Fri. Aug 23rd, 2019

BANGLANEWSUS.COM

-ONLINE PORTAL

President Trump to visit mass shooting sites amid criticism

2 min read

Donald Trump is to visit the sites of mass shootings in Ohio and Texas amid warnings he will not be welcome.

The attacks in Dayton and El Paso left 31 people dead.

President Trump spoke out on racism and hatred following the shootings but has been accused of stoking the same sentiments he sought to condemn.

The Democratic congresswoman who represents El Paso said she would not meet him, urging him to understand that his words “have consequences”.

“I refuse to join without a dialogue about the pain his racist and hateful words & actions have caused our community and country,” Veronica Escobar tweeted.

The El Paso shooting is being treated as a possible hate crime. Much of the city identifies as Hispanic or Latino and the suspect is thought to be the author of a text posted online which said “this attack is a response to the Hispanic invasion of Texas”.

Has US neglected fight against white extremism?

‘I’ve never been scared of being Hispanic – until now’

The text echoed some of the US president’s language, with Mr Trump having frequently used the term “invasion” to describe the situation on the US-Mexico border.

What sort of welcome will Trump get?

Ms Escobar is not the only one to suggest Mr Trump faces a cool reception in El Paso. Beto O’Rourke, a native of the city and Democratic presidential challenger, said Mr Trump “has no place here”.

Both he and Ms Escobar have said they will attend a community event intended to honour those who died and “confront President Trump and white supremacy”.

El Paso’s Republican Mayor Dee Margo said it was his “formal duty” to welcome Mr Trump but added he would “continue to challenge any harmful and inaccurate statements made about El Paso”.

 

 

আজকের খবর

1 min read

জম্মু-কাশ্মীর সমস্যা নিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান কাশ্মীর সংক্রান্ত কোর গ্রুপ বৈঠকে সভাপতিত্ব করেছেন। এতে কাশ্মীরের বিষয়টি বিশ্বব্যাপী তুলে ধরতে পাকিস্তানের আরও প্রচেষ্টার আলোচনা হয়েছে। এ বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরইশি, আইন ও বিচারমন্ত্রী ফারোগ নাসিম, কাশ্মীরের সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী তথ্য ও সম্প্রচার ড. ফিরদাউস আশিক আওয়ান এবং অ্যাটর্নি জেনারেল অব পাকিস্তান উপস্থিত ছিলেন। বিশ্বজুড়ে কাশ্মীরের পরিস্থিতি তুলে ধরতে পাকিস্তানের রাজনৈতিক, কূটনৈতিক, আইনি এবং মিডিয়া প্রচেষ্টাকে আরও যুক্ত করার পদক্ষেপে একমত হয়েছেন। এর আগে পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র ড. মোহাম্মদ ফয়সাল এক বিবৃতিতে বলেন, খাদ্য ও ওষুধের ঘাটতি হওয়ায় এ অঞ্চলটি মানবিক সংকটের অপেক্ষায় রয়েছে, যা জনগণের বিশেষত প্রবীণ, মহিলা ও শিশুদের জীবনকে ঝুঁকিপূর্ণ করছে। ভারতীয় বাহিনী দীর্ঘদিন ধরেই উপত্যকায় নৃশংস উপায়ে বিদ্রোহ দমন করে আসছে। ইতিমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চল মোতায়েনকৃত সেনা হিসেবে অতিরিক্ত সেনা এ অঞ্চলে মোতায়েন করা হয়েছে। এতে কারফিউ আরোপ করা হয়েছে। ৫ আগস্ট ভারত সরকার কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার পর থেকেই যোগাযোগের অচলাবস্থা সৃষ্টি করা হয়েছে; শীর্ষস্থানীয় কাশ্মীরি নেতাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। জিয়ো টিভির প্রতিবেদনে বলা হয়ছে, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ (ইউএনএসসি), মানবাধিকার সংস্থা এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম কাশ্মীরিদের ওপর দেয়া কারফিউ ও কাশ্মীরি জনগণের ভোগান্তি নিরসনের আহ্বান জানিয়েছিল। অধিকৃত কাশ্মীরের অবস্থা বিশ্লেষণ করে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্যও আহ্বান করা হয়েছে। কাশ্মীর কোর গ্রুপও অধিকৃত কাশ্মীরে বসবাসকারী জনগণকে তাদের নিজস্ব অধিকার ফিরিয়ে দেয়া এবং উপত্যকায় আটকেপড়া লোকদের পাকিস্তানের সহায়তার কথা উত্থাপন করা হয়।

Copyright © Banglanewsus.com All rights reserved. | Developed By by Positive it USA.

Developed By Positive itUSA