স্পেশাল রিপোর্ট

রোহিঙ্গাদের দেখতে আজ আসছে জাতিসংঘের প্রতিনিধিদল

রোহিঙ্গাদের দেখতে আজ আসছে জাতিসংঘের প্রতিনিধিদল

রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি সরেজমিন পরিদর্শন দেখতে আজ বাংলাদেশ সফরে আসছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের উচ্চপর্যায়ের একটি প্রতিনিধি দল। দলটি প্রথমে বাংলাদেশ সফর করবেন। এরপর বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমার যাবেন। প্রতিনিধি দলটি বিকেলে কুয়েত থেকে সরাসরি কক্সবাজারে অবতরণ করবেন। পরদিন রোববার তারা জিরো পয়েন্ট ও কুতুপালং ক্যাম্প পরিদর্শন করবেন। এ সময় তারা রোহিঙ্গাদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলবেন। সোমবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের পর বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারের উদ্দেশে যাত্রা করবেন। প্রতিনিধি দলে জাতিসংঘে নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের স্থায়ী প্রতিনিধিসহ ১০ জন স্থায়ী প্রতিনিধি, পাচঁজন উপ স্থায়ী প্রতিনিধিসহ প্রায় ৩০ জন প্রতিনিধি থাকবেন। তাদের কাছে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করবে বাংলাদেশ। সরকারের নীতি নির্ধারকরা মনে করেন, এ সমস্যার মূল কারণ রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে
ভাষার প্রতি ভালোবাসা

ভাষার প্রতি ভালোবাসা

মোবাইল অপশনে গিয়ে রেডিও চালু করতেই মনটা বিষিয়ে উঠলো। দেশের একটি অন্যতম জনপ্রিয় এফএম থেকে বাংলা ভাষাকে যেভাবে যাচ্ছেতাইভাবে উপস্থাপন করতে শুনলাম। মন চাইছিল না আর রেডিও শুনতে। মনের মধ্যে ক্ষোভ ফুঁসে ওঠে। অবাক লাগে এসব গণমাধ্যম কিভাবে নিজের ভাষা-সংস্কৃতিকে এভাবে প্রকাশ্যে জবাই দেয়। নিজ ভাষাকে বিকৃত করে উপস্থাপন করা কোন ধরনের শৈল্পিক কাজ, জবাব আছে কি আপনাদের কাছে?   ভণ্ডামির এখানেই শেষ নয়, মহান ভাষার মাসে এদের আবার ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা ভালোবাসা আর দেশপ্রেম উপচে পড়ে। এ উপলক্ষে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে তারা। আর অন্যদিকে সারা বছর নিজ ভাষার গলায় করাত চালায়। বারো জাতের সংমিশ্রণে বাংলার নিজস্ব সত্তা কালে কালেই পরচর্চার জাতাকলে পিষ্ট হচ্ছে। তবে আমি বলছি না, অন্য ভাষায় কথা বলা যাবে না, অন্য ভাষা শেখা যাবে না, জানা যাবে না। আমার মতে, এগুলো কেবল ব্যক্তিগত দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য কিন্তু তার
সবার চোখ খালেদার রায়ে

সবার চোখ খালেদার রায়ে

কী হবে বৃহস্পতিবার! কার পক্ষে যাবে রায়? সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সত্যিই কি সাজা হবে? সাজা হলে, তার ধরন কী হতে পারে? এমন সব প্রশ্ন নিয়েই জাতি তাকিয়ে আছে খালেদার রায়ের দিকে।   রায়ের তারিখ ঘোষণার পর থেকেই টানটান উত্তেজনা জনমনে। সময় ঘনিয়ে আসতেই সেই উত্তেজনার পারদ যেন ঊর্ধ্বমুখী। রায়কে ঘিরে আওয়ামী লীগ-বিএনপি মুখোমুখি অবস্থানে। রাজনীতির মাঠে রায় নিয়ে আলোচনায় গুরুত্ব পাচ্ছে জাতীয় নির্বাচনও। নির্বাচনে খালেদা জিয়াকে অযোগ্য ঘোষণা করতেই সরকার এ মামলায় বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে, এমন অভিযোগ বিএনপির নেতাকর্মীদের।   অন্যদিকে সরকারি দল আওয়ামী লীগ বলছে, খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে বিএনপি বিশেষ রাজনীতি করতে চাইছে।       তিনবারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার এ রায়কে কেন্দ্র করে এখন উত্তেজনা মিডিয়াপাড়াতেও। রায়ের খবরেই মিডিয়ায় চলছে শ
মৌলভীবাজারের জুড়ীতে মরহুম জননেতা জনাব এম. এ. মুমিত আসুক সাহেব ও ডাঃ কাজী আকমল হোসেনের স্মরণ সভা

