লাইফ ষ্টাইল

নিয়মিত গ্রিন টি খাওয়া উচিত কেন?

নিয়মিত গ্রিন টি খাওয়া উচিত কেন?

গ্রিন টি-তে রয়েছে ফ্লেভোনয়েড নামক একটি উপাদান, যা আসলে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। যা এমন একটি শক্তিশালী উপাদান যা সব দিক থেকে শরীরকে চাঙ্গা রাখে।   শুধু তাই নয়, একাধিক মারণ রোগকে দূরে রাখতেও এই পানীয়টি বিশেষ ভূমিকা পালন করে। তাই তো আজকাল গ্রিন টির এত জনপ্রিয়তা।       প্রসঙ্গত, কেটেচিন নামেও একটি উপদান থাকে এই চায়ে, যা ভিটামিন ই এবং সি-এর থেকেও বেশি শক্তিশালী, যা শরীরে প্রবেশ করে একাধিক উপকারে লেগে থাকে।       ১. ওজন কমায়: এই চায়ে এমন কিছু উপাদান আছে যা হজম প্রক্রিয়াকে বাড়িয়ে শরীরের অতিরিক্ত মেদ কমিয়ে ফেলতে সাহায্য করে। প্রসঙ্গত, গ্রিন টিয়ে উপস্থিত কেটাচিন পেটের মেদ ঝরাতে অগ্রগণ্য ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই অতিরিক্ত ওজনের কারণে যদি চিন্তায় থাকেন, তাহলে নিয়মিত গ্রিন পান করতে ভুলবেন না যেন!       ২. শরীরের
ধূমপান ছাড়তে চাইলে যা করবেন

ধূমপান ছাড়তে চাইলে যা করবেন

ধূমপায়ীর সংখ্যা যেমন বাড়ে, তেমন ছাড়ার সংখ্যাও কম নয়। তবে অনেকে ধূমপান ছাড়ার ঘোষণা দিয়েও ছাড়তে পারেন না। তাদের জন্য রয়েছে কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি। যা ধূমপানের নেশাকে ছাড়াতে দারুণ কাজ করে। এ ক্ষেত্রে ধৈর্য ধরে এ পদ্ধতিগুলো কাজে লাগাতে হবে। আসুন দেখে নেই পদ্ধতিগুলো-   মরিচের গুঁড়া এক গ্লাস পানিতে অল্প মরিচের গুঁড়া ফেলে সেই পানি পান করলে ফুসফুসের ক্ষমতা বাড়ে। সেই সঙ্গে ধূমপানের কারণে লাংয়ের যে ক্ষতি হয়, তা ধীরে ধীরে কমে। এছাড়া ধূমপানের ইচ্ছাও কমে।       মুলেঠি ধূমপানের নেশা ছাড়াতে মুলেঠি বিশেষ ভূমিকা পালন করে। নিয়মিত মুলেঠি চিবানো শুরু করলে একদিকে যেমন ধূমপানের ইচ্ছা কমে, তেমনি নানাবিধ পেটের রোগের প্রকোপও হ্রাস পায়।   মুলা ১ গ্লাস মুলার রসের সঙ্গে পরিমাণমতো মধু মিশিয়ে দিনে দু’বার খেলে ধূমপানের ইচ্ছা একেবারে কমে যায়।   আঙ
গরমে অসুখ দূর করবে শসা

গরমে অসুখ দূর করবে শসা

গরম দিন দিন বেড়েই চলেছে। গরমের হাত থেকে রেহাই পেতে পানি ও পানির পরিমাণ বেশি এমন সব খাবারের দিকেই ঝুঁকছেন সবাই। রোজ খাবারের তালিকায় শসা কিংবা শসার সালাদ খেয়ে থাকেন অনেকেই। আর এই শসাই আপনাকে নানা অসুখের হাত থেকে মুক্তি দেবে।   আরও পড়ুন: ২ সপ্তাহে ১০ কেজি ওজন কমাবে সেদ্ধ ডিম বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, শশায় রয়েছে ৯৫ শতাংশ পানি। যা আমাদের শরীরে পানির ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। শরীরকে হাইড্রেটেড রাখে এবং শরীর থেকে সমস্ত টক্সিন দূর করতে সাহায্য করে।       শশায় প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, পটাশিয়াম এবং ম্যাগনেশিয়াম রয়েছে। যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। ত্বকের জন্যও দারুণ উপকারী শশা। প্রত্যেকদিন ত্বকে শশার রস লাগালে শুষ্ক ত্বকের সমস্যা দূর হয়ে ত্বকে ঔজ্জ্বল্য নিয়ে আসে।   আপনার ত্বক যদি রোদে পুড়ে কালো হয়ে গিয়ে থাকে, তাহলে শশার রসের সঙ্গে দই এবং
চুলের আগা ফাটা রোধ করতে

