স্বাস্থ্য-পুষ্টি

‘মৃত রোগী’র কিডনি জীবিতের দেহে প্রতিস্থাপন এ সপ্তাহে!

‘মৃত রোগী’র কিডনি জীবিতের দেহে প্রতিস্থাপন এ সপ্তাহে!

বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ব্রেনডেড ঘোষিত (রোগীর হার্টবিট থাকলেও লাইফ সাপোর্ট খুলে ফেললে মারা যাবে এমন রোগী) রোগীর কাছ থেকে সংগৃহীত কিডনি বিকল রোগীর দেহে প্রতিস্থাপন হতে পারে আগামী সপ্তাহেই। দক্ষিণ কোরিয়ার একটি বিশেষজ্ঞ দলের তত্ত্বাবধানে দেশীয় কিডনি বিশেষজ্ঞ সার্জনরা অস্ত্রোপচার কাজে অংশগ্রহণ করবেন।   ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের কিডনি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. নিজামউদ্দিন আহমেদ এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বাংলাদেশ রেনাল অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ কিডনি ফাউন্ডেশনের আমন্ত্রণে দক্ষিণ কোরিয়ার একটি বিশেষজ্ঞ দল এক সপ্তাহের (১১-১৭ ফেব্রুয়ারি) জন্য বাংলাদেশে আসছেন।   বাংলাদেশে অবস্থানকালে তারা ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ), বারডেম, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ) ও কিডনি ফাউন্ডেশন হাসপাতালের ইন
হার্ট অ্যাটাকের আগে দেহের ৭ সিগনাল

হার্ট অ্যাটাকের আগে দেহের ৭ সিগনাল

ডেস্ক রিপোর্ট : আপনি হয়তো ইতোমধ্যেই জানেন হৃদরোগ এবং স্ট্রোক এখন বিশ্বব্যাপী অকাল মৃত্যুর একটি বড় কারণ। হার্ট অ্যাটাক হয় সাধারণত হৃদপিণ্ডে পর্যাপ্ত রক্ত চলাচল কমে গেলে বা বন্ধ হয়ে গেলে।অথবা রক্ত চলাচলের শিরা-উপশিরাগুলোতে কোনো ব্লক হলে হার্ট অ্যাটাক হয়। তবে আগেভাগেই হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণগুলো ধরতে পারলে হয়তো অকাল মৃত্যু এড়ানো সম্ভব হতে পারে। হার্ট অ্যাটাকের এক মাস আগে থেকেই দেহ কিছু সতর্কতা সংকেত দিতে শুরু করে। এখানে এমন ৭টি লক্ষণ বাতলে দেওয়া হলো যেগুলো দেখা গেলে বুঝবেন আপনি শিগগিরই হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হতে যাচ্ছেন।আর লক্ষণগুলো দেখা গেলে দ্রুত ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। আসুন জেনে নেওয়া যাক… ১. অস্বাভাবিক রকমের শারীরিক দুর্বলতা: রক্তপ্রবাহ কমে গেলে এবং রক্ত চলাচল বাধাগ্রস্ত হলে এমনটা হয়। রক্তের শিরা-উপশিরাগুলোতে চর্বি জমে বাধা সৃষ্টি করলে এবং মাংসপেশী দুর্বল হয়ে পড়লে হৃদরোগের প
প্রতিদিন চিনা বাদাম খাবেন কেন

প্রতিদিন চিনা বাদাম খাবেন কেন

ডেস্ক রিপোর্ট :: চিনা বাদাম বেশ সহজলভ্য ও উপকারী। রাস্তার মোড়ে মোড়ে দেখা মেলে চিনা বাদাম বিক্রেতার। শখ করে কখনো কখনো হয়তো খাওয়া হয় তবে এর উপকারিতা সম্পর্কে জানলে প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় এ বাদাম রাখতে চাইবেন।চিনা বাদামে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, কার্বো-হাইড্রেট ও প্রোটিন আছে। প্রতিদিন একমুঠো চিনা বাদাম খেলে আপনি আপনার শরীরকে অনেক রোগবালাই থেকে দূরে রাখতে পারবেন। জেনে নিন কেন চিনা বাদাম খাবেন- * শরীরের মাত্রাধিক কোলেস্টেরল হৃদরোগ, উচ্চরক্ত চাপ, ওজন বৃদ্ধি ও ডায়াবেটিসের মতো কঠিন রোগ সৃষ্টি করে। বাদামের অসাধারণ কার্যকর ফ্যাট শরীর থেকে কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। এ ছাড়া এই বাদাম শরীরের চর্বি কমাতেও সাহায্য করে। * রাতে ১০-১৫টি বাদাম পানিতে ভিজিয়ে রেখে সকালে খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে। চিনা বাদামের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ডায়াবেটিস নির্মূলে বিশেষভাবে কার্যকর।* প্রতিদিনের খা
রসুন খাওয়ার উপকারিতা কী কী

