বিশেষ প্রতিবেদন

ভাষার প্রতি ভালোবাসা

ভাষার প্রতি ভালোবাসা

মোবাইল অপশনে গিয়ে রেডিও চালু করতেই মনটা বিষিয়ে উঠলো। দেশের একটি অন্যতম জনপ্রিয় এফএম থেকে বাংলা ভাষাকে যেভাবে যাচ্ছেতাইভাবে উপস্থাপন করতে শুনলাম। মন চাইছিল না আর রেডিও শুনতে। মনের মধ্যে ক্ষোভ ফুঁসে ওঠে। অবাক লাগে এসব গণমাধ্যম কিভাবে নিজের ভাষা-সংস্কৃতিকে এভাবে প্রকাশ্যে জবাই দেয়। নিজ ভাষাকে বিকৃত করে উপস্থাপন করা কোন ধরনের শৈল্পিক কাজ, জবাব আছে কি আপনাদের কাছে?   ভণ্ডামির এখানেই শেষ নয়, মহান ভাষার মাসে এদের আবার ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা ভালোবাসা আর দেশপ্রেম উপচে পড়ে। এ উপলক্ষে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে তারা। আর অন্যদিকে সারা বছর নিজ ভাষার গলায় করাত চালায়। বারো জাতের সংমিশ্রণে বাংলার নিজস্ব সত্তা কালে কালেই পরচর্চার জাতাকলে পিষ্ট হচ্ছে। তবে আমি বলছি না, অন্য ভাষায় কথা বলা যাবে না, অন্য ভাষা শেখা যাবে না, জানা যাবে না। আমার মতে, এগুলো কেবল ব্যক্তিগত দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য কিন্তু তার
সবার চোখ খালেদার রায়ে

সবার চোখ খালেদার রায়ে

কী হবে বৃহস্পতিবার! কার পক্ষে যাবে রায়? সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সত্যিই কি সাজা হবে? সাজা হলে, তার ধরন কী হতে পারে? এমন সব প্রশ্ন নিয়েই জাতি তাকিয়ে আছে খালেদার রায়ের দিকে।   রায়ের তারিখ ঘোষণার পর থেকেই টানটান উত্তেজনা জনমনে। সময় ঘনিয়ে আসতেই সেই উত্তেজনার পারদ যেন ঊর্ধ্বমুখী। রায়কে ঘিরে আওয়ামী লীগ-বিএনপি মুখোমুখি অবস্থানে। রাজনীতির মাঠে রায় নিয়ে আলোচনায় গুরুত্ব পাচ্ছে জাতীয় নির্বাচনও। নির্বাচনে খালেদা জিয়াকে অযোগ্য ঘোষণা করতেই সরকার এ মামলায় বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে, এমন অভিযোগ বিএনপির নেতাকর্মীদের।   অন্যদিকে সরকারি দল আওয়ামী লীগ বলছে, খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপি বিশেষ রাজনীতি করতে চাইছে।       তিনবারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার এ রায়কে কেন্দ্র করে এখন উত্তেজনা মিডিয়াপাড়াতেও। রায়ের খবরেই মিডিয়ায় চলছে শ

বাংলাদেশের মাদরাসা শিক্ষকদের একমাত্র অরাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের সভা

বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহ’র মুহতারাম সভাপতি হযরত মাওলানা মুহাম্মদ হুছামুদ্দীন চৌধুরী বলেন, শিক্ষকদের রাস্তায় নামিয়ে এ দেশ এগিয়ে নেওয়া যাবে না। প্রেসক্লাবে শিক্ষকরা অনশন করে কেন জাতীয়করণ চাইতে হয়? শিক্ষকদের একক দাবী জাতীয়করণ অচিরেই ঘোষণা করা হোক। বাংলাদেশের মাদরাসা শিক্ষকদের একমাত্র অরাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের উদ্যোগে ঐতিহাসিক সোরাওয়ার্দী উদ্যানে ২৭ জানুয়ারি এ মহাসমাবেশের আয়োজন করা হয়। সংগঠনের সভাপতি ও দৈনিক ইনকিলাব সম্পাদক এ এম এম বাহাউদ্দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মহাসম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। মহাসমাবেশ উদ্বোধন করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি উন্নয়ন বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। জাতীয় সংসদের ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্

