সাহিত্য-শিল্প-সংস্কৃতি

হবিগঞ্জে ‘সাঁওতাল ও মনিপুরী নৃত্য’ শীর্ষক কর্মশালা

হবিগঞ্জে ‘সাঁওতাল ও মনিপুরী নৃত্য’ শীর্ষক কর্মশালা

মামুন চৌধুরী, হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার পাইকপাড়া ইউনিয়নের দেউন্দি চা-বাগানে চার দিনব্যাপী ‘সাঁওতাল ও মনিপুরী নৃত্য’ শীর্ষক কর্মশালা শুরু হয়েছে । শনিবার শুরু হওয়া এ কর্মশালায় প্রতীক থিয়েটারের নারী সদস্যরা অংশ নিয়েছে। কর্মশালায় নৃত্য শেখাচ্ছেন চ্যানেল আই সেরা নাচিয়ে নৃত্যশিল্পী কেয়া সিনহা। প্রতীক থিয়েটারের সভাপতি সুনীল বিশ্বাস বলেন, ‘প্রতীক থিয়েটারের অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিতে কেয়া সিনহার এ নৃত্য কর্মশালা বিরাট কাজে আসবে। আমরা তার কাছে কৃতজ্ঞ।’

মো. মাহমুদুর রহমানের দুটি কবিতা

মো. মাহমুদুর রহমানের দুটি কবিতা (সদ্য প্রয়াত অনুজ ভ্রাতা আবদুল হাই সিদ্দীকি স্বরণে) শামুকের মত গুটিপায় অবিশ্রান্ত হেটে যাই হিম কুয়াশার আকাঁবাকা পথে আমি এক জীবন্ত মুর্দ্দার হিমাচাল থেকে অতিথিরা আশার কুহুকেকা ছড়ায় কতকাল ভেবেছি আমিও তাদের কেউ কিন্তু আমার সৃজিত স্বত্বা বারবার লাশ হয়ে ফিরে তারপরও অনুঢ়ার চোখে চেয়ে আছি দিনের পর দিন রাতের পর রাত . . . আবাদ কি আর হবে এই অবেলায় স্বান্ধ্য বেলায় ! কি আর হবে আমার দ্বারা মনের আপন ছিল যারা হারিয়েছে অনেক দুরে কোন সুদূরে ! অচীন পুরে কি আর হবে স্মৃতিখুঁড়ে আস্তাকুড়ে ! লীন হয়ে যায় সবি কালের অতল গহ্বরে। কি আর হবে এই অবেলায় স্বান্ধ্য

সাংস্কৃতিক উৎসব মানবিকতার বিকাশ ঘটায় : তথ্যমন্ত্রী

সিলেটে ১০দিনব্যাপী বেঙ্গল সংস্কৃতি উৎসবের তৃতীয় দিনে শুক্রবার ছিলো মানুষের উপচে পড়া ভিড়। নগরীর মাছিমপুরস্থ আবুল মাল আবদুল মুহিত ক্রীড়া কমপ্লেক্সের হাছন রাজা মঞ্চে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় সূচনা অধিবেশনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ৩য় দিনের অনুষ্ঠান। এর আগে সৈয়দ মুজতবা আলী মঞ্চে সকাল সাড়ে ১০টায় শুরু হয় কালি ও কলম সাহিত্য সম্মেলন। ৪ পর্বের এই সম্মেলন শেষ হয় সন্ধ্যায়। সন্ধ্যায় মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। এতে প্রধান প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাই কমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা, প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ইনাম আহমদ চৌধুরী ও বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের লিটু। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, "সাংস্কৃতিক উৎসব মানুষকে মানুষ হতে দেয়। মানবিকতার বিকাশ ঘটায়। সংস্কৃতি একটি প্রবাহমা
“বাংলাদেশের মরমী আকাশের জীবন্ত কিংবদন্তী বাউল সম্রাট ক্বারী আমীর উদ্দিন আহমেদ”

“বাংলাদেশের মরমী আকাশের জীবন্ত কিংবদন্তী বাউল সম্রাট ক্বারী আমীর উদ্দিন আহমেদ”

ডেস্ক নিউজ: সিলেট বাংলাদেশের আধ্যাত্মিক হৃদয়। শ্রীভূমির মরমি মৃত্তিকা জন্ম দিয়েছে জীবন ও জগতের রহস্যসন্ধানী মানুষ, সত্যের উপাসক, সাধকদের।এই মৃত্তিকা ধন্য হয়েছে হযরত শাহজালাল (র), হযরত শাহপরান (র) এর মতো মানব প্রেমী ঈশ্বর সাধকদের বক্ষে ধারণ করে, যারা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অভিনব মেলবন্ধন রচনা করেছেন উদার মানবিকতারর আদর্শের ভেতর দিয়ে।আদ্বিজ - চন্ডালকে সমপাঙক্তেয় করে নতুন ভাবের প্রেমের ধর্ম প্রচার করে যিনি সহজিয়া সাধনার গুপ্তদ্বারের সন্ধান দিয়েছেন, সেই চৈতন্যদেবের ও পিতৃভূমি এই শ্রীহট্ট (বর্তমান সিলেট)।বৌদ্ধ সহজিয়ার করণ-কারণ, সুফিমত আর বৈষ্ণবীয় তত্ত্বের সঙ্গে দেশজ লৌকিক সাধনার ধারা মিশে যে মরমি প্রেক্ষাপট রচিত হয়েছে এই অঞ্চলে, তা মূলত প্রকাশ পেয়েছে সঙ্গীতের মাধ্যমে। দীন ভবানন্দ, সৈয়দ শাহনুর, শীতালং শাহ, কালা শাহ, দৈখোরা, রাধারমণ, শাহ আব্দুল লতিফ, শেখ ভানু, দীনহীন, হাছন রাজা, সহিফা বানু, স
গোপালগঞ্জে ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা অনুষ্ঠিত