রসুন খাওয়ার উপকারিতা কী কী

ডেস্ক রিপোর্ট :: অনেকের কাছেই সকালে খালি পেটে কাঁচা রসুন খাওয়াটা ভীষণ অস্বাস্থ্যকর মনে হতে পারে। কিন্তু খালি পেটে রসুন খাওয়া দেহের জন্য ভীষণ স্বাস্থ্যকর একটি ব্যাপার। খালি পেটে রসুন খেলে এমন কিছু উপকার হয়, যেটা অন্য খাবারের সাথে রান্না করা অবস্থায় খেলে হয় না। এটি শুধু বিভিন্ন ধরণের রোগ দূরই করে না, পাশাপাশি বিভিন্ন রোগের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতাও বৃদ্ধি করে। তবে আর দেরি না করে চলুন জেনে নেই খালি পেটে রসুন খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে। উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে : অসংখ্য মানুষ যারা উচ্চ রক্তচাপের শিকার তারা দেখেছেন, রসুন খাওয়ার ফলে তাদের উচ্চ রক্তচাপের কিছু উপসর্গ উপশম হয়। রসুন খাওয়ার ফলে তারা শরীরে ভাল পরিবর্তন দেখতে পায়। শরীরকে ডি-টক্সিফাই করে : অন্যান্য ঔষধের তুলনায় শরীরকে ডি-টক্সিফাই করতে রসুন কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। বিশেষজ্ঞদের মতে, রসুন প্যারাসাইট, কৃমি পরিত্রাণ, জিদ, সাঙ্
রাতের পালায় কাজে ডিএনএ’র ক্ষতি, বলছে গবেষণা

রাতের পালায় কাজে ডিএনএ’র ক্ষতি, বলছে গবেষণা

ডেস্ক রিপোর্ট :: আপনি কী প্রায়ই রাতের পালায় কাজ করছেন? তবে জেনে রাখুন, পর্যাপ্ত ঘুম না হওয়া এবং রাতজাগার কারণে মানুষের ডিএনএ কাঠামো স্থায়ীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। আর ডিএনএ কাঠামোর এ ক্ষতির কারণে ক্যান্সার, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, স্নায়বিক সমস্যা এবং ফুসফুসের জটিলতার মত রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেক বেড়ে যায়। নতুন এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। ‘দ্য অ্যানেস্থেসিয়া অ্যাকাডেমি জার্নালে’ এ গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশ পায়। প্রতিবেদনে বলা হয়, পর্যাপ্ত ঘুম না হলে ডিএনএ কোষ দ্রুত ভেঙে যায় এবং পুনর্গঠনের গতি স্বাভাবিকের চেয়ে কম হয়। যারা রাতভর কাজ করেন তাদের ডিএনএ কোষ ভাঙার গতি রাতে যারা ঘুমান এমন ব্যক্তিদের তুলনায় ৩০ শতাংশ বেশি হয়। ডিএনএ পুনর্গঠনের গতি কমে যাওয়ায় ওই ক্ষতি আরও ২৫ শতাংশ বেড়ে যায়। ইউনিভার্সিটি অব হংকংয়ের গবেষক এস. ডব্লিউ. চোই বলেন, “ডিএনএ ক্ষতিগ্রস্ত হলে এর মৌলিক কাঠামোর পরিবর্তন হয় এবং ড
‘অর্থ বরাদ্দে আমার ভূমিকা পোস্ট অফিসের মতো’