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে মরহুম জননেতা জনাব এম. এ. মুমিত আসুক সাহেব ও ডাঃ কাজী আকমল হোসেনের স্মরণ সভা

মাহবুবুল আলম শামীম ::: গত ২৬ এ জানুয়ারি ২০১৮ ইংরেজি শুক্রবার সন্ধ্যায়, মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার পশ্চিম জুড়ী ইউনিয়নে সূর্যতরূণ ক্লাবের উদ্যোগে মরহুম জননেতা জনাব এম. এ. মুমিত আসুক ও মরহুম ডাঃ কাজী আকমল হোসেন সাহেবের স্মরণ সভায় বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক দলের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত থেকে এই দুইজন মরহুম গুণীজনের অতীত ইতিহাস ও অবদানের কথা স্মরণ করেন। উক্ত স্মরণ সভায় জুড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান জনাবা গুলশান আরা মিলি প্রধান অতিথি হিসেবে এবং অন্যান্য বিশেষ অতিথির মত আমাকেও উপস্থিত থেকে এই দুইজন কীর্তিমান ব্যক্তিকে স্মরণ করে দুটি কথা বলার সুযোগ হয়েছিল। অন্যান্য রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দের সাথে জুড়ী উপজেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব সুরমান আহমদ চৌধুরীও বক্তব্য প্রদান করেন। আমরা এই দুইজন মরহুমের জান্নাত নাসিব কামনা করি। পাশাপাশি আমার এই সূর্যতরূণ ক্লাবের মহৎ উদ্যোগ কে অভিনন্দন জানাই এবং উপদেষ্টা জনাব
ইমিগ্রেশন : বাংলাদেশী কিশোরদের আমেরিকায় আসার লোমহর্ষক কাহিনী

ইমিগ্রেশন : বাংলাদেশী কিশোরদের আমেরিকায় আসার লোমহর্ষক কাহিনী

অপ্রাপ্ত বয়স্ক বাংলাদেশীরাও স্বপ্নের দেশে পাড়ি জমাচ্ছে দালালকে মোটা অর্থ দিয়ে। বিভিন্ন দেশ ঘুরে মেক্সিকো হয়ে দুর্গম সীমান্ত পথে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের সময় প্রায় সকলেই ধরা দিচ্ছে। আর যাদের দুর্ভাগ্য, তারা ভয়ংকর প্রাণীর পেটে কিংবা পানিতে ডুবে মারা যাচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে এমসি করুণ পরিণতির শিকার হয় বাংলাদেশি আরমান শেখ। পানামা খাল পাড়ি দেয়ার সময় সে ভেসে যায় ¯্রােতে। বেশ কয়েক সপ্তাহ পর তার অর্ধ গলিত লাশ উদ্ধার করে সীমান্ত পুলিশ। এরপর কফিনে বন্দি হয় আরমান ও তার পরিবারের সুখ-স্বপ্ন। আরমানের মৃত্যু সংবাদ গোপন থাকেনি। তারপরও এ পথে পা বাড়া্েনা বন্ধ হয়নি। যুবক-যুবতীর পাশাপাশি কিশোর-কিশোরীরাও প্রিয় মাতৃভ’মি ছাড়ছে দালালের খপ্পরে পড়ে। মাথাপিছু ২৫ থেকে ৩০ লাখ টাকা দালালকে প্রদানের পাশাপাশি পকেট খরচ বাবদ আরো কয়েক হাজার ডলার লাগছে জীবন-স্বপ্নের এ জার্নিতে। যদিও যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকলেই কিংবা ইমিগ্রেশন পুলিশে ধ
আমাকে ক্ষমা করে দিন, আমি আমার ভুল বুঝতে পেরেছি ::: তসলিমা নাসরিন