পুলিশের নতুন মহাপরিদর্শক (আইজিপি) হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী

পুলিশের নতুন মহাপরিদর্শক (আইজিপি) হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী। বৃহস্পতিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পুলিশ-১ অধিশাখার উপসচিব মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেনের সই করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের আদেশক্রমে এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। এ নিয়োগ আদেশ আগামী ৩১ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হবে। ওইদিন বর্তমান আইজিপি একেএম শহীদুল হকের চাকরির মেয়াদ শেষ হবে। জাবেদ পাটোয়ারী পুলিশ বাহিনীতে যোগ দেন ১৯৮৬ সালে। সম্মিলিত মেধা তালিকায় তার অবস্থান চতুর্থ এবং পুলিশের ব্যাচে প্রথম। জাবেদ পাটোয়ারীর গ্রামের বাড়ি চাঁদপুর সদরে। বঙ্গবন্ধুর জেলজীবনের ওপর লেখা গ্রন্থ ‘কারাগারের রোজনামচা’র বিভিন্ন তথ্যপ্রমাণ সংগ্রহে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এসবির রেকর্ড রুমে ১৯৪৮ থেকে ১৯৭১ সাল
মৌলভীবাজারের জুড়ীতে মরহুম জননেতা জনাব এম. এ. মুমিত আসুক সাহেব ও ডাঃ কাজী আকমল হোসেনের স্মরণ সভা

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে মরহুম জননেতা জনাব এম. এ. মুমিত আসুক সাহেব ও ডাঃ কাজী আকমল হোসেনের স্মরণ সভা

মাহবুবুল আলম শামীম ::: গত ২৬ এ জানুয়ারি ২০১৮ ইংরেজি শুক্রবার সন্ধ্যায়, মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার পশ্চিম জুড়ী ইউনিয়নে সূর্যতরূণ ক্লাবের উদ্যোগে মরহুম জননেতা জনাব এম. এ. মুমিত আসুক ও মরহুম ডাঃ কাজী আকমল হোসেন সাহেবের স্মরণ সভায় বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক দলের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত থেকে এই দুইজন মরহুম গুণীজনের অতীত ইতিহাস ও অবদানের কথা স্মরণ করেন। উক্ত স্মরণ সভায় জুড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান জনাবা গুলশান আরা মিলি প্রধান অতিথি হিসেবে এবং অন্যান্য বিশেষ অতিথির মত আমাকেও উপস্থিত থেকে এই দুইজন কীর্তিমান ব্যক্তিকে স্মরণ করে দুটি কথা বলার সুযোগ হয়েছিল। অন্যান্য রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দের সাথে জুড়ী উপজেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব সুরমান আহমদ চৌধুরীও বক্তব্য প্রদান করেন। আমরা এই দুইজন মরহুমের জান্নাত নাসিব কামনা করি। পাশাপাশি আমার এই সূর্যতরূণ ক্লাবের মহৎ উদ্যোগ কে অভিনন্দন জানাই এবং উপদেষ্টা জনাব