গোপালগঞ্জে ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা অনুষ্ঠিত

গোপালগঞ্জ ১০ জানুয়ারি ২০১৭ : গোপালগঞ্জে অনুষ্ঠিত হলো বাংলার চিরচয়িত ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা। গ্রাম্য নানা শিল্প-সংস্কৃতির প্রধান অনুসঙ্গ হিসাবে লাঠি খেলা ছিল খুবই অকর্ষনীয়। জেলা উন্নয়ন মেলা উপলক্ষ্যে এ লাঠি খেলার আয়োজন করে গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসন। কালেরক্রমে হারিয়ে যাওয়া এ লাঠি খেলা দেখতে ভীড় করে নানা বয়সের মানুষ। গ্রামীন এ ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলাকে টিকিয়ে রাখতে দরকার প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতা এমনটাই মনে করছেন দর্শনার্থীরা। একসময় লাঠি খেলা ছিল গ্রাম বাংলার মানুষের কাছে জনপ্রিয় খেলা। গ্রাম্য নানা শিল্প-সংস্কৃতির মাঝে লাঠি খেলা ছিল গ্রাম বাংলার সাধারণ মানুষের চিত্ত বিনোদনের একমাত্র উৎস। ঐতিহ্যবাহী এ খেলাটি বৈশাখি মেলা, বিয়েসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মানুষকে আনন্দ দিতে আয়োজন করা হত। এ পেশার সাথে যারা জড়িত তারাও তাদের পেশা পরিবর্তন করে অন্য পেশায় চলে গেছে। ফলে গ্রামের মানুষের বিনোদনের এ খেলাটি এখন আর তেমন
সুরমা খেলাঘর আসরের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা

সুরমা খেলাঘর আসরের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা

  সংবাদ বিজ্ঞপ্তি: সুরমা খেলাঘর আসরের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে সিলেটে ২০০ শিক্ষার্থীকে নিয়ে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা সমাপ্ত হয়েছে। গতকাল বিকেলে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এই চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এতে সিলেটের বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। বিকেল ৩টায় চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কমরেড বাদল কর। এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্টানে সভাপতিত্ব করেন সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন পরিষদের আহবায়ক রবীন্দ্র ভট্রাচার্য। সুরমা খেলাঘর আসরের সাধারন সম্পাদক ও উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব ধ্রুব গৌতমের পরিচালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, সুরমা খেলাঘর আসরের সভাপতি কনোজ চক্রবর্তী বুলবুল। বিকেল ৩ টা থেকে শুরু হওয়া চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা শেষ হয় বিকেল সাড়ে ৫ টায়। এরমধ্যে শিশুদের জন্য ইচ্ছে মতো ছবি আকা। খ গ্রুপের জন্য নির্ধারিত ছিল সিলেট বিভাগের মানচিত্র, গ গ্রুপের জন্য শিশু
ফেনীতে দিনব্যাপী পিঠা উৎসব

ফেনীতে দিনব্যাপী পিঠা উৎসব

ফেনী প্রতিনিধি : ২৯ নভেম্বর’১৬ ফেনীতে বর্ণিল আয়োজনে পিঠা উৎসব করেছে স্টার লাইন স্প্রাউট ইন্টারন্যাশনাল স্কুল। মঙ্গলবার ফেনী ন্যাশনাল কলেজ মাঠে দিনব্যাপী এ আয়োজনে প্রধান অতিথি ছিলেন ফেনীর পুলিশ সুপার রেজাউল হক। স্টার লাইন গ্রুপের পরিচালক জামাল উদ্দিনের সঞ্চালনায় এতে অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন ফেনীর সিভিল সার্জন ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির, ফেনী সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আবুল কালাম আজাদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক দেবময় দেওয়ান, ফেনী সরকারি জিয়া মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ফাতেমা আফরোজ, ফেনী পৌরসভার প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী, জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা নুরুল আবসার, স্টার লাইন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক জাফর উদ্দিন, পরিচালক মাইন উদ্দিন। স্কুলের অধ্যক্ষ প্রফেসর কর্নেল (অব.) মোহাম্মদ সালেহ উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে এসময় ফেনীর গণ্যমান্য আরো অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। উৎসবে স্কুলটির শিক্ষ
কমলগঞ্জে মণিপুরী থিয়েটারের নাট্যমেলা সমাপ্ত