‘অর্থ বরাদ্দে আমার ভূমিকা পোস্ট অফিসের মতো’

ডেস্ক রিপোর্ট ::  সিন্ডিকেট করে সীমাহীন দুর্নীতির মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা আত্মসাতে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অভিযোগ অস্বীকার করেছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (চিকিৎসাশিক্ষা ও স্বাস্থ্য জনশক্তি উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো.আবদুর রশীদ। তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন অপারেশন প্ল্যানের (ওপি) আওতায় সকল সরকারি মেডিকেল কলেজে বিভিন্ন খাতের উন্নয়নে প্রতি বছর ১০০ থেকে ১২০ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়। অর্থ বরাদ্দ প্রদানের ক্ষেত্রে আমার ভূমিকা অনেকটা পোস্ট অফিসের মতো।’ তিনি জানান, অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে টাকা আসে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে সেই টাকা তার কোডে আসে। পোস্ট অফিসে চিঠি এলে যেমন পোস্ট মাস্টার সংশ্লিষ্ট প্রাপকের ঠিকানায় পৌঁছে দেন, ঠিক তেমনি তিনি তার কোডে আসা টাকা বিভিন্ন কলেজের প্রিন্সিপালের চাহিদার ভিত্তিতে অর্থ বরাদ্দ দিয়ে থাকেন। যন্ত্রপাতি ও আসবাবপত্র ক্রয়, প্রশিক্ষ

মুরগির ডিম থেকে পাওয়া যাবে ক্যান্সার প্রতিরোধী ওষুধ

  ক্যান্সার প্রতিরোধে নানা রকমের চিকিৎসার কথা শোনা যায় কিন্তু এবার গবেষকরা এমন এক ডিমের কথা বলছেন যার সাহায্যে প্রাণঘাতী এই রোগ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। এই ডিম সাধারণ মুরগির পাড়া কোন ডিম নয়। মুরগির শরীরে জিনগত কিছু পরিবর্তন ঘটানোর পর ওই মুরগি যে ডিম পাড়বে সেটা দিয়েই এই চিকিৎসার কথা বলা হচ্ছে। গবেষকরা বলছেন, এ ধরনের ডিমে এমন কিছু ওষুধ থাকবে যা দিয়ে আর্থ্রাইটিসসহ কয়েক ধরনের ক্যান্সারের চিকিৎসা করা সম্ভব। শুধু তাই নয়, বলা হচ্ছে যে কারখানায় এসব ওষুধ উৎপাদন করতে যতো খরচ হবে, মুরগির মাধ্যমে এই একই ওষুধ তৈরিতে খরচ পড়বে তারচেয়ে একশো গুণ কম। গবেষকরা এটাও বিশ্বাস করেন যে এই পদ্ধতিতে বাণিজ্যিক পরিমাণেও ওষুধ তৈরি করা সম্ভব। ব্রিটেনে এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসলিন টেকনোলজিসের গবেষক ড. লিসা হেরন বলেন, ডিম পাড়লে মুরগির স্বাস্থ্যেরও কোন ক্ষতি হয় না। "তারা বড় বড় খোপে ব
মুরগির ডিম থেকে পাওয়া যাবে ক্যানসার প্রতিরোধী ওষুধ