চুলের আগা ফাটা রোধ করতে

চুল দুর্বল হলে আগা ফাটা সমস্যা হয়। এজন্য আগা ছাঁটা ছাড়াও রয়েছে কয়েকটি সমাধান।   রূপচর্চাবিষয়ক ওয়েবসাইটে আগা ফাটা চুল পরির্যার পন্থা নিয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে আমাদের এই আয়োজন।   চুলের আগা ফাটা আসলে কী? চুলের নিচের অংশ ফেটে যাওয়াকে আগা ফাটা বলে। অতিরিক্ত শুষ্ক, ভঙ্গুর এবং নিচের অংশ বেশি ঘষা খেলে চুলে আগা ফাটার সমস্যা দেখা দেয়। অতিরিক্ত তাপ প্রয়োগ, ব্লোড্রাই, স্ট্রেইট বা কোঁকড়া করা হলে আগা ফাটা সমস্যা দেখা দিতে পারে।   সম্প্রতি চুল কেটে থাকলে কয়েকটি বিষয় মাথা রাখুন। এগুলো চুলের আগা ফাটা থেকে রক্ষা করবে।   আঁচড়ানো: জট ছাড়াতে ভেজা চুল মোটা দাঁতের চিরুনি দিয়ে নিচ থেকে আঁচড়ানো শুরু করুন। এরপর ধীরে ধীরে উপরের দিকে আঁচড়ান। এটা চুলে জট লাগা কমায়। খেয়াল রাখবেন, জট ছাড়ানোর সময় চুলে বেশি চাপ না পড়ে। এতে চুল ভেঙে বা ছিঁড়ে যেতে পারে। তাই চুল কয়েক ভাগে ভা
এই সময়ে যেসব খাবার এড়িয়ে চলবেন

এই সময়ে যেসব খাবার এড়িয়ে চলবেন

গরম কিংবা শীত- সবসময়ই আমাদের খাদ্য গ্রহণে সতর্ক থাকা উচিত। কারণে বেশিরভাগ অসুখই এর মাধ্যমে আমাদের শরীরে প্রবেশ করে। এছাড়া সব ধরনের খাবার শরীরের জন্য সব সময় উপযোগী হয় না। গরমে আমরা এমনকিছু খাবার খেয়ে থাকি যা আসলে আমাদের শরীরের জন্য ক্ষতিকর। জেনে নিন, গরমে কোন খাবারগুলো এড়িয়ে চলবেন-   আরও পড়ুন: ২ সপ্তাহে ১০ কেজি ওজন কমাবে সেদ্ধ ডিম গরমে তেষ্টা নিবারণ করতে আইসক্রিম খান অনেকেই। প্রচুর পরিমাণ চিনি থাকার কারণে আইসক্রিম হাই ক্যালোরি খাবার। যা শরীর গরম করে তোলে।       সফট ড্রিঙ্কে ক্যালোরির পরিমাণ বেশি। তাই হজমের জন্য স্বাভাবিক ভাবেই শরীরের মেটাবলিজম রেট বেড়ে যায়। যা শরীর গরম করে তোলে।   গরমে স্পাইসি ফুড এড়িয়ে চলুন। কাঁচা মরিচ, আদা, জিরা, দারুচিনি জাতীয় খাবার থার্মোজেনিক। যা শরীরে তাপ উত্পন্ন করে মেটাবলিক রেট বাড়িয়ে দেয়।   চিকেন, রে
নারিকেল দুধে ইলিশ মাছের কোরমা