কমলগঞ্জে মণিপুরী থিয়েটারের নাট্যমেলা সমাপ্ত

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি: 'বিশ্ব তোমায় বাঁধবো এবার আপন অঞ্চলে’-এই শ্লোগান নিয়ে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে মণিপুরি থিয়েটারের ২০ বছর পূর্তি উপলক্ষে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের মণিপুরী অধ্যুষ্যিত ঘোড়ামারা নটমন্ডপে মাসব্যাপী নাট্যমেলা সমাপ্ত হয়েছে। মণিপুরি থিয়েটারের নাট্যমেলায় শনিবার (২৬ নভেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় মঞ্চস্থ হয় দেশের অন্যতম নাট্যদল নাগরিক নাট্য সম্প্রদায় প্রযোজনা ‘নাম গোত্রহীন’। পাকিস্তানি লেখক সাদাত হাসান মান্টোর তিনটি ছোটগল্প নিয়ে পান্ডুলিপি তৈরির পাশাপাশি নাটকটির নির্দেশনা দিয়েছেন কলকাতার প্রখ্যাত নাট্যজন ঊষা গাঙ্গুলী। নাটকটিতে নিয়মিতভাবে অভিনয় করছেন সারা যাকের, অপি করিম, পান্থ শাহরিয়ার ও শ্রিয়া সর্বজয়া প্রমুখ। তবে এই প্রদর্শনীতে বিশেষ কারণে অপি করিম অভিনয় করতে না পারায় তার চরিত্রে অভিনয় করবেন রুনা খান। মণিপুরি থিয়েটারের সভাপতি কবি ও নাট্যকার শুভা
ফেনী’র ঢোল-এর লোগো উন্মোচন

ফেনী’র ঢোল-এর লোগো উন্মোচন

ফেনী প্রতিনিধি : ২৭ নভেম্বর’১৬ ‘ঐতিহ্যের সাথে শেকড়ের বুনন’ শ্লোগানকে সামনে রেখে ফেনীর আঞ্চলিক ও লোকজ গানের নতুন সংগঠন ফেনীর ঢোল’র লোগো উন্মোচন হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যায় ফেনীর জেলা পরিষদের ড. সেলিম আল দীন মিলনায়তনে এক আড়ম্বরপূর্ন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ফেনী জেলা প্রশাসক আমিন উল আহসান লোগো উন্মোচন করেন। ফেনী’র ঢোল-এর প্রধান সমন্বয়কারী বখতেয়ার মুন্নার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও গীতিকার অধ্যাপক রফিক রহমান ভূঞা, ফেনী জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা নুরুল আবছার ভূঞা, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক সমরজিৎ দাশ টুটুল, জ্যেষ্ঠ সংগীত শিল্পী ও জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাবেক সাধারণ সম্পাদক নেছার আহাম্মদ। ফেনীর ঢোল’র বিপণন সমন্বয়ক তাহমিনা তোফা সীমার সঞ্চালনায় আরো মত প্রদান করেন প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক আবু তাহের, সংলাপ’র নারায়ন নাগ, উদীচীর সভাপতি মোমিনুল হক, পঞ্চবটীর
‘চট্টগ্রামে সঙ্গীতগুরু ওস্তাদ মোহনলাল দাশ’র স্বীকৃতি প্রয়োজন’

‘চট্টগ্রামে সঙ্গীতগুরু ওস্তাদ মোহনলাল দাশ’র স্বীকৃতি প্রয়োজন’

  চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রতিনিধি, ১৫ নভেম্বর ২০১৬ : উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীতগুরু ৭১’এর মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন অকুতোভয় শব্দ ও কলম সৈনিক ওস্তাদ মোহনলাল দাশ স্মরণে “কালজয়ী সঙ্গীতগুরু” শীর্ষক অনুষ্ঠানে, মোহনলাল দাশ ও তার যোগ্য উত্তরসূরী কবি স্বপন কুমার দাশের সৃষ্টিকর্ম ও জীবনালেখ্য নিয়ে নগরীর থিয়েটার ইনস্টিটিউট গ্যালারীতে চট্টগ্রামের স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান সরগম একাডেমী’র আয়োজনে একাডেমী’র সহ-সভাপতি নাট্যজন সজল চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাস মো. সামসুল আরেফিন এবং মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করে অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজতত্ত্ব বিভাগের সাবেক ডিন প্রফেসর ড. গাজী সালেহ উদ্দিন। এতে আলোচক ছিলেন, মুক্তিযুদ্ধের যুদ্ধকালীন কমান্ডার রাখাল চন্দ্র ঘোষ, মুক্তিযোদ্ধা গোলাম রসুল, মুক্তিযোদ্ধা অজিত কুমার মল্লিক। বিশেষ অতি