মুরগির ডিম থেকে পাওয়া যাবে ক্যানসার প্রতিরোধী ওষুধ

ডেস্ক রিপোট::এই ডিম সাধারণ মুরগির পাড়া কোনো ডিম নয়। মুরগির শরীরে জিনগত কিছু পরিবর্তন ঘটানোর পর ওই মুরগি যে ডিম পাড়বে সেটা দিয়েই এই চিকিৎসার কথা বলা হচ্ছে ক্যানসার প্রতিরোধে নানা রকমের চিকিৎসার কথা শোনা যায় কিন্তু এবার গবেষকরা এমন এক ডিমের কথা বলছেন যার সাহায্যে প্রাণঘাতী এই রোগ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। এই ডিম সাধারণ মুরগির পাড়া কোনো ডিম নয়। মুরগির শরীরে জিনগত কিছু পরিবর্তন ঘটানোর পর ওই মুরগি যে ডিম পাড়বে সেটা দিয়েই এই চিকিৎসার কথা বলা হচ্ছে। গবেষকরা বলছেন, এ ধরনের ডিমে এমন কিছু ওষুধ থাকবে যা দিয়ে আর্থ্রাইটিসসহ কয়েক ধরনের ক্যানসারের চিকিৎসা করা সম্ভব। শুধু তাই নয়, বলা হচ্ছে যে কারখানায় এসব ওষুধ উৎপাদন করতে যত খরচ হবে, মুরগির মাধ্যমে এই একই ওষুধ তৈরিতে খরচ পড়বে তার চেয়ে একশো গুণ কম। গবেষকরা এটাও বিশ্বাস করেন যে এই পদ্ধতিতে বাণিজ্যিক পরিমাণেও ওষুধ তৈরি করা সম্ভব। বিবিসি বাংলা
যেসব কারণে শীতে কমলা খাবেন

যেসব কারণে শীতে কমলা খাবেন

প্রচুর ভিটামিন সমৃদ্ধ একটি ফল কমলা। এমনিতেই কমলা অনেকের পছন্দের একটি ফল। কমলা শুধু খেতেই সুস্বাদু নয় এই ফলটির পুষ্টিগুণও অনেক। শীতের সময় কমলা খাওয়ার অনেক উপকারিতা রয়েছে। কেননা শীতে তাপমাত্রা কমার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও কমতে থাকে, ত্বক শুষ্ক ও ম্লান দেখায়। হজমশক্তিও কমে যায়। কমলা এমন একটি ফল যা শরীর সুস্থ রাখে এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়। এছাড়া শীতের সময় এই ফলটি নিয়মিত খেলে যেসব উপকারিতা পাওয়া যাবে দেখে নিন। ১. আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুযায়ী, নিয়মিত সাইট্রাস জাতীয় ফল বিশেষ করে কমলা, জাম্বুরা খেলে স্ট্রোকের ঝুঁকি কমে। ২. শীতের দিনে কাশি একটি পরিচিত সমস্যা। এই সময় কমলা খেলে ঠাণ্ডা-কাশি প্রতিরোধ করা যায়। ৩. শীতের দিনে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা, ত্বক এবং হজম পদ্ধতি নাজুক অবস্থায় থাকে। কমলায় থাকা ভিটামিন সি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে সব ধরনের ক
শিশুস্বাস্থ্য রক্ষায় মৌসুমী ফল ও শাক সবজি

শিশুস্বাস্থ্য রক্ষায় মৌসুমী ফল ও শাক সবজি

স্কুলের পড়াশুনার চাপের মাঝে শিশুর শরীরকে সুস্থ ও রোগমুক্ত রাখতে প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় পুষ্টিকর খাবার রাখা উচিত। এই পুষ্টির চাহিদা পূরণ করতে প্রচুর মৌসুমী শাক সবজি ও ফলমূলের জুড়ি নেই। ফলমূলে থাকে ভিটামিন ও খনিজ উপাদান যা শরীরের ইলেকট্রলাইট ব্যালেন্স করে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, মনোযোগ বৃদ্ধি করে, দাঁত ভালো রাখে, শরীরে শক্তি যোগায়। কিন্তু দেখা যায়, বাহির থেকে আসার পর শিশুরা ফাস্টফুড বা অতিরিক্ত চিনিযুক্ত খাবারের প্রতি আগ্রহ দেখায়, যা শরীরের জন্যও যেমন ক্ষতিকর তেমন শিশুদের অলস করে তোলে। পাশাপাশি বিভিন্ন রঙের সবজি দিয়ে খাবার রান্না করে সাজিয়ে পরিবেশন করলে শিশুদের খাওয়ার প্রতি আগ্রহ বৃদ্ধি পাবে এবং সঙ্গে প্রয়োজনীয় পুষ্টিও পূরণ হবে। সবজি রান্নার ক্ষেত্রে রংধনুর রঙগুলোকে মাথায় রেখে রান্না করতে হবে। এতে খাবারে পুষ্টিমানও বৃদ্ধি পায় ও শিশুর জন্য যথাযথ ভিটামিন ও খনিজ উপাদান উপস্থিত থাকে