করেছে যুক্তরাজ্য সরকার। বিষয়টি নিয়ে এখন আদালতে লড়াই করছেন তার আইনজীবীরা। ১৯৯৬ সালে লন্ডনে জন্ম নেওয়া আশরাফ সম্ভবত ২০১৫ সালে সিরিয়ায় যায়। দেশে ফিরে আসার আবেদনে সে জানায়, সিরিয়ার মানুষকে সাহায্য করার চিন্তা থেকেই সেখানে গিয়েছিল। কিন্তু সহিংসতা বাড়ার পর সে আইএসবিরোধী কুর্দি বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পনের সিদ্ধান্ত নেয়। আর গত ১০ মাস ধরে সে তাদের হাতেই বন্দী আছে। সে এখন জন্মভূমি যুক্তরাজ্যে ফিরে আসতে চায়। তবে সন্ত্রাসী সংগঠনে যোগ দেওয়ায় যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তার নাগরিকত্ব বাতিল করার বিষয়ে একটি আনু