আমাকে ক্ষমা করে দিন, আমি আমার ভুল বুঝতে পেরেছি ::: তসলিমা নাসরিন

মুক্তমনা নির্বাসিত নারীবাদী লেখিকা তসলিমা নাসরিন বলেছেন, “এক সময় আমি ব্যক্তিত্ববানদের পেছনে ঘুরেছি। ব্যক্তিত্বহীনরা আমার পেছনে ঘুরেছে। আমি দৈহিক সম্পর্কে নেশাগ্রস্ত হয়ে পড়ি। সহজেই বুড়ো, মাঝ বয়সী ও প্রবীণ বন্ধুদের নিয়ে দেহজ খেলায় মেতে উঠতাম। কিন্তু এখন দেহজ খেলায় মত্ত থাকার বয়স আর নেই। সুখের পায়রারা কেউ আজ আর আমার পাশে নেই।” তসলিমা আরো বলেন, প্রায় দেড় যুগ ধরে তিনি নির্বাসনে দিনযাপন করছেন। মৌলবাদীদের আর্শীবাদপুষ্ট বিএনপি সরকারও তাকে দেশে ফিরতে দেননি। স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি হিসেবে দাবী করা আওয়ামী লীগ সরকারও তাকে দেশে ফেরার সুযোগ দেননি। তিনি এখন ক্লান্ত। দেশে ফিরতে চান। দেশেই বাকিটা জীবন কাটাতে চান। তসলিমা নাসরিন আগের মতো এখন আর লিখতেও পারছেন না বা লিখছেন না। ‘উতল হাওয়া, ‘আমার মেয়ে বেলা’, ‘ভ্রমর কইও যাইয়া’, বা ‘ক’ -এর মতো বই আর আসছে না। আগের মতো কাব্যও নেই, কবিতাও না। একাধিক স্বামী ও এক

ভারত থেকে মাংস আমদানি বন্ধের দাবি

ভারত থেকে মাংস আমদানি ও গরুর হাটের চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন মাংস ব্যবসায়ী সমিতি। রোববার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির ছোট মিলেনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব রবিউল আলম এ দাবি জানান। তিনি বলেন, মাংস আমদানির জন্য দেশের জনগণ কোনো সুবিধা পাচ্ছে না, মাংসের দামও কমেনি। এর ফলে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত চামড়া প্রোডাক্ট অব দি ইয়ার এখন হুমকির মুখে। হাজার হাজার কোটি টাকা খরচ করে আধুনিক চামড়া শিল্পনগরী গড়ে তোলা হয়েছে। সেখানে মাংস আমদানি হলে রপ্তানি ধ্বংস হবে। মাংস ব্যবসায়ী সমিতি আরো দাবি করে, গাবতলী গরুর হাটের ইজারাদার ইজারার শর্ত মানছে না, আইনও মানছে না। ইচ্ছেমত অবৈধ চাঁদাবাজি করছে। এ বিষয়ে ঢাকা সিটি করপোরেশনে শত শত অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। মাংস ব্যবসায়ীরা চাঁদাবাজির শিকার হওয়ায় অতিরিক্ত মূল্য জনগণের কাছ থেকে নেওয়া হচ্ছে। রবিউল আলম ঢাক
আমেরিকায় এখনো টিকে রয়েছে সাদা কালোর বৈষম্য