সাংবিধানিক পরিচয় সংকটে ‘মুক্তিবাহিনী, মুক্তিফৌজ, মুক্তিযোদ্ধা’! : ফারুক ওয়াহিদ

পবিত্র সংবিধানে লেখা আছে: “আমরা, বাংলাদেশের জনগণ, ১৯৭১ খ্রীষ্টাব্দের মার্চ মাসের ২৬ তারিখে স্বাধীনতা ঘোষণা করিয়া ২[জাতীয় মুক্তির জন্য ঐতিহাসিক সংগ্রামের] মাধ্যমে স্বাধীন ও সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত করিয়াছি;” -এখানে একবারের জন্য উচ্চারণ করা হলো না মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিবাহিনী, মুক্তিফৌজ। তার মানে কি ধরে নিব বাংলাদেশে কোনো মুক্তিযুদ্ধ হয় নাই! বাংলাদেশে কোনো সশস্ত্র যুদ্ধ হয় নাই? অথচ বাংলা একাডেমির ‘ব্যবহারিক বাংলা অভিধানে’-এই পবিত্র সংবিধানের ‘মুক্তি সংগ্রাম’ শব্দটার অর্থ আছে এভাবে- ‘মুক্তিসংগ্রাম’- “স্বাধীনতা ও সামাজিক মুক্তির জন্য যে আন্দোলন” -এখানে একবারও যুদ্ধে বা সশস্ত্র যুদ্ধের কথা বলা হয় নাই। অর্থাৎ ‘মুক্তিসংগ্রাম’ হলো মুক্তির জন্য আন্দোলন কিন্তু সেটা যুদ্ধ নয় বা সশস্ত্র যুদ্ধ নয়। আবার বাংলা একাডেমির একই অভিধান অর্থাৎ ‘ব্যবহারিক বাংলা অভিধানে’-এ ‘মুক্তিবাহিনী, মুক্
ইমিগ্রেশন : বাংলাদেশী কিশোরদের আমেরিকায় আসার লোমহর্ষক কাহিনী

ইমিগ্রেশন : বাংলাদেশী কিশোরদের আমেরিকায় আসার লোমহর্ষক কাহিনী

অপ্রাপ্ত বয়স্ক বাংলাদেশীরাও স্বপ্নের দেশে পাড়ি জমাচ্ছে দালালকে মোটা অর্থ দিয়ে। বিভিন্ন দেশ ঘুরে মেক্সিকো হয়ে দুর্গম সীমান্ত পথে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের সময় প্রায় সকলেই ধরা দিচ্ছে। আর যাদের দুর্ভাগ্য, তারা ভয়ংকর প্রাণীর পেটে কিংবা পানিতে ডুবে মারা যাচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে এমসি করুণ পরিণতির শিকার হয় বাংলাদেশি আরমান শেখ। পানামা খাল পাড়ি দেয়ার সময় সে ভেসে যায় ¯্রােতে। বেশ কয়েক সপ্তাহ পর তার অর্ধ গলিত লাশ উদ্ধার করে সীমান্ত পুলিশ। এরপর কফিনে বন্দি হয় আরমান ও তার পরিবারের সুখ-স্বপ্ন। আরমানের মৃত্যু সংবাদ গোপন থাকেনি। তারপরও এ পথে পা বাড়া্েনা বন্ধ হয়নি। যুবক-যুবতীর পাশাপাশি কিশোর-কিশোরীরাও প্রিয় মাতৃভ’মি ছাড়ছে দালালের খপ্পরে পড়ে। মাথাপিছু ২৫ থেকে ৩০ লাখ টাকা দালালকে প্রদানের পাশাপাশি পকেট খরচ বাবদ আরো কয়েক হাজার ডলার লাগছে জীবন-স্বপ্নের এ জার্নিতে। যদিও যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকলেই কিংবা ইমিগ্রেশন পুলিশে ধ
আমাকে ক্ষমা করে দিন, আমি আমার ভুল বুঝতে পেরেছি ::: তসলিমা নাসরিন

আমাকে ক্ষমা করে দিন, আমি আমার ভুল বুঝতে পেরেছি ::: তসলিমা নাসরিন

মুক্তমনা নির্বাসিত নারীবাদী লেখিকা তসলিমা নাসরিন বলেছেন, “এক সময় আমি ব্যক্তিত্ববানদের পেছনে ঘুরেছি। ব্যক্তিত্বহীনরা আমার পেছনে ঘুরেছে। আমি দৈহিক সম্পর্কে নেশাগ্রস্ত হয়ে পড়ি। সহজেই বুড়ো, মাঝ বয়সী ও প্রবীণ বন্ধুদের নিয়ে দেহজ খেলায় মেতে উঠতাম। কিন্তু এখন দেহজ খেলায় মত্ত থাকার বয়স আর নেই। সুখের পায়রারা কেউ আজ আর আমার পাশে নেই।” তসলিমা আরো বলেন, প্রায় দেড় যুগ ধরে তিনি নির্বাসনে দিনযাপন করছেন। মৌলবাদীদের আর্শীবাদপুষ্ট বিএনপি সরকারও তাকে দেশে ফিরতে দেননি। স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি হিসেবে দাবী করা আওয়ামী লীগ সরকারও তাকে দেশে ফেরার সুযোগ দেননি। তিনি এখন ক্লান্ত। দেশে ফিরতে চান। দেশেই বাকিটা জীবন কাটাতে চান। তসলিমা নাসরিন আগের মতো এখন আর লিখতেও পারছেন না বা লিখছেন না। ‘উতল হাওয়া, ‘আমার মেয়ে বেলা’, ‘ভ্রমর কইও যাইয়া’, বা ‘ক’ -এর মতো বই আর আসছে না। আগের মতো কাব্যও নেই, কবিতাও না। একাধিক স্বামী ও এক