নারিকেল দুধে ইলিশ মাছের কোরমা

লাইফস্টাইল ডেস্ক : স্বাদ এবং গন্ধে ইলিশ মাছের জুড়ি নেই। তাই ইলিশের নাম শুনলে জিভে জল কার না আসে বলুন। আর এই ইলিশ মাছ দিয়ে যদি তৈরি করা যায় মজাদার খাবার তাহলে তো কথাই নেই। ইলিশ দিয়ে রান্না করা যায় হরেক পদের মজার খাবার। তবে ইলিশ দিয়ে রান্না করা নারিকেল দুধে ইলিশ মাছের কোরমা খেয়েছেন কখনো। তাই যুগান্তর পাঠকদের জন্য থাকেছে নারিকেল দুধে ইলিশ মাছের কোরমা। আসুন জেনে নেই কীভাবে রাঁধবেন নারিকেল দুধে ইলিশ মাছের কোরমা উপকরণ ইলিশ মাছ ৬ টুকরা, পেঁয়াজ বাটা ১-৩ কাপ, আদাবাটা ১ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, চিনি ১ চা চামচ, কাঁচা মরিচ ৪-৫টি, লবণ স্বাদমতো, তেল আধাকাপ, লেবুর রস ১ চা চামচ, নারিকেলের দুধ আধাকাপ, টেস্টিং সল্ট কোয়ার্টার চা চামচ, জায়ফল ও জয়ত্রী গুঁড়া কোয়ার্টার চা চামচ, টকদই আধাকাপ, জিরা গুঁড়া আধা চা চামচ, এলাচ, দারুচিনি তিনটি করে, কেওড়া জল কোয়ার্টার চা চামচ। প্রণালি মাছের টুকর
অল্প বয়সে চুলপড়া

অল্প বয়সে চুলপড়া

লাইফস্টাইল ডেস্ক : চুল ত্বকের অংশ। চুলের পুষ্টি আসে হেয়ার বালবের শিরা-উপরিশা থেকে। তাই চুলের পুষ্টি সঞ্চালন করতে হলে হেয়ার ফলিকলের নিচে, ত্বকের গভীরে হেয়ার বালবে রক্ত সঞ্চালন বাড়াতে হবে। মাথার চুল ঝরে দিন দিন টাক পড়ে যাচ্ছে বা চুল পাতলা হয়ে যাচ্ছে, এসব লোকের সংখ্যা অনেক। প্রতিদিন ১০০টির বেশি চুল পড়লে মাথা ফাঁকা হতে শুরু করে। কেন চুল পড়ে -মানসিক অশান্তি, দুশ্চিন্তা, বিষাদগ্রস্ততা, অপুষ্টি ও অবৈজ্ঞানিক উপায়ে ডায়েটিং চুল ঝরে যাওয়ার অন্যতম কারণ। -জ্বর, লিভার ও কিডনির অসুখ, কেমোথেরাপি নেয়ার পর, রক্তস্বল্পতা, কিছু ওষুধ যেমন ইনডোমেথাসিন, জেন্টামাইসিনের কারণেও চুল অতিমাত্রায় পড়ে যেতে পারে। -খুশকি, উকুন, শুষ্ক ও চটচটে মাথার স্ক্যাল্পও চুলের জন্য শত্র“। চিকিৎসা চিকিৎসক রোগী ভেদে মুখে খাওয়ার ওষুধ, চুল ঝরা বন্ধের লোশন, শ্যাম্পু, প্রেসক্রাইব করেন। আধুনিক চিকিৎসা হচ্ছে মেসোথেরাপি ও পিআরপ
ঘুম যদি না আসে

ঘুম যদি না আসে

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ ঘুম হলো মস্তিষ্কের একটি জটিল ক্রিয়া। এর প্রধান কাজ আমাদের শরীরকে বিশ্রাম দেয়া এবং আমাদের শারীরিক ক্ষমতাকে পুনরুদ্ধার করা। সুস্থ থাকার জন্য এক জন মানুষের নির্দিষ্ট সময় স্বাস্থ্যসম্মত ভাবে ঘুমানো প্রয়োজন। যে ধরনের ঘুমের মাধ্যমে শরীরের সার্বিক অবস্থার উন্নতি হয়, তাকেই স্বাস্থ্যসম্মত ঘুম বলে। এই ক্ষমতা আমাদের মধ্যে তখনই সঞ্চারিত হয়, যখন আমরা সহজেই ঘুমিয়ে পড়ি এবং সেই ঘুম কোনরকম ব্যাঘাত ছাড়াই নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত চলতে থাকে। আরও পড়ুন: অবসাদ দূর করার আয়ুর্বেদ উপায় প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য দৈনিক সাত-আট ঘণ্টা ঘুম হল পর্যাপ্ত। আবার কিশোর-কিশোরীদের ঘুমের প্রয়োজন খুবই বেশি। কারণ, এই সময় তাদের দ্রুত শারীরিক বিকাশ ঘটে। সদ্যোজাত থেকে ৪-৫ বছর বয়স পর্যন্ত ১৬-১৮ ঘণ্টা ঘুম দরকার। এর পর থেকে ১২-১৩ বছর বয়স পর্যন্ত অন্তত ১০-১২ ঘণ্টা ঘুমের দরকার। বার্ধক্যে অবশ্য ঘুম কমে যায়। এটা ব্যক্তি বিশেষে
নারিকেল দুধে ইলিশ মাছের কোরমা