আমেরিকায় এখনো টিকে রয়েছে সাদা কালোর বৈষম্য

তুহিন চৌধুরী :::: সভ্য দেশের উদাহরণ আমেরিকা, সভ্যতা কে কেমন করে তুড়ি মেড়েই যাচ্ছে যেনো প্রতিনিয়তই। মুখে সভ্যতার বুলি আওড়ানো আমেরিকাতে সবচেয়ে বেশি সভ্যতার অধঃপতন ঘটে যাচ্ছে। সারা বিশ্বে যখন সকল ক্ষেত্রে সাম্য প্রতিষ্টা করতে লড়াই চলছে, সে ক্ষেত্রে আমেরিকার শাসনযন্ত্র যেনো অনেকটাই উলটোপথে হাটছে, যেন রাত কানা অসুখে ভূগছেন আমেরিকানরা, এক চোখ দিয়ে তারা আলো দেখেন তা্র অন্য চোখ আধার দিয়ে ঢেকে রেখেছেন । আমেরিকার বুকে যা ভাবা ঠিক মানায় না তারপরও দেশটিতে ব্ল্যাক পিপল হোয়াইট পিপলের বর্ণ বৈষম্য আজও বিদ্যমান । অভিবাসী দেশ হওয়াতে আমেরিকাকে বিশ্ব মানচিত্র বলা যেতে পারে। পৃথিবীর সাদা, কালো, হিন্দু, মুসলমান, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান,ইহুদী সব জাতির সব ধর্মের লোকেদের বিচরণের স্থান নৈসর্গিক এ স্বর্গ আমেরিকায়। কিন্তু অবাক করার বিষয় হল আমেরিকাতে জাতি,ধর্ম, বর্ণ বৈষম্য থেকে এখনো পুরোপুরি মুক্ত হতে পারেনি। এখোনো পথে, ঘাটে

অচল হয়ে পড়ল মার্কিন সরকার

 ফয়জুল ইসলাম চৌধুরী নয়ন :::  প্রেসিডেন্ট হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের এক বছর পূর্তির সময়টাতেই যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় সরকারের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে। অর্থ বরাদ্দ নিয়ে সমঝোতা না হওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় সরকারের কাজকর্ম ১৯ জানুয়ারি শুক্রবার মধ্যরাতের পর থেকে বন্ধ হয়ে যায়। প্রেসিডেন্ট হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রথম বছর পূর্ণ করার দিন ২০ জানুয়ারি। কেন্দ্রীয় সরকারের কার্যক্রম বন্ধ হওয়ার ফলে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা ছাড়াও উদ্যান ব্যবস্থাপনা, খাদ্য নিরাপত্তাসহ কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন কাজ আংশিকভাবে বাধাগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। রাজধানী ওয়াশিংটনে শুরু হয়েছে অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগের নাটকীয়তা। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও রিপাবলিক দল বলছে, কেন্দ্রীয় সরকার বন্ধের দায় ডেমোক্র্যাটদের। আর ডেমোক্র্যাটদের জোরালো উচ্চারণ, বন্ধ হওয়ার সব দায় রিপাবলিকান ও তাদের দলের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। বন্ধ
ওমর ফারুক চৌধুরী স্পষ্টবাদী যুবজাগরনের এক অগ্নিশিখা

ওমর ফারুক চৌধুরী স্পষ্টবাদী যুবজাগরনের এক অগ্নিশিখা

সাজলু লস্করঃবাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরী যিনি যুব সমাজের এক পথিকৃৎ পুরুষ বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকরী। কিছু দিন আগে কাউয়া তত্ব নিয়ে বেশ গরম ছিল রাজনৈতিক অঙ্গন,গঠন মুলক ভাবে এর স্পষ্ট জবাব দিয়েছিলেন তিনি,একটি পর্যায়ে তিনি বলেছেন এই তত্বগুলো যারা দেন মুলত তারাই কাউয়া।আপনার মন্ত্রী এমপিরা মুরগীর মাংস খান আমার যুবলীগ হাড্ডি টুকু পায় না। যুবলীগের চেয়ারম্যানকে নিয়ে গর্ব করার মত অনেক কাজ আছে।নান্দনিক এবং ডিজিটালাই জেশনের মধ্যে দিয়ে সারাদেশের কর্মীদের মাঝে একধরনের উৎসাহ উদ্দীপনা তৈরী করেছেন।যা প্রত্যেকটি সভা সমাবেশে লক্ষ্য করা যায়। স্পষ্টবাদী,সফল যুব সংগঠক,রাষ্টনায়ক শেখ হাসিনার পরে বাংলার মাটিতে সত্য কথা উচ্চস্বরে বলার মত সৎ সাহস কেবল যুবলীগের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ওমর ফারুকেরই আছে,যুবলীগ করি বলে আমারা গর্ব করি। যুগপোযোগী জ্ঞান ভিত্তিক আদর্শ যুব সংগঠন হিসেব