ভারত থেকে মাংস আমদানি বন্ধের দাবি

ভারত থেকে মাংস আমদানি ও গরুর হাটের চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন মাংস ব্যবসায়ী সমিতি। রোববার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির ছোট মিলেনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব রবিউল আলম এ দাবি জানান। তিনি বলেন, মাংস আমদানির জন্য দেশের জনগণ কোনো সুবিধা পাচ্ছে না, মাংসের দামও কমেনি। এর ফলে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত চামড়া প্রোডাক্ট অব দি ইয়ার এখন হুমকির মুখে। হাজার হাজার কোটি টাকা খরচ করে আধুনিক চামড়া শিল্পনগরী গড়ে তোলা হয়েছে। সেখানে মাংস আমদানি হলে রপ্তানি ধ্বংস হবে। মাংস ব্যবসায়ী সমিতি আরো দাবি করে, গাবতলী গরুর হাটের ইজারাদার ইজারার শর্ত মানছে না, আইনও মানছে না। ইচ্ছেমত অবৈধ চাঁদাবাজি করছে। এ বিষয়ে ঢাকা সিটি করপোরেশনে শত শত অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। মাংস ব্যবসায়ীরা চাঁদাবাজির শিকার হওয়ায় অতিরিক্ত মূল্য জনগণের কাছ থেকে নেওয়া হচ্ছে। রবিউল আলম ঢাক
আমেরিকায় এখনো টিকে রয়েছে সাদা কালোর বৈষম্য

আমেরিকায় এখনো টিকে রয়েছে সাদা কালোর বৈষম্য

তুহিন চৌধুরী :::: সভ্য দেশের উদাহরণ আমেরিকা, সভ্যতা কে কেমন করে তুড়ি মেড়েই যাচ্ছে যেনো প্রতিনিয়তই। মুখে সভ্যতার বুলি আওড়ানো আমেরিকাতে সবচেয়ে বেশি সভ্যতার অধঃপতন ঘটে যাচ্ছে। সারা বিশ্বে যখন সকল ক্ষেত্রে সাম্য প্রতিষ্টা করতে লড়াই চলছে, সে ক্ষেত্রে আমেরিকার শাসনযন্ত্র যেনো অনেকটাই উলটোপথে হাটছে, যেন রাত কানা অসুখে ভূগছেন আমেরিকানরা, এক চোখ দিয়ে তারা আলো দেখেন তা্র অন্য চোখ আধার দিয়ে ঢেকে রেখেছেন । আমেরিকার বুকে যা ভাবা ঠিক মানায় না তারপরও দেশটিতে ব্ল্যাক পিপল হোয়াইট পিপলের বর্ণ বৈষম্য আজও বিদ্যমান । অভিবাসী দেশ হওয়াতে আমেরিকাকে বিশ্ব মানচিত্র বলা যেতে পারে। পৃথিবীর সাদা, কালো, হিন্দু, মুসলমান, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান,ইহুদী সব জাতির সব ধর্মের লোকেদের বিচরণের স্থান নৈসর্গিক এ স্বর্গ আমেরিকায়। কিন্তু অবাক করার বিষয় হল আমেরিকাতে জাতি,ধর্ম, বর্ণ বৈষম্য থেকে এখনো পুরোপুরি মুক্ত হতে পারেনি। এখোনো পথে, ঘাটে