মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

আগামীকাল আমেরিকার বিরুদ্ধে ইরানের মামলার রায়

আগামীকাল আমেরিকার বিরুদ্ধে ইরানের মামলার রায়

আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে আমেরিকার বিরুদ্ধে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের দায়েরকৃত মামলার রায় ঘোষণা করা হবে আগামীকাল (বুধবার)। তেহরানের বিরুদ্ধে নতুন করে একতরফা অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার পর ইরান গত জুলাই মাসে নেদারল্যান্ডের হেগে অবস্থিত আন্তর্জাতিক আদালতে এ মামলা দায়ের করেছে। এরইমধ্যে কয়েক দফায় এর শুনানি সম্পন্ন হয়েছে। ২০১৫ সালে ঐতিহাসিক পরমাণু সমঝোতা বা জেসিপিওএ সই করার পর কিছু নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেছিল আমেরিকা। কিন্তু চলতি বছরের ৮ মে ওই সমঝোতা থেকে একতরফাভাবে সরে গিয়ে আবারও কঠোরতম নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে ইরান যে অভিযোগ করেছে তাতে বলা হয়েছে, নতুন করে নিষেধাজ্ঞা চাপিয়ে দিয়ে ১৯৫৫ সালে তেহরান-ওয়াশিংটনের মধ্যে স্বাক্ষরিত অর্থনৈতিক সম্পর্ক সংক্রান্ত চুক্তি লঙ্ঘন করেছেন ট্রাম্প। তেহরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের কোনো
ইরানকে কোণঠাসা করার জন্য ট্রাম্প ও নেতানিয়াহুর চেষ্টা সফল হয় নি

ইরানকে কোণঠাসা করার জন্য ট্রাম্প ও নেতানিয়াহুর চেষ্টা সফল হয় নি

দখলদার ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে দেয়া ভাষণে আবারো ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ব্যাপারে কিছু ছবি তুলে ধরে দাবি করেছেন, রাজধানী তেহরানের দক্ষিণে ইরান গোপন পরমাণু কার্যক্রম চালাচ্ছে। ইরানের সঙ্গে বাণিজ্য সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে প্রচেষ্টা চালানোর জন্য তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়নেরও সমালোচনা করেন। ইরানের শান্তিপূর্ণ পরমাণু কার্যক্রমের ব্যাপারে ছবি তুলে ধরে বিশ্ববাসীকে ধোঁকা দেয়ার ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রীর চেষ্টা এটাই প্রথম নয়। এর আগে গত ৩০ এপ্রিল তিনি টেলিভিশনে বেশ কিছু ছবি, সিডি ও কাগজপত্র দেখিয়ে দাবি করেছিলেন, ইরান গোপনে পরমাণু অস্ত্র তৈরির চেষ্টা চালাচ্ছে। এরপর নেতানিয়াহু পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যেতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে রাজি করাতে সক্ষম হন। আমেরিকা প্রায় সাড়ে চার মাস আগে পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গেলেও বিশ্ব অঙ্গনে এখন সে নিজেই কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। পরমাণু সমঝোতার
মার্কিন ঘাঁটির বিরুদ্ধে রাশিয়ার কড়া হুশিয়ারি