নারিকেল দুধে ইলিশ মাছের কোরমা

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ ইলিশের নাম শুনলে জিভে জল আসে অনেকেরই। মাছে ভাতে বাঙালি আর মাছের আমাদের জাতীয় মাছ ইলিশ। স্বাদ এবং গন্ধের কারণে ইলিশের কদর সবসময়ই বেশি। ইলিশ দিয়ে রান্না করা যায় হরেক পদের মজার খাবার। আজ রইলো নারিকেল দুধে ইলিশ মাছের কোরমা রান্না করার রেসিপি- আরও পড়ুন: চিকেন মালাই বিরিয়ানি রাঁধবেন যেভাবে উপকরণ: ইলিশ মাছ ৬ টুকরা, পেঁয়াজ বাটা ১-৩ কাপ, আদাবাটা ১ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, চিনি ১ চা চামচ, কাঁচা মরিচ ৪-৫টি, লবণ স্বাদমতো, তেল আধা কাপ, লেবুর রস ১ চা চামচ, নারিকেলের দুধ আধা কাপ, টেস্টিং সল্ট কোয়ার্টার চা চামচ, জায়ফল ও জয়ত্রী গুঁড়া কোয়ার্টার চা চামচ, টক দই আধা কাপ, জিরা গুঁড়া আধা চা চামচ, এলাচ, দারচিনি তিনটি করে, কেওড়া জল কোয়ার্টার চা চামচ। আরও পড়ুন: সাতকরা দিয়ে গরুর মাংস প্রণালি: মাছের টুকরাগুলো ভালো করে ধুয়ে নিন। কড়াইয়ে তেল গরম করে এলাচ, দারুচিনি ভেজে পেঁয়াজ বাটা
এবার ব্যাংককে এশিয়া প্যাসিফিক সোশ্যাল বিজনেস ইয়ুথ সামিট

এবার ব্যাংককে এশিয়া প্যাসিফিক সোশ্যাল বিজনেস ইয়ুথ সামিট

দেশে সোশ্যাল বিজনেস ইয়ুথ অ্যালায়েন্স (এসবিওয়াইএ) একটি নেতৃস্থানীয় যুব ফোরাম। এটি একটি সেতু যা বিশ্বজুড়ে যুবক এবং সামাজিক ব্যবসা সম্প্রদায়ের জ্ঞানী ব্যক্তিদেরকে একত্রিত করে। ঢাকায় চারটি শীর্ষস্থানীয় শীর্ষ সম্মেলন আয়োজনের সাফল্যের পর এবার আন্তর্জাতিক অঙ্গণে পা রাখছে এই ফোরাম। ফোরাম আয়োজন করতে যাচ্ছে জমকালো এক সম্মেলনের। দুই দিনব্যাপি এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে ব্যাংককে। সেখানকার ক্রুং থোনবুড়ি রোডে অবস্থিত নলেজ এক্সচেঞ্জ সেন্টারে অনুষ্ঠিত হবে এটি। ‘সামাজিক প্রতিক্রিয়ার উপর বিভিন্ন প্রযুক্তির প্রভাব’ নিয়ে কাজ করা কিছু প্রভাবশালী এবং প্রগতিশীল সামাজিক উদ্যোগ, চিন্তাবিদ এবং তরুণ প্রতিভা নিয়েই কাজ করে যাচ্ছে এই ফোরাম। ৩০০ জন প্রতিনিধি প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনের মধ্য দিয়ে বিশ্বকে যে প্রভাবিত করছে সেই গুরুত্ব তুলে ধরতেই এ আয়োজন। ইউনূস সেন্টারের মিসেস নূরজাহান বেগম, ইউএনডিপি থাইল্যান্ডের ড