ললনা

লক্ষ্মীপুরে দুই নারীর লাশ উদ্ধার

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের সাহাপুর এলাকা থেকে এক যুবতী ও রায়পুর উপজেলার বামনীর সাগরদী এলাকা থেকে গৃহবধু নাজমা বেগমসহ দুইজনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। আজ শনিবার বিকেলে যুবতী ও দুপুরে গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করা হয়। এ দিকে লক্ষ্মীপুর শহরের সাহাপুর এলাকা থেকে উদ্ধারকৃত যুবতীকে ধর্ষনের পর হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করছে পুলিশ। পুলিশ জানায়, শনিবার বিকেলে শহরের সাহাপুর এলাকায় একটি পুৃকুরে ওই যুবতীর লাশ ভাসতে দেখে পুলিশকে খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে যুবতীর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। তবে রাতের কোন এক সময়ে ওই যুবতীকে ধর্ষনের পর হত্যা করে লাশ পুকুরে ফেলে পালিয়ে যায় দূর্বত্তরা। নিহতের শরীরে বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহৃ ও পরনে জিন্স প্যান্ট এবং গায়ে গেঞ্জি রয়েছে। নিহতের পরিচয় এখনো নিশ

রাজবাড়ীর কালুখালীতে ট্রলার ডুবিতে নারী ও শিশুসহ ৬ জনের মৃত্যু

রাজবাড়ী প্রতিনিধি: রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ইউনিয়নের হরিণবাড়িয়া এলাকায় পদ্মা নদীতে ট্রলার ডুবিতে ছয় জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন কালুখালীর চররামনগর গ্রামের আকবর আলীর স্ত্রী হালিমা (৪৫) ও মেয়ে ফরিদ (২০)া, একই গ্রামের সৌদি প্রবাসী জাহাঙ্গীর হোসেনের স্ত্রী ছয় মাসের অন্ত¡সত্ত্বা বেগম (২০), আলোকদিয়া গ্রামের আলতাফ হোসেনের দুই ছেলে রাহুল(৭) ও রাজু (৫) এবং পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ইউনিয়নের সাদারচর গ্রামের আকমল শেখের ছেলে দুলাল শেখ (৩৫)। শুক্রবার সন্ধ্য সাড়ে ৬টার দিকে ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটে। শনিবার রাজশাহী থেকে আসা ডুবুরি দল পর্যায়ক্রমে তাদের লাশ উদ্ধার করে। উদ্ধার করা যায়নি এখনও পর্যন্ত ডুবে যাওয়া ট্রলারটি । রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক জিনাত আরা, পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম, কালুখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল হাসান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, হরিণবাড়ি
মালালা যেভাবে কোটিপতি

মালালা যেভাবে কোটিপতি

কোটিপতি হওয়ার স্বপ্ন কে না দেখে। অনেকেই সেই স্বপ্ন দেখতে দেখতে বুড়ো হয়ে যান। তবুও অধরায় থেকে যায় কোটিপতির জীবন। তবে কেউ কেউ আবার মেঘ না চাইতেই বৃষ্টি পান। কোটিপতি কী, সেটা বুঝার বয়স হয়ে উঠার আগেই হয়ে উঠেন কোটিপতি। এই যেমন মালালা ইউসুফজাই। বয়স মাত্র ১৮ বছর, অথচ এর মধ্যেই কোটি কোটি টাকার মালিক হয়ে উঠেছেন পাকিস্তানের এই কিশোরী। সেটিও আবার স্রেফ বই বিক্রি আর বক্তৃতার পয়সায়! নোবেল বিজয়ী মালালা মাত্র তিন বছরে এত বেশি সম্পদ আয় করেছেন যে ইচ্ছে করলেই তাকে মিলিওনিয়ারদের তালিকাভুক্ত করা যায়। এ অর্থের বেশিরভাগই এসেছে তার জীবনীগ্রন্থ ‘আই অ্যাম মালালা’ বিক্রি থেকে। এ খবর দিয়েছে ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড দ্য ডেইলি মেইল। ডেইলি মেইল জানায়, সালার্জাই লিমিটেড কোম্পানি মালালার জীবনীগ্রন্থের স্বত্বটি দেখভাল করে। বই বিক্রি থেকে তাদের মোট মুনাফা এসেছে ১১ কোটি ৩৯ লাখ ৪৯ হাজার টাকা। এই কোম্পানিতে মালালা ও তার বাব