মার্কিন ঘাঁটির বিরুদ্ধে রাশিয়ার কড়া হুশিয়ারি

পোল্যান্ডে স্থায়ী সামরিক ঘাঁটি স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে মার্কিন সরকার। সামরিক ঘাঁটি নিয়ে আমেরিকার তীব্র বিরোধিতা করেছে রাশিয়া। রুশ উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী আলেক্সান্দার গ্রুশকো বলেন, আমেরিকার এ ধরনের পদক্ষেপের ব্যাপারে নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি পোষণ করার যথেষ্ট কারণ রয়েছে। পোল্যান্ডে স্থায়ী ঘাঁটি নির্মাণের মার্কিন প্রচেষ্টা ইউরোপের নিরাপত্তাকে বিঘ্নিত করবে। সেই সঙ্গে রাশিয়ার সীমান্তের কাছে সেনা মোতায়েন না করার ব্যাপারে ন্যাটো জোটের সঙ্গে মস্কোর যে চুক্তি রয়েছে পোল্যান্ডে ঘাঁটি স্থাপন করলে তাও লঙ্ঘিত হবে। আর এটি বাস্তবায়ন হলে পূর্ব ইউরোপের নিরাপত্তা নিশ্চিতভাবে বিঘ্নিত হবে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সম্প্রতি পোল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেজ দুদার সঙ্গে এক বৈঠক শেষে বলেছেন, পোল্যান্ডে একটি বড় সামরিক ঘাঁটি স্থাপনের সম্ভাবনা খতিয়ে দেখছে ওয়াশিংটন।
‘অবর্ণনীয় নিষ্ঠুরতার নীতি অনুসরণ করছে ট্রাম্প’

‘অবর্ণনীয় নিষ্ঠুরতার নীতি অনুসরণ করছে ট্রাম্প’

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গত দুই বছর শুধু মার্কিন গণতন্ত্রের ওপর আঘাতই হেনেছেন। তাই আমেরিকানদের উচিত গণতন্ত্র উদ্ধার করতে লড়াই চালিয়ে যাওয়া। এমনই আহ্বান জানিয়েছেন হিলারি ক্লিনটন। হিলারি লিখেছেন, রিপাবলিকানরা আমাকে পরাজিত করে সীমান্তে অভিবাসী পরিবারগুলো আলাদা করাসহ অবর্ণনীয় নিষ্ঠুরতার নীতি অনুসরণ করছে। ট্রাম্প এবং তার সহযোগীরা এমন সব ঘৃণ্য কাজ করছেন, যেগুলো ঠিক করা প্রায় অসম্ভব। তিনি লিখেছেন, আমি মনে করি বিন্দুর মতো কিছু একটা আমাদের হতবুদ্ধি করে রেখেছে। তাই আমাদের চোখ বলের ওপর পড়ছে না। আর বলটি হলো আমেরিকান গণতন্ত্রকে রক্ষা করা। নাগরিক হিসেবে আমাদের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব এটি। কারণ এখন আমাদের গণতন্ত্র সঙ্কটের মুখে। রবিবার রাতে যুক্তরাষ্ট্রের সাময়িকী দ্য আটলান্টিকে প্রকাশিত এক নিবন্ধে হিলারি এসব কথা লিখেছেন বলে জানিয়েছে দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট। দেশটির গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশ ন
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অর্থ বিনিয়োগের মাধ্যমে ভিসা এবং গ্রীন কার্ড প্রাপ্তি প্রসঙ্গে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অর্থ বিনিয়োগের মাধ্যমে ভিসা এবং গ্রীন কার্ড প্রাপ্তি প্রসঙ্গে।

যুক্তরাষ্ট্রে অর্থ বিনিয়োগের মাধ্যমে পৃথিবী বিভিন্ন রাষ্ট্র থেকে বিনিয়োগকারী ভিসা প্রদান করা হয়। বিনিয়োগকারী ব্যক্তি এবং প্রতিষ্টান কে এই ক্ষেত্রে স্ব স্ব দেশ থেকে আইনানুযায়ী নিজের টাকা নিজের অ্যাকাউন্ট থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ব্যাংক এবং অন্যান্য আর্থিক সংস্থার মাধ্যমে আইনানুগ ভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আনা হয়।এই প্রসঙ্গে বাংলাদেশের বিনিয়োগকারীদের সম্পর্কে আলোচনা করা যাক; বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যিকভাবে চুক্তিভুক্ত রাষ্ট্র বিধায় বাংলাদেশ বণিকদের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিনিয়োগের মাধ্যমে ভিসা এবং গ্রিনকার্ড প্রাপ্তির প্রচুর সম্ভাবনা রয়েছে। নূন্যতম মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের মাধ্যমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন শহরে বিনিয়োগের মাধ্যমে আপনি গ্রীন কার্ড পেতে পারেন। আপনার নূন্যতম  পাঁচ লক্ষ  ডলার বিনিয়োগের মাধ্যমে আপনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সরাসরি গ্রীন কার্ড আবেদন করতে পারেন।
মার্কিন কংগ্রেসে প্রথম মুসলিম নারী

মার্কিন কংগ্রেসে প্রথম মুসলিম নারী

যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে প্রথম মুসলিম নারী হিসেবে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন রাশিদা তালিব। ৪২ বছর বয়সী রাশিদা ফিলিস্তিনি বংশোদ্ভূত। ডেমোক্রেট দল থেকে মনোনয়নপ্রাপ্ত রাশিদা মিশিগান রাজ্যের সাবেক আইনপ্রণেতা। মিশিগান আইনসভাতেও তিনি ছিলেন প্রথম নির্বাচিত মুসলিম নারী।   ফিলিস্তিনি অভিবাসী পরিবারের মেয়ে হিসেবে তার পরিবারে রাশিদাই প্রথম সন্তান, যিনি হাইস্কুল ডিপ্লোমা অর্জন শেষে কলেজ ডিগ্রি ও ল'ডিগ্রি অর্জন করেন। মিশিগান আইনসভায় তিনি সর্বোচ্চ ছয় বছর দায়িত্ব পালন করেছেন।   রাজ্যের ১৩ জেলার প্রতিনিধি হওয়ার দৌড়ে আছেন রাশিদা। ওই আসনে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দল রিপাবলিকান পার্টি কিংবা তৃতীয় কোনো দলের প্রার্থী না থাকায় নির্বাচনে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন রশিদা। নির্বাচিত হলে আগামী বছরের জানুয়ারি থেকে দুই বছরের জন্য দায়িত্ব পালন করবেন তিনি।   এক টুইট বার্
নিউইয়র্কে আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র কর্মশালা অনুষ্ঠিত

নিউইয়র্কে আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র কর্মশালা অনুষ্ঠিত

নিউইয়র্কে আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র দায়িত্বশীলদের সম্মেলনে বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ আল্লামা হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী বলেছেন, ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা কথায় নয়, নিজের জীবনে বাস্তবায়নের মাধ্যমে সবার সামনে তুলে ধরতে হবে। তাহলেই ইসলাম সম্পর্কে ভ্রান্ত ধারণা দূর হবে। গত রোববার ব্রঙ্কসের বাংলাবাজার জামে মসজিদে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ পরিবেশের মধ্য দিয়ে আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র দায়িত্বশীলদের কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এ উপলক্ষে আলোচনা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আবুল কাশেম ইয়াহইয়ার পরিচালনায় এবং আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ইউএসএ’র সহ সভাপতি মাওলানা সৈয়দ সাজিদুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আঞ্জুমানে আল ইসলাহর সভাপতি, শামসুল উলামা আল্লামা ফুলতলী (রা:) এর সন্তান বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ আল্লামা হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী। &nbs
আরো ১৬ বিলিয়ন চীনা পণ্যে মার্কিন শূল্কারোপ কার্যকর

আরো ১৬ বিলিয়ন চীনা পণ্যে মার্কিন শূল্কারোপ কার্যকর

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন নতুন করে চীনা আরো ১৬ বিলিয়নের পণ্যের ওপর শূল্কারোপ করেছে। দীর্ঘ প্রক্রিয়া ও পর্যালোচনা শেষে দেশটির সাথে বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে অন্তত ২৫শতাংশ হারে শূল্কারোপ করা হল। এবার চীনের রপ্তানি করা অন্তত ২৭৯টি পণ্যকে লক্ষবস্তু করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’।   মঙ্গলবার ওয়াশিংটন কর্তৃপক্ষ জানায়, বেইজিং এখানে অন্যায়ভাবে ব্যবসা করছে। যুক্তরাষ্ট্র তাদের যে হারে শূল্ক দেয় তারা তা দেয় না। নতুন করে আরো ২শত বিলিয়নের পণ্যের ওপর শূল্কারোপের পরিকল্পনা করলেও। এটি বিশ্ব বাণিজ্যের গুরু ও যুক্তরাষ্ট্রের পারমাণবিক প্রতিদ্বন্দ্বী চীনের ওপর ট্রাম্প প্রশাসনে দ্বিতীয় বাণিজ্যিক শূল্কারোপের আঘাত বলে জানিয়েছে ‘সিএনবিসি’।   উল্লেখ্য, গত ৩১ মে আমদানি পণ্য স্টিল ও অ্যালুমিনিয়ামের ওপর শূূল্কারোপ করেছিলেন ট্রাম্প। জুলাইতে এসে সরাসরি চীনকে আক্রমণ করতে তাদে
বার্নিকাটের গাড়িতে হামলার বিচার চায় যুক্তরাষ্ট্র

বার্নিকাটের গাড়িতে হামলার বিচার চায় যুক্তরাষ্ট্র

ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাটকে বহনকারী দূতাবাসের একটি গাড়িতে হামলার ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের বিচার চেয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।   গত শনিবার রাজধানীর মোহাম্মদপুরে একটি নৈশভোজ শেষে ফেরার সময় ওই হামলার ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বেগ জানিয়েছে। পাশাপাশি বার্নিকাটের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সরকারকে অনুরোধ জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।   আজ সোমবার কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, ঢাকায় মার্কিন দূতাবাস গতকাল রোববার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে পাঠানো এক কূটনৈতিক পত্রে এ অনুরোধ জানিয়েছে।   ওই হামলার বিবরণ দিয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশকে (ডিএমপি) দেওয়া পত্রের একটি অনুলিপি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে দিয়েছে দূতাবাস। এতে বলা হয়েছে, নাগরিক অধিকার সংগঠন সুশাসনের জন্য নাগরিকের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারের বাসায় নৈশভোজে অংশ নেন মার্শা বার্নিকাট। নৈশভোজ শেষে রাষ্ট্রদূত
শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা সমর্থন করা যায় না : মার্কিন দূতাবাস

শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা সমর্থন করা যায় না : মার্কিন দূতাবাস

নিরাপদ সড়কের দাবিতে দেশব্যাপী চলমান ছাত্র আন্দোলনে সহিংস হামলা কোনোভাবেই সমর্থন করা যায় না বলে মন্তব্য করেছে ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস।   আজ রোববার মার্কিন দূতাবাসের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে দেওয়া এক বিবৃতি থেকে এ কথা জানা যায়। বিবৃতিতে বলা হয়, গত সপ্তাহ থেকে সড়কে উন্নত যানবাহন ও নিরাপত্তার দাবিতে স্কুল-কলেজের ছাত্রদের নেতৃত্বে বাংলাদেশব্যাপী চলমান শান্তিপূর্ণ ছাত্র আন্দোলন এরই মধ্যেই সারা দেশের মানুষের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে। দূতাবাস বলে, ‘কাণ্ডজ্ঞানহীনভাবে সম্পত্তি বিনষ্ট করা, বিশেষ করে বাস ও অন্যান্য যানবাহন ধ্বংসের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের ওই কর্মকাণ্ড আমরা গ্রহণযোগ্য মনে করি না। কিন্তু এসবের কোনো কিছুই নিরাপদ বাংলাদেশের লক্ষ্যে শান্তিপূর্ণভাবে নিজেদের গণতান্ত্রিক অধিকার চর্চা করতে থাকা হাজার হাজার তরুণের ওপর নৃশংস হামলা ও হিংস্রতাকে সমর্থন করা যায় না।’ গতকাল শনিবা